নারী কর্মীদের জড়িয়ে ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ

ইলন মাস্ক।

নারী কর্মীদের জড়িয়ে ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক

বিশ্বের শীর্ষ ধনী ইলন মাস্কের বিরুদ্ধে নিজের দুই কোম্পানি স্পেসএক্স এবং টেসলার নারী কর্মীদেরকে তার সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের জন্য বার বার প্রস্তাব দেওয়া এবং কর্মক্ষেত্রে নারী কর্মীদের নানা ভাবে যৌন হেনস্তা করার অভিযোগ উঠেছে।

এ খবর নিয়ে তোলপাড় চলছে পশ্চিমা দুনিয়ায়। এমন খবর প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী পত্রিকা ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল। তাতে দু’জন নারীকে উদ্ধৃত করা হয়েছে।

তারা ইলন মাস্কের টেসলা নামের প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন। তারা বলেছেন, ইলন মাস্ক তাদের দিকে অস্বাভাবিক মনোযোগ দিতেন। তাদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন। এর মধ্যে একজন আছেন ইন্টার্ন।

অফিসে কাজের সময় এমনকি কোম্পানি বৈঠকের সময়েও কর্মী ও বোর্ড মেম্বারদের সামনে এলএসডি, কোকেন, কেটামাইন, এক্সটাসি প্রভৃতি মাদক গ্রহণ করেন বলে কয়েক দিন আগে অভিযোগ উঠেছে মাস্কের বিরুদ্ধে। তার রেশ না কাটতেই এবার উঠল নারী কর্মীদের যৌন হয়রানি করার অভিযোগ।

সম্প্রতি স্পেসএক্স কোম্পানির অফিসে নারীদের প্রতি যৌন হয়রানিমূলক আলোচনা, কৌতুকের অবাধ প্রবাহ চলা এবং নারী কর্মীদের যৌন হেনেস্তার অভিযোগ উঠেছে। মূলত মাস্কের আসকারাতেই এই সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে বলে জানিয়েছেন সেই কোম্পানি থেকে চাকরি ছাড়তে বাধ্য হওয়া ভুক্তভোগী নারীরা।

স্পেসএক্স কোম্পানির নারী কর্মীদের পুরুষ সহকর্মীর তুলনায় কম বেতন দেওয়া এবং  কোনো কর্মী কোম্পানির কোনো অনিয়ম নিয়ে অভিযোগ জানালে তাকে চাকরি থেকে ছাঁটাইয়ের অভিযোগও রয়েছে মাস্কের বিরুদ্ধে।

আর টেসলার কয়েক জন সাবেক নারী কর্মীর অভিযোগ, এই কোম্পানির অধিকাংশ নারী কর্মীকে ‘বিশেষ নজরে’ দেখেন মাস্ক। যেসব কর্মীকে তার ‘মনে ধরে’, তাদেরকে সরাসরি শয্যাসঙ্গী হওয়ার আমন্ত্রণ জানান তিনি। মাস্কের এই আচরণের কারণে অনেক নারীই চাকরি ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছেন। ২০১৬ সালে টেসলা থেকে অব্যাহতি নেওয়া এক নারী ওয়ালস্ট্রিট জার্নালকে জানিয়েছেন, মাস্ক তাকে শয্যাসঙ্গী হওয়ার প্রস্তাব দিয়ে বলেছিলেন, তিনি এই প্রস্তাব গ্রহণ করলে তাকে রেসিং ঘোড়া কিনে দেবেন মাস্ক।

স্পেসএক্স থেকে ২০১৩ সালে পদত্যাগ করা এক নারী জানিয়েছেন, তাকে নিজের সন্তান ধারণের প্রস্তাব দিয়েছিলেন মাস্ক। এছাড়া তার সঙ্গে কয়েক বার সেক্স চ্যাট করার চেষ্টাও করেছেন তিনি। তবে ওই নারী আগ্রহ না দেখানোয় ব্যাপারটি আর এগোয়নি, তিনিও এক সময় চাকরি ছাড়তে বাধ্য হন।

মাস্কের সেই সেক্সচ্যাটের রেকর্ড ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে দেখিয়েছেন ওই নারী।

এ অভিযোগের ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানতে স্পেসএক্স কর্তৃপক্ষ ও মাস্কের আইনজীবীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল। তারা এসব অভিযোগকে একবাক্যে ‘অসত্য আবর্জনা’ বলে উল্লেখ করেছেন।

news24bd.tv/DHL

পাঠকপ্রিয়