তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে যাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি

বিজেপি নেতা নরেন্দ্র মোদি।

তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে যাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি

অনলাইন ডেস্ক

তৃতীয়বার ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন বিজেপি নেতা নরেন্দ্র মোদি। আজ রোববার (৯ জুন) সন্ধ্যায় নয়াদিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শপথ অনুষ্ঠান হবে। সেখানে মোদির নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যরাও শপথ নেবেন।

প্রধানমন্ত্রী ও নতুন সরকারের শপথগ্রহণকে কেন্দ্র করে নয়াদিল্লি ও এর আশপাশের এলাকায় নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি ভবনে আজ স্থানীয় সময় রাত পৌনে ৮টার দিকে মোদি ও তাঁর মন্ত্রিসভার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান হতে যাচ্ছে। এতে বিভিন্ন দেশের প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতিসহ কয়েক হাজার অতিথি অংশ নিচ্ছেন।

শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এরই মধ্যে নয়াদিল্লিতে পৌঁছেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি ছাড়াও শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহে, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মোহামেদ মুইজু, মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রবিন্দ কুমার, নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্পকমল দহল প্রচণ্ড ও ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছেন।

দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, সার্কের নেতাদের আগমন উপলক্ষে এরই মধ্যে দিল্লির সংশ্লিষ্ট বড় হোটেলগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান ছাড়াও রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর আমন্ত্রণে রাষ্ট্রপতি ভবনে এক অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন এই অতিথিরা।

অনুষ্ঠানে সার্ক সদস্যদের মধ্যে আঞ্চলিক সম্পর্ক জোরদার নিয়ে আলোচনা হতে পারে।

মন্ত্রিসভায় নাইডুর চার, নীতীশের দুই এমপি:

নরেন্দ্র মোদির নতুন মন্ত্রিসভায় চন্দ্রবাবু নাইডুর তেলেগু দেশম (টিডিপি) পার্টির চারজন এবং বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের জনতা দল-ইউনাইটেডের (জেডি-ইউ) দুজন স্থান পেতে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র। লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলের পর সরকার গঠনের ক্ষেত্রে নির্ণায়ক হয়ে ওঠেন চন্দ্রবাবু নাইডু ও নীতীশ কুমার। এ দুজনের দলের ২৮ জন নেতা এবার নির্বাচনে জয় পেয়েছেন। বিজেপি একা সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় আসন না পাওয়ায় তাদের জন্য জোটসঙ্গী এই দুই দলের ওপর ভরসা করা অনিবার্য হয়ে ওঠে।

মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পেতে যাওয়া টিডিপির চার এমপির মধ্যে সম্ভাব্য তিনজন হলেন রাম মোহন নাইডু, হরিষ বালাযোগী ও দাগ্গুমাল্লা প্রসাদ। এ ছাড়া লোকসভার স্পিকারের পদও দাবি করেছে টিডিপি। অন্যদিকে নীতীশ কুমারের দলের সম্ভাব্য দুই মন্ত্রী হলেন লালন সিং ও রাম নাথ ঠাকুর।

নয়াদিল্লিতে নিরাপত্তা জোরদার:

শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান ঘিরে নয়াদিল্লিতে কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রপতি ভবনে নেওয়া হয়েছে তিন স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, অনুষ্ঠানস্থলের চারপাশ এবং অন্যান্য কৌশলগত স্থানে দিল্লি পুলিশের সোয়াট ও এনএসজির কমান্ডো মোতায়েন করা হয়েছে।

গতকালই রাজধানীকে নো ফ্লাই জোন ঘোষণা করেছে পুলিশ। আগামী কয়েক দিন দিল্লির আকাশে ড্রোন, প্যারাগ্লাইডার, রিমোটচালিত আকাশযান ও গরম বাতাসপূর্ণ বেলুন ওড়ানো নিষিদ্ধ থাকবে।

কর্মকর্তারা বলছেন, দিল্লির দিকে যাওয়া বেশ কয়েকটি রাস্তা আজ বন্ধ থাকবে। রাজধানীতে প্রবেশকারী যানবাহনে গতকাল থেকেই তল্লাশি জোরদার করা হয়।

নীতীশকে প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাব দিয়েছিল ইন্ডিয়া জোট:

এদিকে নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর ইন্ডিয়া জোট নীতীশ কুমারকে সরকার গঠনে সমর্থনের বিনিময়ে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল বলে দাবি করেছেন তাঁর দল জেডি-ইউয়ের নেতা কে সি ত্যাগী। তবে জেডি-ইউ এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে আগামী পাঁচ বছর এনডিএ জোটের সঙ্গেই থাকার পরিকল্পনা করেছে বলে জানান তিনি।

এক সাক্ষাৎকারে কে সি ত্যাগী বলেন, ‘কংগ্রেস ও তাদের জোট যেভাবে আমাদের নেতার (নীতীশ) সঙ্গে আচরণ করেছে, তাতে আমরা কষ্ট পেয়েছি। যারা ভেবেছিল নীতীশ কুমার ইন্ডিয়া জোটের আহ্বায়ক হওয়ার যোগ্য নন, তারা এখন তাঁকে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব দিচ্ছে। তবে জেডি-ইউ সব প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে। এখন আমাদের প্রধান দাবি বিহারের জন্য বিশেষ মর্যাদা আদায় করা, যা রাজ্যটির উন্নয়নে সহায়ক হবে। ’ 

সূত্র : এনডিটিভি, এএফপি

news24bd.tv/DHL

পাঠকপ্রিয়