হত্যার পর মডেলের মরদেহ ফেলা হয় ২৭০ কি.মি. দূরে

ভারতীয় মডেল দিব্যা পাহুজা

হত্যার পর মডেলের মরদেহ ফেলা হয় ২৭০ কি.মি. দূরে

হত্যার ১১ দিন পর একটি খাল থেকে ভারতীয় মডেল দিব্যা পাহুজারের গলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে যিনি হত্যার পর মরদেহ পাঞ্জাবের পটীয়লার একটি খালে ফেলে দিয়েছেন বলে জানান।

চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে ভারতীয় গণমাধ্যম জানায়, গত ২ জানুয়ারি গুরুগ্রামের একটি হোটেলে হত্যা করা হয় দিব্যাকে। পরে মরদেহ হরিয়ানার একটি খালে ফেলে দেওয়া হয়।

এ ঘটনায় বলরাজ গিল নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।  

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় তাকে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। জবানবন্দিতে জানানো হয়, বলরাজকে দিব্যার মরদেহ লুকিয়ে ফেলার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। হত্যার পর মরদেহ তিনি হরিয়ানার টোহনা খালে ফেলে দেন।

পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেপ্তারের পর বলরাজ গিল দিব্যার মরদেহ গুরুগ্রাম থেকে ২৭০ কিলোমিটার দূরে পঞ্জাবের পটীয়লার একটি খালে ফেলে দিয়ে এসেছেন বলে জানান। তার কথার অনুযায়ী পুলিশ খালে তল্লাশি চালায়। পরে মরদেহ না পেয়ে বলরাজকে আরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এরপর হরিয়ানার খাল থেকে মডেলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।  

দিব্যার মরদেহ পরিবারের সদস্যদের দিয়ে শনাক্ত করানো হয়েছে বলেও জানায় পুলিশ।

নিউ দিল্লির গুরুগ্রামের সিটি পয়েন্ট হোটেলে খুন হয়েছিল ২৭ বছর বয়সী মডেল মডেল দিব্যা। পাঞ্জাবি এই মডেলকে খুন করেছেন হোটেল মালিক অভিজিৎ সিং। খুনের পর দিব্যার মরদেহ পাচারের জন্য এক সহযোগীকে ১০ লাখ টাকা দেন তিনি।  

হত্যার পর ওই হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজ উদ্ধার করে পুলিশ। যেখানে দেখা যায়, ২ জানুয়ারি হোটেলের ১১ নম্বর কক্ষের দিকে যাচ্ছেন মালিক অভিজিৎ। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন একজন পুরুষ ও নারী। সেই রুমেই খুন করা হয় দিব্যাকে। পরে তার মরদেহ টেনে-হিঁচড়ে বের করা হয়। তোলা হয় একটি নীল রঙের গাড়িতে।  

news24bd.tv/তৌহিদ

পাঠকপ্রিয়