থ্রি হুইলার-ট্রাক সংঘর্ষে বিজিবির নায়েক ও ব্যাংক কর্মকর্তা নিহত

থ্রি হুইলার-ট্রাক সংঘর্ষে বিজিবির নায়েক ও ব্যাংক কর্মকর্তা নিহত

নাটোর প্রতিনিধি

নাটোরের নলডাঙ্গায় সিএনজিচালিত থ্রি হুইলার ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে মো. খলিলুর রহমান (৬০) নামে একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা ও মুক্তাদির আলম (৪৫) নামে বিজিবির এক কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন থ্রি হুইলারের চালক ও অপর তিনযাত্রী।

আজ মঙ্গলবার (২৫ জুন) বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে উপজেলার নাটোর-নওগাঁ আঞ্চলিক মহাসড়কের বাসুদেবপুর সাজিপাড়া এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত খলিলুর রহমান নওগাঁর বাসিন্দা এবং নওগাঁ সোনালী ব্যাংকের (অবসরপ্রাপ্ত) শাখা ব্যবস্থাপক ছিলেন এবং মুক্তাদির আলম মাগুড়া জেলার শ্রীপুর উপজেলার দরিগিলা গ্রামের বাসিন্দা।

তিনি বর্ডারগার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) নওগাঁ ব্যাটেলিয়ান-১৬ এ নায়েক পদে কর্মরত ছিলেন। এছাড়া আহতদের মধ্যে রয়েছেন নিহত খলিলুর রহমানের স্ত্রী রিনা বেগম (৪৫)। তিনি নাটোর শহরের মল্লিকহাটি ঘোষপাড়া এলাকার মৃত আব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে। তবে চালকসহ অপর দুই যাত্রীর নাম পরিচয় জানা যায়নি।

নলডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মনোয়ারুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, নওগাঁর বাসিন্দা সোনালী ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খলিলুর রহমান তার স্ত্রী রিনা বেগম এবং বিজিবি কর্মকর্তা মুক্তাদির আলমসহ পাঁচজন যাত্রী বিকেলের দিকে সিএনজি চালিত থ্রি হুইলার গাড়িতে করে নওগাঁ থেকে নাটোরের উদ্দেশে আসছিলেন। পথে নাটোর-নওগাঁ আঞ্চলিক মহাসড়কের নলডাঙ্গা উপজেলার বাসুদেবপুর সাজিপাড়া এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে সিএনজি চালিত থ্রি হুইলারটি দুমড়ে-মুচড়ে যায় এবং চালকসহ পাঁচযাত্রী গুরুতর আহত হন।

খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক খলিলুর রহমানকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় আহত বিজিবি কর্মকর্তা মুক্তাদির আলমও মারা যান। নিহত খলিলুর রহমানের স্ত্রী রিনা বেগম বর্তমানে নাটোর হাসপাতালে ভর্তি আছেন। অপর দুইজন বাইরের ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়েছেন। তবে থ্রি হুইলার চালকের সন্ধান পাওয়া যায়নি।

ওসি বলেন, নওগাঁ বিজিবিতে কর্মরত মুক্তাদির আলম তার মায়ের মৃত্যুর কারণে ছুটি নিয়ে নিজ বাড়ি মাগুড়ায় যাওয়ার জন্য সিএনজিতে নাটোরে আসছিলেন এবং খলিলুর রহমান স্ত্রীকে নিয়ে নাটোর শহরের মল্লিকহাটি মহল্লায় তার শ্বশুরবাড়িতে আসছিলেন বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় ঘাতক ট্রাকটি আটক করা গেলেও চালক-হেলার পলাতক রয়েছে। তবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। নিহতদের মরদেহ নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা আছে। ময়নাতদন্ত শেষে তাদের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে জানিয়েছেন পুলিশের এ কর্মকর্তা।

news24bd.tv/SHS

এই রকম আরও টপিক