অস্ত্র ক্রয়ে অনিয়ম খুঁজে পেয়েছে ইউক্রেন

ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী কর্তৃক প্রয়োজনীয় অস্ত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে ৪০ মিলিয়ন ডলার সমমূল্যের দুর্নীতির প্রমাণ খুঁজে পেয়েছে দেশটির নিরাপত্তা সংস্থা।

অস্ত্র ক্রয়ে অনিয়ম খুঁজে পেয়েছে ইউক্রেন

অনলাইন ডেস্ক

রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে ব্যবহারের জন্য ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী কর্তৃক প্রয়োজনীয় অস্ত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে ৪০ মিলিয়ন ডলার সমমূল্যের দুর্নীতির প্রমাণ খুঁজে পেয়েছে দেশটির নিরাপত্তা সংস্থা।

দুর্নীতির বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। ধারণা করা হচ্ছে রাশিয়ার আক্রমণের ফলে ইতোমধ্যে পর্যুদস্ত দেশটিতে এ ঘটনার ফলে বিরুপ প্রভাব পড়বে।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সদস্য হতে চাওয়া ইউক্রেনের জন্য দুর্নীতি প্রতিরোধের বিষয়টি অন্যতম মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ইউক্রেনের নিরাপত্তা সংস্থা এক তদন্তের মাধ্যমে গোলাবারুদ কেনার সময় দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা এবং অস্ত্র সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান এলভিভ আর্সেনালের ব্যবস্থাপকদের ৪০ মিলিয়ন ডলার আত্মসাতের বিষয়টি উন্মোচন করেছে।

নিরাপত্তা সংস্থার মতে, সামরিক বাহিনীর জন্য এক লাখ মর্টার শেল কেনার সময় এই দুর্নীতি করা হয়েছে। ২০২২ সালের আগস্টে এলভিভ আর্সেনালের সাথে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় মর্টারের গোলা কেনার এ চুক্তিটি সম্পাদন করে এবং অগ্রিম অর্থ পরিশোধ করে, যার একটি অংশ দেশের বাইরে স্থানান্তরিত হয়। বিনিময়ে কোনো গোলাবারুদই সরবরাহ করা হয়নি এবং পরিশোধকৃত অর্থের পুরোটাই বিভিন্ন বিদেশী ব্যাংক অ্যাকাউন্টে চলে যায়।

এক বিবৃতিতে ইউক্রেনের নিরাপত্তা সংস্থা জানায়, দুর্নীতির সাথে সংশ্লিষ্ট পাঁচজনকে সন্দেহের আওতায় এনে নোটিশ পাঠানো হয়েছে এবং ইউক্রেনের সীমান্ত অতিক্রম করার সময় এদের মধ্যে একজনকে আটক করা হয়েছে।

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সমঝোতায় ইউক্রেনের প্রতিনিধিত্ব করার পরেও গত বছরের সেপ্টেম্বরে দুর্নীতির দায়ে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওলেকসি রেজনিকভকে চাকরিচ্যুত করা হয়।

news24bd.tv/ab

পাঠকপ্রিয়