২৬ জুন , বুধবার, ২০১৯

শিরোনাম

> বাংলাদেশ

>> রাজনীতি

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

১২ জানুয়ারী ,শনিবার, ২০১৯ ১৬:৪২:৫২

এত বড় জয় কারচুপির মাধ্যমে সম্ভব না: জয়


এত বড় জয় কারচুপির মাধ্যমে সম্ভব না: জয়

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে কম্পিউটার বিজ্ঞানী সজীব ওয়াজেদ জয়


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে কম্পিউটার বিজ্ঞানী সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, সদ্য শেষ হওয়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রশ্নবিদ্ধ করতে বিএনপিজোটের সঙ্গে সুশীল সমাজের কিছু প্রতিনিধিও সমান তালে গলা মেলাচ্ছেন।

একই সঙ্গে ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ জয়ের কারণ ও বিএনপির পরাজয়ের বিষয়ে ব্যাখ্যাও দিয়েছেন তিনি।

শনিবার (১২ জানুয়ারি) দুপুরে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাসের মাধ্যমে সজীব ওয়াজেদ জয় এসব কথা বলেন। 

জয় লিখেছেন, সাম্প্রতিক নির্বাচনে ব্যালটের মাধ্যমে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টকে বাংলাদেশের মানুষ পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করেছে। তাই তারা এখন তাদের বিদেশি প্রভুদের কাছে নালিশ করছে ও সাহায্য চাইছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে যোগাযোগ ও লবিং এর মাধ্যমে তারা প্রমাণ করতে চাইছে যে, নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে; যা পরিসংখ্যান মোতাবেক একেবারেই অসম্ভব। 

‌‌‌‘আওয়ামী লীগ বিএনপি থেকে প্রায় ৪ কোটি ৯০ লাখ বেশি ভোট পেয়েছে। এতো বড় ব্যবধানের জয় কখনই কারচুপির মাধ্যমে আদায় করা সম্ভব না। তারা বলছে, ভয় ভীতির কথা। কিন্তু যদি আমরা ধরেও নিই আওয়ামী লীগের বাইরের সকল ভোট বিএনপি-জামায়াত এর পক্ষেই যেত, তাহলেও ২ কোটি ২০ লাখ ভোটের ব্যবধান থাকতো বিএনপি আর আওয়ামী লীগের মধ্যে।’

‘তারপরেও আমাদের সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা কেউ কেউ বিএনপির এই আন্তর্জাতিক লবিং এর সাথে সমান তালে গলা মিলিয়ে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাইছে। তাদের অভিযোগগুলোর উত্তর দেওয়ার পাশাপাশি আমি নিজেও কিছু কথা বলতে চাই।’

তাদের প্রথম অভিযোগ, ভোটার সংখ্যা ছিল অত্যাধিক, তার মানে ভুয়া ভোট দেওয়া হয়েছে। এবার ভোট দেওয়ার হার ছিল ৮০ শতাংশ, যা বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ইতিহাসে সর্বোচ্চ নয়। ২০০৮ সালের 'তত্ত্বাবধায়ক সরকারের' অধীনে নির্বাচনে ভোট দেওয়ার হার ছিল ৮৭ শতাংশ, যা এখন পর্যন্ত রেকর্ড। সেই নির্বাচনটিতেও আওয়ামী লীগ ৪৭ শতাংশ ভোট পেয়ে ব্যাপক ব্যবধানে জয় পেয়েছিল। ২০০১ সালে ভোট দেওয়ার হার ছিল ৭৫.৬ শতাংশ আর ১৯৯৬ সালে ছিল ৭৫ শতাংশ।

ওই দুইটি নির্বাচনের তুলনায় এবার ভোট দেওয়ার হার সামান্য বেশি ছিল কারণ এক দশকে এটাই ছিলো প্রথম অংশগ্রহণমূলক জাতীয় নির্বাচন।

দ্বিতীয় অপপ্রচার হচ্ছে, আওয়ামী লীগ নাকি এবার ৯০ শতাংশ ভোট পেয়েছে। এই কথাটি পুরোপুরি মিথ্যা। আওয়ামী লীগ ভোট পেয়েছে ৭২ শতাংশ। মহাজোটের অন্যান্য শরিকরা পেয়েছে ৫ শতাংশের কম ভোট। এই ৭২ শতাংশও আওয়ামী লীগের এর জন্য সর্বোচ্চ না। কারণ ১৯৭৩ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পেয়েছিলো ৭৩.২ শতাংশ ভোট। সেইবার যেমন স্বাধীনতা ও মুক্তি সংগ্রামে নেতৃত্ব দেওয়ার কারণে আওয়ামী লীগ বিশাল বিজয় পেয়েছিলো, এবারের নির্বাচনেও আওয়ামী লীগের ভোট বাড়ার পেছনে আছে দুইটি সুনির্দিষ্ট কারণ।

প্রথম কারণটি খুবই পরিষ্কার। আওয়ামী লীগ আমলে মানুষের জীবনমানের উন্নতি হয়েছে যেকোনো সময়ের থেকে বেশি। আমরা নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ হয়েছি, মাথাপিছু আয় প্রায় তিনগুন বেড়েছে, দারিদ্র্যের হার অর্ধেক করা হয়েছে, মোটামুটি সবাই এখন শিক্ষার সুযোগ, স্বাস্থসেবা ও বিদ্যুতের সুবিধা পাচ্ছে ইত্যাদি। বাংলাদেশের মানুষের জন্য যে উন্নয়ন আওয়ামী লীগ সরকার করেছে তা এখন দৃশ্যমান।

আমাদের সুশীল সমাজ সবসময়ই বলার চেষ্টা করে বাংলাদেশের ভোটাররা নাকি পরিবর্তন চায়। এইসব ঢালাও কথাবার্তা, যার কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই।এ থেকেই বুঝা যায় আসলে তারা কতটা জনসম্পৃক্ততাহীন। আপনি যদি একজন সাধারণ মানুষ হন, এমনকি ধনী ব্যবসায়ীও হন, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বাংলাদেশের অর্থনীতি যেই হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, তার সুফল আপনিও পাচ্ছেন। কেউ কেন এমন একটি সরকারের বিরুদ্ধে ভোট দিতে চাইবে যাদের আমলে তার জীবন বা ব্যবসার উন্নতি ঘটেছে?

দ্বিতীয় কারণ হচ্ছে, আমাদের নির্বাচনী প্রচার কিন্তু গতবছর শুরু হয়নি। আমরা ২০১৪ সালের নির্বাচনের পর থেকে আমাদের প্রচারণা শুরু করে দিয়েছিলাম। জনগণের কাছে আমাদের উন্নয়নের বার্তা পৌঁছে দেওয়ার কোনো সুযোগই হাতছাড়া করিনি। আমরা তাদের বুঝিয়েছি যা উন্নয়ন ও অগ্রগতি হচ্ছে তা আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার কারণেই হচ্ছে। 

জয় লিখেন, অর্থনৈতিক ও সামাজিক যত উন্নয়ন দেখা যাচ্ছে তার পেছনে আছে আমাদের দলের ভিশন, পরিকল্পনা, বাস্তবায়ন ও পরিশ্রম। যার কৃতিত্ব আমাদের দলীয় মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, কাউন্সিলরসহ সকলের। যখন আমাদের বিরোধী পক্ষ ও সুশীল সমাজ ব্যস্ত ছিল সমস্যা ও নালিশ নিয়ে, আমরা ব্যস্ত ছিলাম জনগণকে সমস্যার সমাধান দিতে।

‘সুশীল সমাজের একটি বড় অপপ্রচার হচ্ছে নতুন ভোটাররা রাজনৈতিক দল নিয়ে মাথা ঘামায় না ও তাদের বেশিরভাগই নাকি পরিবর্তন চায়। তারা বুঝতে পারেনি যে এই নতুন ভোটাররা আমাদের আমলের উন্নয়নের মধ্যে বড় হয়েছে যা তাদের জীবনকে করেছে আরো সহজ ও উন্নত। তারা কেন আমাদের ভোট দিবে না?,’ বলেন তিনি। 

প্রধানমন্ত্রীপুত্র স্ট্যাটাসে বলেন, ২০১৩ সাল থেকেই আওয়ামী লীগের জন্য আমি জনমত জরিপ করাই। আপনারা হয়তো খেয়াল করেছেন যে, এবার কিন্তু সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে কোনো জরিপ আসেনি। ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে কিন্তু তারা ঠিকই একের পর এক জরিপ প্রকাশ করছিলো দেখানোর জন্য আওয়ামী লীগের অবস্থা কত খারাপ। 

‘আসলে বাংলাদেশে খুব কম ব্যক্তি বা সংগঠনই সঠিকভাবে জনমত জরিপ করতে পারে। হার্ভার্ডে থাকতে আমি জনমত জরিপের উপর পড়াশোনা করি। জরিপ করতে আমরা যাদের ব্যবহার করি তাদের বাছাই করার আগে আমি নিজে একাধিক গবেষণা সংগঠনের সাথে বসে আলাপ করি। ভুয়া জরিপ করে নিজেদের জনপ্রিয়তা দেখানোর কাজ আমরা করি না, কারণ আমাদের জন্যই সঠিক তথ্যটি পাওয়া খুবই জরুরি। আমরা জানতে চেষ্টা করি নির্বাচনী লড়াইয়ে আমাদের অবস্থান ও সক্ষমতা, তাই জরিপের ব্যাপারে আমরা খুবই সতর্ক থাকি।’

সজীব ওয়াজেদ জয় স্ট্যাটাসে আরও লিখেন, নির্বাচনের দুই সপ্তাহ আগে আমাদের জরিপ থেকে আমরা জানতে পারি আওয়ামী লীগ পাবে ৫৭ থেকে ৬৩ শতাংশ ভোট আর বিএনপি পাবে ১৯ থেকে ২৫ শতাংশ ভোট। তাহলে আমরা ৭২ শতাংশ ভোট কিভাবে পেলাম? আমাদের জরিপের জন্য স্যাম্পল নেওয়া হয় ৩০০ আসন থেকে, অর্থাৎ ১০ কোটি ৪০ লাখ নিবন্ধিত ভোটারের মধ্যে থেকে। কিন্তু ভোট দেওয়ার হার কখনই ১০০ শতাংশ হয় না আর ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন হয়েছিলো ২৯৮ টি আসনে। 

‘২৯৮ টি আসনে ১০ কোটি ৩৫ লাখ নিবন্ধিত ভোটারের মধ্যে ৮০ শতাংশ ভোট দিয়েছেন, অর্থাৎ ৮ কোটি ২৮ লাখ। আওয়ামী লীগ পেয়েছে প্রায় ৬ কোটি ভোট। ১০ কোটি ৩৫ লাখ ভোটারের মধ্যে ৬ কোটি মানে ৫৮ শতাংশ। অর্থাৎ, আমাদের জরিপের সাথে এই বিষয়টি মিলে যায়।’

বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টের পরাজয়ের কারণ ব্যাখ্যায় জয় স্ট্যাটাসে লিখেন, বিএনপি-ঐক্যফ্রন্ট কেন এতো কম ভোট পেলো? কিছু যৌক্তিক কারণে। বিএনপির চেয়ারপারসন দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত হয়ে জেলে আছেন। তাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসনও দণ্ডিত আসামি, আছেন দেশের বাইরে পালিয়ে। তাদের সংগঠনের অবস্থা করুন। 

‘তার থেকেও বড় আরেকটি কারণ আছে যা আমাদের সুশীল সমাজ সহজে বলতে চায় না। যেই কারণটি বিএনপির জনপ্রিয়তায় ধসের পেছনে সবচেয়ে বড় ফ্যাক্টর বলে আমি মনে করি। জনমত জরিপগুলো থেকে খেয়াল করেছি যে, বিএনপি ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত যে অগ্নিসন্ত্রাস চালায় তারপর থেকেই তাদের জনপ্রিয়তায় ব্যাপক ধস নামে। পেট্রল বোমা সন্ত্রাসের আগে জরিপগুলোতে বিএনপি আওয়ামী লীগ থেকে জনপ্রিয়তায় ১০ শতাংশ পিছিয়ে থাকতো। কিন্তু রাজনীতির নামের সন্ত্রাসবাদের কারণে তাদের সাথে আওয়ামী লীগের ব্যাবধান ৩০ শংতাংশ হয়ে যায় আর তারপর থেকেই বাড়তেই থাকে।’

তিনি লেখেন, এছাড়া তাদের আত্মঘাতী নির্বাচনী প্রচারণার বিষয়টিও আমাদের আমলে নিতে হবে। নির্বাচনী প্রচারণায় কমতি ছিলো পরিষ্কারভাবেই। তার উপর তারা তারেক রহমানের মাধ্যমে নিজেদের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেয়। আর মানুষের মনে ভেসে উঠে হাওয়া ভবন আমলের দুর্নীতি ও সহিংসতার দুঃসহ সব স্মৃতি। তারেক রহমান আবার মনোনয়ন দেন একাধিক চিহ্নিত অপরাধী ও যুদ্ধাপরাধীদের। এর মাধ্যমে কি তাদের জনপ্রিয়তা বাড়বে না কমবে?

‘নির্বাচনের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত তাদের সমর্থকদের তারা ইঙ্গিত দেয় যে তারা নির্বাচন থেকে সরে আসবে। আপনি যদি মনে করেন, আপনার দল নির্বাচনেই আসবে না, তাহলে কি আপনি ভোট দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হবেন? এই কারণে তাদের নিজেদের সমর্থকদেরও ভোট দেয়ার হার কম ছিল যার ফলশ্রুতিতে তারা ভোট পায়ও কম।’

জয়ের স্ট্যাটাসে বলা হয়, বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টের বার্তাই ছিলো আওয়ামী লীগ খারাপ। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ সেই বার্তা গ্রহণ করেনি কারণ তারা নিজেরাই দেখেছে কিভাবে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে তাদের জীবনমানের উন্নয়ন হয়েছে।

‘ঐক্যফ্রন্টের নেতা কামাল হোসেন নিজে নির্বাচনই করেননি। কারণ উনি জানতেন উনি কোনো আসন থেকেই জিততে পারবেন না। কিন্তু তারা আমাদের কিছুটা অবাকও করেছেন। ভোটের লড়াইয়ে প্রথমবারের মতন কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন গণফোরাম একটি নয়, দুইটি আসন থেকে জয়লাভ করে। কারচুপি যদি হতোই তাহলে যে দল আগে কোনো নির্বাচনেই কোনো আসন পায়নি তারা কিভাবে দুইটি আসনে জিতে?’

তিনি বলেন, সত্য আসলে বেশি জটিল না। বাংলাদেশের জনগণ, বিশেষ করে তরুণরা দেখছে কিভাবে শেখ হাসিনার মতন একজন ডাইনামিক নেত্রী দেশকে উন্নতি ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। তাই বিরোধীপক্ষের শত অপবাদ, অপপ্রচার ও কাদা ছোড়াছুড়ি কোনো কাজে আসেনি। কারণ দিন শেষে মানুষ তাকেই বেছে নেয় যে তাকে উন্নত জীবন দিতে পারবে।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)


ক্র্যাচে ভর দিয়ে হাঁটতে হচ্ছে মাহমুদুল্লাহকে
'ক্রিকেটারদের আরো সুযোগ-সুবিধা দেয়া হবে'
ফিঞ্চের সেঞ্চুরিতে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ২৮৫
টস জিতে অস্ট্রেলিয়াকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছে ইংল্যান্ড
নড়বড়ে ও পুরনো সেতুগুলো দ্রুত মেরামতের নির্দেশ
ভারতে যাত্রীবাহী বাস খাদে নিহত ৬
বিশ্বকাপে সেরা অলরাউন্ডার সাকিব
টেকনাফে মানবপাচার মামলার তিন আসামি 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত 
সাকিবের নৈপুণ্যে টাইগারদের দাপুটে জয়
'দেশের মানুষ কষ্ট পেলে বাবার আত্মা কষ্ট পাবে'
আফগানিস্তানের বিপক্ষে চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়েছে টাইগাররা
বিশ্বকাপে সাকিবের ১ হাজার রান পূর্ণ 
আফগানদের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
বিএনপির কার্যালয়ের পাশে পাঁচটি ককটেল বিস্ফোরণ
'মানুষের জীবন নিয়ে কেউ যেন ছিনিমিনি খেলতে না পারে'
কলকাতায় শুটিংয়ে ব্যস্ত বাংলাদেশের শিল্পীরা
নিবন্ধন ও ফিটনেসবিহীন গাড়ির মালিকদের তথ্য চায় হাইকোর্ট
'বিকেলের মধ্যে উদ্ধার কাজ শেষ হবে'
সুবর্ণচরে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে জলদস্যু নিহত
সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগও বন্ধ
ক্র্যাচে ভর দিয়ে হাঁটতে হচ্ছে মাহমুদুল্লাহকে
পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু 
পীরগাছায় বজ্রপাতে শিক্ষার্থী নিহত
যুবলীগের দু'গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১
মটরসাইকেল ও এ্যাম্বুলেন্সের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২
অস্ত্র মামলায় সাজাপ্রাপ্ত কয়েদির মৃত্যু
'ক্রিকেটারদের আরো সুযোগ-সুবিধা দেয়া হবে'
এফআর টাওয়ার নির্মাণে দুর্নীতির অভিযোগে মামলা
ফিঞ্চের সেঞ্চুরিতে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ২৮৫
ট্রেন দুর্ঘটনায় স্টেশন মাস্টারকে ঢাকায় তলব
টস জিতে অস্ট্রেলিয়াকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছে ইংল্যান্ড
ঝিনাইদহে অস্ত্রসহ সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার
পরিবারকে সময় দিতে ছুটিতে সাকিব 
ছাত্রদলের দুপক্ষে মারামারি, আহত ১০
নড়বড়ে ও পুরনো সেতুগুলো দ্রুত মেরামতের নির্দেশ
ভারতে যাত্রীবাহী বাস খাদে নিহত ৬
বিশ্বকাপে সেরা অলরাউন্ডার সাকিব
বগুড়া-৬ আসনে জয় পেলেন বিএনপির সিরাজ
টেকনাফে মানবপাচার মামলার তিন আসামি 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত 
সাকিবের নৈপুণ্যে টাইগারদের দাপুটে জয়
যেভাবে উদ্ধার সোহেল তাজের ভাগ্নে সৌরভ
এইচআইভিতে আক্রান্ত ৪৬ জনকে শনাক্ত
রোগী দেখে ফেরার পথে লাশ হলেন চিকিৎসক
বিএনপির কার্যালয়ের পাশে পাঁচটি ককটেল বিস্ফোরণ
মার্কিন গোয়েন্দা ড্রোন ভূপাতিত করল ইরান
লিটনের আউট নিয়ে বিতর্কে ঝড়
ঘুমন্ত ছোট ভাইকে হত্যা করল বড় ভাই
ঢাবি ছাত্রীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ, গ্রেপ্তার ১
ফরিদপুরে এক বছর ধরে কাজের মেয়েকে ধর্ষণ
কাল ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে 
বাংলাদেশকে ৩৮২ রানের টার্গেট দিল অস্ট্রেলিয়া
বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে যা বলছে!
শতরানের জুটি গড়ে ফিরলেন মাহমুদউল্লাহ
পরিবারকে সময় দিতে ছুটিতে সাকিব 
ইরানকে এস-৪০০ নিতে বলল রাশিয়া
কুলাউড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন
ভারতকে মাটিতে নামাল আফগানরা 
ডিআইজি মিজানের সম্পদ ক্রোক ও হিসাব জব্দ
সংসদে ৩০০ ঋণ খেলাপির তালিকা প্রকাশ
কলাগাছ ও সবজি ক্ষেতের সাথে শত্রুতা

সব খবর