তাপপ্রবাহে ভারতে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে

সংগৃহীত ছবি

তাপপ্রবাহে ভারতে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে

অনলাইন ডেস্ক

চলতি বছর তীব্র তাপপ্রবাহে ভারতের বিহার, উত্তর প্রদেশ ও ওড়িশাসহ বিভিন্ন স্থানে মৃত্যৃর খবর পাওয়া গেছে। বিহার রাজ্যে গতকাল শনিবার থেকে আগের তিন দিনে অন্তত ৩০ জনের বেশি মানুষ মারা গেছেন। এর মধ্যে অরঙ্গাবাদ জেলায় সর্বোচ্চ মারা গেছেন ১৯ জন। গত বৃহস্পতিবার সেখানে তাপমাত্রা উঠেছিল ৪৮ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

কর্মকর্তারা বলছেন, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এখনও পর্যন্ত মৃত ব্যক্তির পোস্টমর্টেম রিপোর্ট আসেনি।

অরঙ্গাবাদে হিটস্ট্রোকের কারণে প্রায় ২০০ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার অভিষেক কুমার জানান, হাসপাতালে আসা প্রায় ২০০ রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, রোগীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় হাসপাতালে বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছে।

স্বাস্থ্য দপ্তরের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিহারের বিভিন্ন জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে ৩০০ জনেরও বেশি লোককে ভর্তি করা হয়েছে এবং তাদের চিকিৎসা চলছে।

অধিদপ্তর থেকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে জনগণকে অপ্রয়োজনে ঘর থেকে বের না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আরওয়াল, বক্সার, রোহতাস এবং বেগুসরাই জেলায় তাপপ্রবাহে আটজনের মৃত্যু হয়েছে। তিনি আরও বলেন, মৃত্যুর কারণ তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত করা যায়নি কারণ শোকাহত পরিবারের বেশিরভাগ সদস্য ময়নাতদন্ত করতে অস্বীকার করেছিলেন।

শুক্রবার পাটনা-গয়া রেল সেকশনে অবস্থিত নাদৌল রেলওয়ে স্টেশনে হিটস্ট্রোকের কারণে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এখনো পর্যন্ত লাশগুলোর পরিচয় পাওয়া যায়নি।

চিকিৎসার সময় পাটনার পিএমসিএইচ-এ একজন সেক্টর অফিসার মারা যান এবং একজন দুখরন প্রসাদকে শনাক্ত করা হয়, যিনি পাটনার উপকণ্ঠের গ্রাম ধনারুয়ার কৃষি সমন্বয়কারী বলে জানা গেছে। তিনি ধানরুয়ায় অজ্ঞান হয়ে পড়েন এবং শুক্রবার তাকে পিএমসিএইচে ভর্তি করা হয়।

ভোজপুর জেলার আরাহ শহরে, তাপপ্রবাহের কারণে পাঁচজন ভোটকর্মীসহ নয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও, তাপপ্রবাহ সিপিআই-এমএল-এর স্ট্যাট কমিটির সদস্যের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে।

রোহতাসে তাপপ্রবাহে আটজনের মৃত্যু হয়েছে। জেহানাবাদে, জেলায় নির্বাচনী দায়িত্বে থাকা একজন সৈনিকসহ আটজন মারা গেছেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

কাইমুর জেলায়, হিটস্ট্রোকে একজন শিক্ষকসহ ছয়জন মারা গেছেন এই শিক্ষক নির্বাচনী দায়িত্বের জন্য বাড়ি থেকে বের হয়ে বাড়ি ফেরার সময় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয় এবং হাসপাতালে নেওয়ার সময় তিনি মারা যান।

গয়াতে গত দুই দিনে হিটস্ট্রোকে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের নাম মনোজ রাম (৫০), রঘুনন্দন যাদব (৮০) এবং সতেন্দ্র সিং (৬৮)।

শুক্রবার বক্সারে হিট স্ট্রোকে তিনজন এবং চাপড়ায় তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার শেখপুরায় দুজন এবং মুঙ্গেরে দুজনের মৃত্যু হয়েছে।

গোপালগঞ্জ, জামুই, লক্ষীসরাই এবং পূর্ব চম্পার জেলাতেও মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

news24bd.tv/DHL