হায়দ্রাবাদের বিপক্ষে মোস্তাফিজহীন চেন্নাইয়ের হার

হায়দ্রাবাদের বিপক্ষে মোস্তাফিজহীন চেন্নাইয়ের হার

অনলাইন ডেস্ক

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের বিপক্ষে হারের স্বাদ নিতে হলো চেন্নাই সুপার কিংসকে। শুক্রবার (৫ এপ্রিল) টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে হায়দ্রাবাদকে ১৬৬ রানের লক্ষ্য দেয় চেন্নাই। জবাব দিতে নেমে ১১ বল এবং ছয় উইকেট হাতে থাকতেই জয় তুলে নেয় হায়দ্রাবাদ।

এই ম্যাচে মোস্তাফিজ ছিলেন না।

জাতীয় দলের ভিসা সংক্রান্ত কাজে দেশে আসায় ম্যাচটিতে তার অনুপস্থিতির পাশাপাশি চেন্নাইয়ে চোটের অস্বস্তির কারণে নতুন করে একাদশ থেকে ছিটকে গেছিলেন আরেক পেসার মাথিশা পাথিরানা। চেন্নাইয়ের জন্য এই দুই ঘটনা কিছুটা ধাক্কাই মনে করা হয়েছিলো।

ব্যাটিংয়ে তেমন ধার দেখাতে না পারা চেন্নাইয়ের দেওয়া ১৬৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে উড়ন্ত সূচনা করেন হায়দ্রাবাদের অভিষেক শর্মা। ১২ বলে ৩৭ রানের ঝড়ো একটি ইনিংস খেলেন তিনি।

তার সাথে ইমপ্যাক্ট ক্রিকেটার হিসেবে ব্যাট করতে নামেন ট্রাভিস হেড। দুজনের ব্যাটে ভর করে তিন ওভারের আগেই ৪৬ রান তোলে হায়দ্রাবাদ।

এরপর অভিষেক শর্মা সাজঘরে ফেরেন। ফিফটি তুলতে পারেননি হেডও। ২৪ বলে ৩১ রান করে থিকশানাকে উড়িয়ে মারতে বাউন্ডারি লাইনে ধরা পড়েন এই অজি ব্যাটার। হেডের আউটের পর শাহবাজকে সঙ্গে নিয়ে রান তুলতে থাকেন এইডেন মারক্রাম। ৩৫ বলে ফিফটি তুলে নেন এই প্রোটিয়া ব্যাটার। পরের বলেই লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন তিনি। এরপর ব্যাট চালাতে থাকেন শাহবাজ। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি এই বাঁহাতি ব্যাটার। ১৯ বলে ১৮ রান করেন তিনি।

শেষ পর্যন্ত হেইনরিচ ক্লাসেনের ১০ বলে ১১ রান এবং নিতিশ কুমার রেড্ডির ৮ বলে ১৪ রানে ভর করে ১১ বল এবং ছয় উইকেট হাতে থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় হায়দ্রাবাদ।

এর আগে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ভালো শুরু করে চেন্নাই সুপার কিংসের দুই ওপেনার রাচিন রবীন্দ্র এবং রুতুরাজ গাইকোয়াড়। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি দুইজনের কেউই। ৯ বলে ১২ রান করে রাচিন আউট হলেও ২১ বলে ২৬ রান করে তার দেখানো পথে হাঁটেন চেন্নাই দলপতি।

চতুর্থ উইকেটে রাহানেকে সঙ্গে নিয়ে রান তুলতে থাকেন শিভাম ডুবে। দুজনের ব্যাটে ভর করে এগিয়ে যেতে থাকে চেন্নাই। পাঁচ রানের আক্ষেপ নিয়ে আউট হন ডুবে। ২৪ বলে ৪৫ রান করেন এই বাঁহাতি ব্যাটার।

এরপর ৩০ বলে ৩৫ রান করে সাজঘরে ফেরেন রাহানে। ২০তম ওভারে তৃতীয় বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে ধরা পড়েন ড্যারিল মিচেল। শেষ পর্যন্ত জাদেজার ২৩ বলের অপরাজিত ৩১ রানে ভর করে ১৬৫ রানের লড়াকু পুঁজি পায় চেন্নাই।

হায়দ্রাবাদের হয়ে ভুবনেশ্বর কুমার এবং প্যাট কামিন্স বেশ ইকোনমিকাল বোলিং করেছেন। একটি করে উইকেট পেয়েছেন দুইজনই।

চেন্নাইয়ের হয়ে মঈন আলী সর্বোচ্চ ২টি উইকেট শিকার করেছেন। ১২ বলে ৩৭ রান করা অভিষেক শর্মা ম্যাচসেরা নির্বাচিত হয়েছেন।

news24bd.tv/SC  
  

পাঠকপ্রিয়