পরকালে ওজনে সবচেয়ে ভারী হবে যে আমল

সংগৃহীত ছবি

পরকালে ওজনে সবচেয়ে ভারী হবে যে আমল

অনলাইন ডেস্ক

কিয়ামতের দিন মানুষের কাজ পরিমাপের জন্য ‘মিজান’ তথা দাঁড়িপাল্লা স্থাপন করা হবে। কারো ভালো কাজ ভারী হবে এবং কারো মন্দ কাজ ভারী হবে। তবে মুমিনের এমন কিছু আমল আছে, যা বাহ্যত অল্প মনে হলেও এর ওজন অনেক বেশি হবে। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আমি কিয়ামতের দিন ন্যায়বিচারের মানদণ্ড স্থাপন করব, সুতরাং কারো প্রতি কোনো অবিচার করা হবে না, কোনো কাজ যদি তিল পরিমাণ ওজনের হয় তবু আমি তা উপস্থিত করব, হিসাব গ্রহণকারী হিসেবে আমিই যথেষ্ট।

’ (সুরা : আম্বিয়া, আয়াত : ৪৭)

পবিত্র কোরআনে আমলের ওজন প্রসঙ্গে সুরা আম্বিয়ার ৪৭ নম্বর আয়াতের পাশাপাশি সুরা আরাফের ৮-৯ নম্বর আয়াত, সুরা মুমিনুনের ১০২-১০৩ নম্বর আয়াত ও সুরা কারিয়ার ৬-৯ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে।

কাফিরদের আমল নিষ্ফল : মূলত কাফিরদের কোনো আমল কিয়ামতের দিন ধর্তব্য হবে না। তাই কুফুরির সঙ্গে তাদের আমল ওজনের সময় কোনো কাজ দেবে না। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘কিয়ামতের দিন কিছু মোটা লোক আসবে।

আল্লাহর কাছে মশার পাখার পরিমাণও তাদের ওজন হবে না। অতএব তোমরা পড়ো, ‘অতএব আমি তাদের জন্য কোনো ওজন স্থাপন করব না। ’ (সুরা : কাহাফ, আয়াত : ১০৫; বুখারি, হাদিস : ৪৭২৯)

আমল অল্প হলেও ওজন বেশি : কিয়ামতের দিন আমলের ওজন বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ হবে। তাই বিভিন্ন হাদিসে কিছু আমলের কথা বলা হয়েছে, যা সামান্য হলেও এর ওজন হবে অনেক বেশি।

আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘দুটি বাক্য রহমানের কাছে খুবই প্রিয়। তা (উচ্চারণ করা) জিহ্বার জন্য খুবই সহজ। দাঁড়িপাল্লায় তা অনেক ভারী হবে। দুটি বাক্য হলো, ‘সুবহানাল্লাহি ওয়া বিহামদিহি সুবহানাল্লাহিল আজিম’। অর্থ : আল্লাহর প্রশংসাসহ পবিত্রতা ঘোষণা করছি। মহান আল্লাহ অতীব পবিত্র। (বুখারি, হাদিস : ৬৪০৬)

দুটি বাক্যের ওজন : সুবহানাল্লাহ ও আলহামদুলিল্লাহ এই বাক্যের ওজন আকাশ ও ভূপৃষ্ঠের চেয়েও বেশি। আবু মালিক আল-আশয়ারি (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘পবিত্রতা ঈমানের (প্রতিদানের) অর্ধেক। ‘আলহামদুলিল্লাহ’ আমলের পাল্লাকে পূর্ণ করবে। সুবহানাল্লাহ ও আলহামদুলিল্লাহ আকাশ ও জমিনের মধ্যবর্তী সব কিছুকে পূর্ণ করবে। নামাজের আলোকবর্তিকা। দান-সদকা প্রমাণ। ধৈর্য আলো। কোরআন তোমার পক্ষে বা বিপক্ষে প্রমাণ হবে। সব মানুষ সকাল করে নিজেকে রক্ষা করে কিংবা ধ্বংস করে। ’ (মুসলিম, হাদিস : ২২৩)

আল্লাহর পথে খরচ : আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি সাওয়াবের আশায় আল্লাহর প্রতি ঈমান এনে ও তাঁর প্রতিশ্রুতিকে সত্যায়ন করে তাঁর পথে কোনো ঘোড়া ওয়াকফ করল, তাহলে ঘোড়ার খাবার, পানি, মলমূত্র সবই কিয়ামতের দিন সেই ব্যক্তির আমলনামায় সওয়াবের মধ্যে গণ্য করা হবে। ’ (বুখারি, হাদিস : ২৮৫৩)

যে কলেমার ওজন সবচেয়ে বেশি হবে : আমলের মধ্যে কলেমা শাহাদাতের ওজন সবচেয়ে বেশি হবে। আবদুল্লাহ বিন ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘কিয়ামতের দিন আল্লাহ আমার উম্মতের মধ্য থেকে এক ব্যক্তিকে পুরো সৃষ্টির সামনে ডেকে নেবেন। তার আমলের ৯৯টি নথিপত্র বের করবেন, যার সবই দৃষ্টিসীমা পর্যন্ত বিস্মৃত হবে। অতঃপর আল্লাহ তাকে বলবেন, ‘তুমি কি এসব (আমল) অস্বীকার করো? আমার সংরক্ষক লেখক ফেরেশতারা কি তোমার ওপর অবিচার করেছ?’ সে বলবে, না হে রব। আল্লাহ বলবেন, ‘তোমার কি কোনো ভালো আমল আছে?’ লোকটি অবাক হয়ে বলবে, না, হে রব। আল্লাহ বলবেন, ‘অবশ্যই তোমার ভালো কাজ আছে। আজ তোমার ওপর কোনো অবিচার করা হবে না। ’ অতঃপর একটি কার্ড বের করা হবে, যাতে লেখা রয়েছে, ‘আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ ওয়া আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসুলুহু। ’ অর্থ : আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, আল্লাহ ছাড়া কোনো উপাস্য নেই এবং মুহাম্মদ তাঁর বান্দা ও রাসুল। আল্লাহ বলবেন, তা নিয়ে তোমার দাঁড়িপাল্লার কাছে আসো। ওই লোক বলবে, হে রব, ওই সব নথিপত্রের সঙ্গে এই কার্ড কী কাজে আসবে? আল্লাহ বলবেন, ‘তোমার ওপর জুলুম করা হবে না। ’ অতঃপর এক পাল্লায় নথিপত্রগুলো রাখা হবে এবং অন্য পাল্লায় সেই কার্ডটি রাখা হবে। সব নথিপত্র ওপরে উঠে যাবে এবং সেই কার্ড ভারী হবে। কারণ আল্লাহর নামের বিপরীতে কোনো কিছু ভারী হতে পারে না। ’ (তিরমিজি, হাদিস : ২৬৩৯)

লেখক: মুহাম্মাদ হেদায়াতুল্লাহ

news24bd.tv/DHL

পাঠকপ্রিয়