রাজনৈতিক অনুদানের বিস্তারিত জানাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের চাপ

রাজনৈতিক দলগুলোতে অর্থায়ন করার পদ্ধতি নির্বাচনী বন্ড ক্রেতাদের তালিকা প্রকাশ করতে ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আরও সময় চাওয়ার আবেদন খারিজ করে দিয়েছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট।

রাজনৈতিক অনুদানের বিস্তারিত জানাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের চাপ

অনলাইন ডেস্ক

রাজনৈতিক দলগুলোতে অর্থায়ন করার পদ্ধতি নির্বাচনী বন্ড ক্রেতাদের তালিকা প্রকাশ করতে ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আরও সময় চাওয়ার আবেদন খারিজ করে দিয়েছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। মঙ্গলবারের (১২ মার্চ) মধ্যে এই তথ্য উন্মুক্ত করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। খবর আল জাজিরার।

সোমবার (১১ মার্চ) এক আদেশে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট জানায়, আমরা যে তথ্য চেয়েছি তা ইতোমধ্যে প্রস্তুত আছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংককে ভারতের নির্বাচন কমিশনের কাছে তথ্যগুলো মঙ্গলবার বিকেল ৫টার মধ্যে পৌঁছাতে হবে।

পাঁচজন বিচারকের একটি বেঞ্চ তাদের আদেশে আরও জানায়, মঙ্গলবার বিকেল ৫টার মধ্যে নির্বাচন কমিশনকে তথ্যগুলো একত্রিত করে তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করতে হবে। আদালতের নির্দেশ অমান্য করলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হতে পারে।

২০১৭ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সরকার নির্বাচনের সময় রাজনৈতিক দলগুলোকে অর্থায়ন করার জন্য নির্বাচনী বন্ড ব্যবস্থার প্রবর্তন করে।

এই ব্যবস্থায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছ থেকে সনদ ক্রয়ের মাধ্যমে রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি গোপনে যতো ইচ্ছা ততো অর্থায়ন করা যায়।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি ভারতের সুপ্রিম কোর্ট ব্যবস্থাটিকে জনগণের তথ্যের অধিকারকে খর্ব করার দায়ে বাতিল করে। এক আদেশে সুপ্রিম কোর্ট জানায়, কেন্দ্রীয় ব্যাংককে প্রতিটি বন্ডের বিস্তারিত জানাতে হবে এবং নির্বাচন কমিশনকে ১৩ মার্চের মধ্যে এই তথ্য প্রকাশ করতে হবে।

আরও পড়ুন: আল কায়েদার শীর্ষ নেতার মৃত্যু

কেন্দ্রীয় ব্যাংক ৩০ জুন পর্যন্ত বন্ডের তথ্য শেয়ার করার ব্যাপারে সময় চেয়েছিল। ধারণা করা হয় আসন্ন নির্বাচনে মোদির ভারতীয় জনতা পার্টি যাতে অর্থায়ন দ্বারা উপকৃত হতে পারে সেজন্যেই এই সময় বর্ধিত করার আবেদন করা হয়েছিল।

সমালোচকেরা ব্যবস্থাটিকে রাজনীতিতে কালো টাকার দৌরাত্ম্য শুরু হওয়ার একটি প্রক্রিয়া হিসেবে উল্লেখ করেছেন, তবে এর সমর্থকেরা নগদ অর্থ প্রদানের চাইতে এই পদ্ধতিতে অধিক নিয়মকানুন মানা হয় বলে ব্যবস্থাটিকে সমর্থন করেছেন।

অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেমোক্র্যাটিক রিফর্মস নামের একটি সংগঠনের দেয়া তথ্যমতে, নির্বাচনী বন্ডের ৫৭ ভাগ অর্থই বিজেপি পেয়ে থাকে। ২০১৭ সালে ব্যবস্থাটি শুরুব হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ২ বিলিয়ন ডলার মূল্যের বণ্ড কিনেছেন বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।

news24bd.tv/ab

পাঠকপ্রিয়