বসুন্ধরার ২ হাজার ২শ কম্বল পেল কুষ্টিয়ার শীতার্ত মানুষ

শীতার্তদের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের কম্বল বিতরণ করা হচ্ছে।

বসুন্ধরার ২ হাজার ২শ কম্বল পেল কুষ্টিয়ার শীতার্ত মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুষ্টিয়া

বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় বসুন্ধরা শুভসংঘের উদ্যোগে কুষ্টিয়ার কুমারখালী ও খোকসা উপজেলায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার বিতরণের দ্বিতীয় দিনে দুটি উপজেলার ৪টি পয়েন্টে শীতার্তদের হাতে আরও ২ হাজার ২শ কম্বল তুলে দেওয়া হয়েছে।

রোববার তৃতীয় দিনে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলায় চলবে বসুন্ধরা গ্রুপের কম্বল বিতরণ কার্যক্রম। এ ধাপে জেলায় মোট ৭ হাজার কম্বল বিতরণ করা হবে।

কুষ্টিয়া অঞ্চলে শীতের তীব্রতার মধ্যে দ্রুতগতিতে চলছে বসুন্ধরা শুভসংঘের এ কম্বল বিতরণ কার্যক্রম। শনিবার বিতরণের দ্বিতীয় দিনে কুমারখালী ও খোকসা উপজেলার ৪ পয়েন্ট বেছে নেন বসুন্ধরা শুভসংঘের কর্মীরা। কুমারখালী আদর্শ মহিলা ডিগ্রী কলেজ, নগরকয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, খোকসায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সামনে ও শোমসপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বসুন্ধরার শীত উপহার নিতে ভিড় করেন এলাকার হতদরীদ্ররা। কম্বল পেয়ে বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের জন্য দোয়া করেন শীতার্ত মানুষ।

তারা বলেন- কম্বল পেয়ে খুব উপকার হলো। বসুন্ধরার চেয়ারম্যান যেন অনেক বছর বেঁচে থাকেন, আমরা আরও সহায়তা পেতে পারি।

দ্বিতীয় দিনে খোকসায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সামনে কম্বল বিতরণ কার্যক্রমে অংশ নেন খোকসা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বাবুল আখতার।

তিনি বলেন, বসুন্ধরার চেয়ারম্যানের মতো যদি সবাই এগিয়ে আসতেন তাহলে দেশের মানুষের আর কষ্ট থাকতো না।

শোমসপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বিতরণ কার্যক্রমে অংশ নিয়ে দেশের কল্যাণে বসুন্ধরা গ্রুপের অবদানের কথা তুলে ধরেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সদর উদ্দীন খান। বিশেষ করে করোনাকালে বসুন্ধরার অবদানের কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেশের যেকোনো সংকটে বসুন্ধরা পাশে থাকে। মানবতার সেবায় এগিয়ে বসুন্ধরার চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান। তাকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান তিনি।

কম্বল বিতরণ কার্যক্রমে বসুন্ধরা শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান ও কুষ্টিয়ায় কালের কণ্ঠের স্টাফ রিপোর্টার তারিকুল হক তারিকসহ শুভসংঘের সদস্যরা সমন্বয় করছেন।

news24bd.tv/তৌহিদ

পাঠকপ্রিয়