তিনি কখনো ম্যাজিস্ট্রেট কখনো ডিজিএফআই এর মেজর

অভিযুক্ত মুক্তা পারভিন

তিনি কখনো ম্যাজিস্ট্রেট কখনো ডিজিএফআই এর মেজর

রাজবাড়ী প্রতিনিধি 

পরিচয় দিতেন কখনো হাইকোর্টের ম্যাজিস্ট্রেট কখনো ডিজিএফআই এর মেজর। এই চক্রের মূলহোতা মুক্তা পারভিন (৩৪) নামে এক প্রতারককে রাজবাড়ী শহরের অনুপম মার্কেট এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব -১০।

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) এক প্রেস রিলিজের মাধ্যমে বিষয়টি জানায় র‍্যাব-১০। গ্রেপ্তার মুক্তা পারভিন নওগাঁ জেলার ধামইরহাট থানার লোদীপুর গ্রামের মো. মোজাহারুল ইসলামের মেয়ে।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, গ্রেপ্তার মুক্তার নেতৃত্বে সংঘবন্ধ একটি প্রতারক চক্র দীর্ঘদিন রাজশাহীর বোয়ালিয়াসহ বিভিন্ন এলাকায় নিজের কখনও হাইকোর্টের ম্যাজিস্ট্রেট কখনও ডিজিএফআই এর মেজর পরিচয় দিয়ে সহজ-সরল-নিরীহ লোকজনদের কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে। তাদের প্রতারণার শিকার হন রাজশাহী জেলার চন্দ্রিমা থানাধীন ছোটবনগ্রাম এলাকার মৃত ইমাম শেখের ছেলে শেখ আব্দুল্লাহ (৩৭)। তার কাছ থেকে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে চাকরি পাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন সময়ে ১ কোটি ২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় চক্রটি। প্রতারণার স্বীকার হয়েছেন বুঝতে পেরে শেখ আব্দুল্লাহ বাদী হয়ে বোয়ালিয়া মডেল থানায় ভূয়া ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে প্রতারণাকারী চক্রের অন্যতম মূল হোতা মুক্তা পারভিনসহ সাতজনের বিরুদ্ধে একটি প্রতারণার মামলা দায়ের করেন।

মামলার বিষয়টি জানতে পেরে চক্রটির সকল আসামিরা আত্মগোপনে চলে যায়।

ঘটনার বিষয়টি জানতে পেরে র‍্যাব -১০ এর একটি আভিযানিক দল প্রতারক চক্রটিকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার লক্ষ্যে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি ও ছায়া তদন্ত শুরু করে। গত ১ এপ্রিল দুপুর সোয়া ২ টার দিকে র‍্যাব-১০ এর আভিযানিক দল গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ও তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় রাজবাড়ী জেলার সদর এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে ভূয়া হাইকোর্টের ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে প্রতারণাকারী চক্রের অন্যতম মূল হোতা এজাহারনামীয় পলাতক আসামি মুক্তা পারভিনকে গ্রেপ্তার করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার আসামি ভূয়া হাইকোর্টের ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে প্রতারণাকারী চক্রের অন্যতম মূল হোতা বলে স্বীকার করেছে। গ্রেপ্তার আসামিকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানায় র‍্যাব।

news24bd.tv/তৌহিদ

পাঠকপ্রিয়