জরিপে এগিয়ে ট্রাম্প, ঠেকাতে মরিয়া প্রতিদ্বন্দ্বীরা

ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: এবিসি

জরিপে এগিয়ে ট্রাম্প, ঠেকাতে মরিয়া প্রতিদ্বন্দ্বীরা

অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের প্রার্থী বাছাইয়ে গতকাল সোমবার আইওয়া অঙ্গরাজ্যে ভোট হওয়ার কথা। প্রতিকূল আবহাওয়া সত্ত্বেও ভোটারদের সমর্থন পেতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাচ্ছেন প্রার্থীরা। মূলত আইওয়া থেকেই শুরু হয় হোয়াইট হাউস দখলের লড়াই। তাই জরিপে বিপুল ব্যবধানে এগিয়ে থাকা সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের লাগাম টানতে মরিয়া হয়ে আছেন তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীরা।

খবর বিবিসির।

বিশ্লেষকরা বলছেন, আইওয়ায় জয় পেলে ট্রাম্পের প্রার্থিতার দাবি আরো মজবুত হবে। অন্যদিকে সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি, ফ্লোরিডার গভর্নর রন ডিস্যান্টিস ও উদ্যোক্তা বিবেক রামস্বামী নিজেদের ট্রাম্পের প্রধান বিকল্প হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চাইবেন। আইওয়া রাজ্যে দেড় হাজারের বেশি ককাস।

এর একটিতে স্থানীয় সময় গতকাল রাতে প্রার্থী বাছাইয়ের কথা ভোটারদের।

কিন্তু আবহাওয়ার পূর্বাভাস বলছে, সেখানকার তাপমাত্রা মাইনাস ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামতে পারে। ভোটদানের ওপর এর প্রভাব পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে প্রতিকূল আবহাওয়া মোকাবেলা করে ভোট দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন প্রার্থীরা। এই অঙ্গরাজ্যে ভোটের পর দলীয় প্রার্থী নির্বাচনের লড়াই শুরু হবে অন্যান্য অঙ্গরাজ্যে।

জয়ী প্রার্থী আগামী নভেম্বরে ডেমোক্র্যাট নেতা জো বাইডেনের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। গত রোববার রাজ্যের ইন্ডিয়ানোলা শহরে এক সমাবেশে সমর্থকদের উদ্দেশে ট্রাম্প বলেন, ‘একসঙ্গে আমরা ইতিহাস তৈরি করতে যাচ্ছি, তবে আপনাদের দেখিয়ে দিতে হবে। এই রাজ্যের ফলাফল পুরো দেশে তথা সমগ্র বিশ্বে একটি বার্তা দেবে। ’

গত শনিবার প্রকাশিত এক জরিপে দেখা গেছে, আইওয়ার প্রতিদ্বন্দ্বীদের চেয়ে প্রায় ৩০ পয়েন্ট এগিয়ে আছেন ট্রাম্প। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন নিকি হ্যালি।

তবে জরিপের ফলাফল নিয়ে বিচলিত নন হ্যালি। তিনি বলেন, ‘আসল ভোট হবে ককাসের দিন (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে বহুল ব্যবহৃত একটি পারিভাষিক শব্দ যার অর্থ হলো কোন রাজনৈতিক দলের মধ্যকার একটি সুনির্দ্দিষ্ট গোষ্ঠী বা চক্র যেটি বিশেষ একটি বিষয়ে নীতিনির্ধারণী কার্য সম্পাদনে নিযুক্ত। আদিতে কেবল নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের জন্য "ককাস" গঠন করা হতো। )। ’ আইওয়ায় ভালো ফলাফল নিউ হ্যাম্পশায়ারে হ্যালির প্রচারণায় গতি আসবে। কারণ এখানে ট্রাম্পের চেয়ে মাত্র ১০ পয়েন্ট পিছিয়ে আছেন তিনি। এদিকে আইওয়ায় বিপুল সময় দেওয়ার পরও তৃতীয় স্থানে নেমে গেছেন ডিস্যান্টিস।

news24bd.tv/DHL

পাঠকপ্রিয়