সম্পর্ক জোরদার করছে মালদ্বীপ ও চীন

চীনে রাষ্ট্রীয় সফরে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজু।

সম্পর্ক জোরদার করছে মালদ্বীপ ও চীন

অনলাইন ডেস্ক

চীনে প্রথম রাষ্ট্রীয় সফরে গিয়ে মালদ্বীপের নতুন প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজু দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্কে নতুন আঙ্গিক যুক্ত করেছেন। পাশাপাশি, চীনের প্রতিদ্বন্দ্বী ভারতকে নিজ দেশের জন্য হুমকি হিসেবেও চিহ্নিত করেছেন তিনি। খবর আল জাজিরার।

বুধবার (১০ জানুয়ারি) চীনের সাথে বেশ কিছু নতুন চুক্তি সম্পাদন করেছে মালদ্বীপ।

প্রেসিডেন্ট মুইজুর কার্যালয় জানায়, চুক্তিগুলো মূলত জলবায়ু, কৃষি এবং অবকাঠামোকে গুরুত্ব দিয়েছে। চুক্তিগুলোর আর্থিক মূল্য কতো সে ব্যাপারে দুই দেশের সরকারের কাছ থেকে কোনো তথ্য জানা যায়নি।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মুইজুকে একজন পুরোনো বন্ধু বলে উল্লেখ করেন এবং মালদ্বীপের সাথে একটি সর্বাত্মক কৌশলগত সহযোগিতামূলক অংশীদারিত্বের প্রতি সম্মতি জানানোর মাধ্যমে দ্বীপরাষ্ট্রটিতে নতুন বিনিয়োগের জন্য রাজি হয়েছেন।

মুইজুর কার্যালয় থেকে প্রদত্ত এক বিবৃতিতে জানা যায়, মালদ্বীপে বিনিয়োগ করার জন্য মুইজু জিনপিংকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা শিনহুয়া জানায়, বিদ্যমান নতুন পরিস্থিতিতে চীন-মালদ্বীপ সম্পর্ক পুরোনো অভিজ্ঞতার প্রেক্ষিতে সামনে এগিয়ে যাওয়ার এক ঐতিহাসিক সুযোগের সম্মুখীন হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন শি জিনপিং। পাশাপাশি, মালদ্বীপ যাতে তাদের জন্য উপযুক্ত পন্থায় উন্নয়ন করতে পারে সে বিষয়টির প্রতিও সম্মান জানিয়েছেন তিনি।

গত অক্টোবরে বিশ্ব ব্যাংক চীনের দিকে ঝুঁকে গেলে মালদ্বীপের জন্য নতুন সংকট সৃষ্টি হবে এবং চীনের কাছ থেকে নেয়া ১ দশমিক ৩৭ বিলিয়ন ডলারের ঋণ ইতোমধ্যে দেশটির মোট সরকারি ঋণের প্রায় ২০ শতাংশ বলে উল্লেখ করে।

চীন হচ্ছে মালদ্বীপের সর্ববৃহৎ ঋণদাতা। এর পরের অবস্থানেই আছে সৌদি আরব এবং ভারত, যাদের কাছে মালদ্বীপের ঋণের পরিমাণ যথাক্রমে ১২৪ মিলিয়ন ডলার এবং ১২৩ মিলিয়ন ডলার।

মুইজু নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে ভারতের সাথে মালদ্বীপের সম্পর্কে ক্রমশ অবনতি ঘটছে। ক্ষমতায় আসার পর তিনি সমুদ্রে নজরদারীর জন্য উপহার পাওয়া তিনটি যুদ্ধবিমান পরিচালনার কাজে নিয়োজিত ভারতীয় সৈন্যদেরকে দেশ থেকে বিতাড়িত করার ঘোষণা দেন।

গত সপ্তাহে মালদ্বীপ-ভারত সম্পর্কে হঠাৎ করেই চিড় ধরে, যখন আরব সাগরে ভারতের অধিকৃত লক্ষ্যদ্বীপে পর্যটন সম্প্রসারিত করার জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির এক বক্তব্যের জের ধরে মুইজুর মন্ত্রীসভার তিনজন সদস্য মোদিকে ভাঁড়, সন্ত্রাসী এবং ইসরায়েলের দাস বলে চিহ্নিত করেন।  

এক্সে প্রকাশিত পোস্টগুলো পরে মুছে দেয়া হয়।

news24bd.tv/ab

এই রকম আরও টপিক

পাঠকপ্রিয়