মাদারীপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সহিংসতায় ১২ পুলিশসহ আহত ৩৫

মাদারীপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের সংঘর্ষে ১২ পুলিশসহ আহত হয়েছেন অন্তত ৩৫ জন।

মাদারীপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সহিংসতায় ১২ পুলিশসহ আহত ৩৫

মাদারীপুর প্রতিনিধি

মাদারীপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের সংঘর্ষে ১২ পুলিশসহ আহত হয়েছেন অন্তত ৩৫ জন। এ সময় অর্ধশত ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনা ঘটে। বেশ কয়েকটি ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাটও করা হয়। ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।

এই ঘটনায় আটক করা হয়েছে পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ ৭ জনকে। মাদারীপুর পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের চর খাগদী এলাকায় বুধবার (১০ জানুয়ারি) রাত ৯টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত টানা আড়াই ঘন্টা চলে এই সংঘর্ষ।

আহত পুলিশ সদস্যদের মধ্যে মাদারীপুর সদর মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মো. সেলিম সরদার, এসআই রবিউল ইসলাম, এএসআই মাসুদ বেপারী এবং কনস্টেবল মনোয়ার হোসেন রয়েছেন।

ভুক্তভোগীরা জানায়, চর খাগদী এলাকার সোহরাব বেপারীর ছেলে সিমান্ত বেপারী বুধবার সন্ধ্যায় মোটরসাইকেল নিয়ে চরমুগরিয়া বাজারে যাচ্ছিল।

তার মোটরসাইকেলটির সঙ্গে একই এলাকার মিন্টু মৃধার ছেলে আশিক মৃধার শরীরের ধাক্কা লাগে। এ ঘটনার বিরোধ মিটাতে দুপক্ষের লোকজন চরমুগরিয়া বাজারের দুলাল তালুকদারের দোকানে সালিশে বসেন। সালিশে দুপক্ষ বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়লে সুলতান সরদার নামে একজনের মাথায় আঘাত লাগে।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে সরদার, মৃধা ও বেপারী বংশের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। রাত ৯টা থেকে  সাড়ে ১১টা পর্যন্ত টানা আড়াই ঘন্টার সংঘর্ষে বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনা ঘটে। এ সময় উভয়পক্ষের অন্তত ১০টি বসতঘরে ভাঙচুর ও লুটপাট চালানো হয়।
সংঘর্ষে থানা পুলিশের পরিদর্শক সেলিম সরদারসহ ১২ পুলিশ সদস্য আহত হন। এছাড়া উভয়পক্ষের আরো ২৩ জন আহত হন। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজনকে ভর্তি করা হয়েছে জেলা সদর হাসপাতালে।

অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ। এই ঘটনার বিচার দাবী করেছেন ভুক্তভোগীরা।

ভুক্তভোগী এক নারী বলেন, হঠাৎ করে শুনি মারামারি লেগেছে, আমাদের ঘরের পুরুষ লোক দেশের বাহিরে থাকে। ঘরের থাই গ্লাসগুলো ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, আমাদের এখানে প্রতিটি বাড়িতে ছোট ছেলে-মেয়েরা রয়েছে। আমাদের বাড়িঘরে সবসময় মহিলারা থাকেন। সবার মাঝে এখন নিরাপত্তার অভাব দেখা দিয়েছে। এমন সংঘর্ষ হলে কিভাবে বসবাস করবো আমরা।

মাদারীপুর সদর মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মো. সেলিম সরদার জানান, সংঘর্ষ থামাতে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। ঠিক তখনই পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুঁড়তে থাকে দুইপক্ষই। এতে পুলিশের বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে ফাঁকা গুলি ছুঁড়তে হয় পুলিশকে।

মাদারীপুর সদর মডেল থানার ওসি এএইচএস সালাউদ্দিন জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় মাদারীপুর পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল বাশার বেপারীসহ ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুটি পক্ষ এই সংঘর্ষে জড়ায়। যারা সরাসরি এই ঘটনায় জড়িত ছিল সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে।

news24bd.tv/ab

এই রকম আরও টপিক

পাঠকপ্রিয়