মাদারীপুরে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর দুই সমর্থককে কুপিয়ে জখম

উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

মাদারীপুরে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর দুই সমর্থককে কুপিয়ে জখম

মাদারীপুর প্রতিনিধি

মাদারীপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী আসিবুর রহমান খানের দুই কর্মীকে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের লোকজনের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার (৩০ এপ্রিল) সন্ধ্যায় সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের তালতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।  

আহতরা হলেন, সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের চৌহদ্দি গ্রামের আমরী সরকারের ছেলে মানিক সরকার (৪১) ও তার সহযোগী সুকদেব সরকার (৪২)।

ভুক্তভোগীরা জানান, মাদারীপুর শহর থেকে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান পরিষদ নির্বাচনে আনারস প্রতীকের প্রার্থী আসিবুর রহমান আসিব খানের নির্বাচনী পোস্টার নিয়ে সহযোগী সুকদেব সরকারকে সাথে নিয়ে ইজিবাইকে নিজগ্রামে যাচ্ছিলেন মানিক সরকার।

মাঝপথে তালতলা এলাকায় পৌঁছালে মোটরসাইকেল প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী পাভেলুর রহমান শফিক খানের সমর্থক দত্ত কেন্দুয়া গ্রামের জালাল হাওলাদারের ছেলে স্বপন হাওলাদার (৩৮) ইজিবাইক গতিরোধ করে। এ সময় মানিক ও সুকদেব কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ ওঠে স্বপনের বিরুদ্ধে। পরে আত্মরক্ষার্থে একটি দোকানের ভেতর আশ্রয় নেয় আহত আনারস প্রতীকের দুই কর্মী। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মানিক ও সুকদেবকে উদ্ধার করে।
পরে দুই জনকেই ভর্তি করা হয় জেলা সদর হাসপাতালে।  

এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এদিকে, অভিযুক্ত স্বপন হাওলাদার ঘটনার পর পলাতক ও ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া যায়।

আহত মানিক সরকার বলেন, যতিন সরকার ও নাদিম বৈদ্যর নির্দেশে অতর্কিতভাবে স্বপন হাওলাদার লোকজন নিয়ে এই হামলা চালিয়েছে। ভয়ে সাটার বন্ধ করে একটি দোকানে আশ্রয় নিলে পুলিশ ও ম্যাজিস্ট্রেট গিয়ে উদ্ধার করে। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।

তবে হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে নাদিম বৈদ্য বলেন, আমি এ ঘটনা জানি না। কারা কেন হামলা করেছে তাও বলতে পারবো না।

মাদারীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএইচএম সালাউদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে সদর মডেল থানা পুলিশ গিয়ে আহত দুইজনকে উদ্ধারের হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে ভুক্তভোগী মানিক সরকার। এরই মধ্যে অপরাধীদের ধরতে পুলিশ কাজ শুরু করছে।
news24bd.tv/আইএএম