কিশোরগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত, আহত ১২

কিশোরগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত, আহত ১২

অনলাইন ডেস্ক

কিশোরগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। এসময় ইউপি সদস্যসহ ১২ জন আহত হয়েছেন। এ ছাড়া অর্ধশতাধিক বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। বুধবার কিশোরগঞ্জের ভৈরবে  সাদেকপুর ইউনিয়নের মৌটুপি গ্রামের কর্তা বাড়ি ও সরকার বাড়ির লোকজনের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ঘটনা ঘটে।

 

নিহত নাদিম কর্তা উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের মৌটুপি গ্রামের কর্তা বাড়ির কফিল উদ্দিনের ছেলে।

জানা যায়, আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রবিবার (১৬ জুন) মৌটুপি গ্রামের কর্তা বাড়ি ও সরকার বাড়ির লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে কর্তা বাড়ির নাদিম কর্তা নামে একজন সংঘর্ষে গুরুতর আহত হয়। পরে গুরুতর আহত নাদিম কর্তাকে প্রথমে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে তার অবস্থা গুরুতর দেখে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে।

পরে তিন দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার (১৯ জুন) দুপুরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নাদিমের মৃত্যু হয়।

তার মৃত্যুর খবরে বুধবার বিকালের দিকে আবারও দুই বংশের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ১২ জন আহত হয়। সংঘর্ষে গুরুতর আহত অবস্থায় লাদেনকে ভাগলপুর জহুরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

অন্য আহতরা স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। এ ছাড়া ঝগড়ার সময় অর্ধশতাধিক বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়। একদিকে সংঘর্ষ অন্যদিকে ঘরবাড়ির মালামাল সরানো নিয়ে ব্যস্ত স্বজন ও গ্রামবাসী।

এ বিষয়ে ভৈরব থানার (ওসি) মো. সফিকুল ইসলাম জানান, বুধবার বিকেলে সংঘর্ষের খবর শোনার পর ঘটনাস্থালে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

news24bd.tv/TR