বরেন্দ্র অঞ্চলে খরা মোকাবিলায় দীর্ঘমেয়াদী ভূমিকা রাখবে পিকেএসএফ

সংগৃহীত ছবি

বরেন্দ্র অঞ্চলে খরা মোকাবিলায় দীর্ঘমেয়াদী ভূমিকা রাখবে পিকেএসএফ

নিজস্ব প্রতিবেদক

জলবায়ু পরিবর্তন একুশ শতকের একটি অন্যতম বৈশ্বিক ঝুঁকি। বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এর মধ্যে বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত বিশেষ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার মধ্যে বরেন্দ্র অঞ্চল, বিশেষ করে নওগাঁ জেলা অন্যতম বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, এমপি।

এ ঝুঁকি মোকাবিলায় পিকেএসএফ-এর ECCCP-Drought প্রকল্প ভূ-উপরিস্থ পানি সংরক্ষণ ও ভূগর্ভস্থ পানির রিচার্জ বৃদ্ধির মাধ্যমে গৃহস্থালি কাজে ও কৃষি জমিতে সেচের পানির যোগান বৃদ্ধিতে, সর্বোপরি বরেন্দ্র অঞ্চলের খরা মোকাবিলায় সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

শনিবার (৬ জুলাই) পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন Extended Community Climate Change Project- Drought (ECCCP-Drought) প্রকল্পের আওতায় নওগাঁতে আয়োজিত এক প্রারম্ভিক কর্মশালার প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। এসময় তিনি আরো বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে এ এলাকায় খরার প্রকোপ ক্রমাগত বাড়ছে। ফলে সুপেয় পানি পাওয়া যাচ্ছেনা, কৃষি জমির জন্য পানি হ্রাস পাচ্ছে। অর্থাৎ, কৃষকের জন্য সেচ ব্যবস্থাপনা অনেক ব্যয়বহুল হয়ে যাচ্ছে।

বরেন্দ্র অঞ্চলে এ ধরনের একটি উদ্ভাবনী প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণের জন্য খাদ্যমন্ত্রী পিকেএসএফ-কে ধন্যবাদ জানান।

নওগাঁ জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. নমিতা হালদার এনডিসি, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, পিকেএসএফ। এতে সভাপতিত্ব করেন মোঃ গোলাম মওলা, জেলা প্রশাসক, নওগাঁ।

ড. নমিতা হালদার বলেন, বরেন্দ্র অঞ্চলের রাজশাহী, নওগাঁ এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ECCCP-Drought প্রকল্পটি সফলভাবে বাস্তবায়িত হলে জাতিসংঘের গ্রিন ক্লাইমেট ফান্ড (জিসিএফ)-এ বাংলাদেশের অভিগম্যতা বৃদ্ধি পাবে। যার ফলে পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলায় পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জীবনে গতি সঞ্চার হবে।

কর্মশালায় পিকেএসএফ-এর কার্যক্রম এবং প্রকল্পটির লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও সার্বিক কর্মকাণ্ড বিষয়ক উপস্থাপনা প্রদান করেন পিকেএসএফ-এর উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. ফজলে রাব্বি ছাদেক আহমাদ এবং স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন মহাব্যবস্থাপক ড. একেএম নুরুজ্জামান।

কর্মশালায় সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের প্রতিনিধি, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠান ও পিকেএসএফ-এর সহযোগী সংস্থার প্রতিনিধি, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালাটিতে প্রকল্পের ১৮টি বাস্তবায়নকারী সংস্থার নির্বাহী পরিচালক এবং অন্যান্য কর্মকর্তা অংশগ্রহণ করেন।

প্রকল্পটির আওতায় ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলনের পরিবর্তে কৃত্রিমভাবে পুনঃভরণ, বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের জন্য পুকুর ও খাল পুনঃখনন খরাসহিষ্ণূ ফসলের চাষ সম্প্রসারণ কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

news24bd.tv/DHL

পাঠকপ্রিয়