মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০৮ মিনিট আগে

'ঝুঁকি সৃষ্টি করে এমন কোনো ভবন ছাড় পাবে না'

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

'ঝুঁকি সৃষ্টি করে এমন কোনো ভবন ছাড় পাবে না'

হায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, নতুন ঢাকায় যারা নিয়ম না মেনে বিল্ডিং নির্মাণ করেছেন, তাদের অনিয়মের বিল্ডিংগুলো ভেঙে ফেলা হবে।

এমন ভবন কোনো ব্যক্তির আয়ের উৎস হলেও তা কোনোভাবেই মানুষের জীবনের চেয়ে বড় হতে পারে না। ঝুঁকি সৃষ্টি করে এমন কোনো ভবন ছাড় পাবে না

আজ শুক্রবার (২১ জুন) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির 'মিট দ্য রিপোর্টার্স' অনুষ্ঠানে  তিনি এসব কথা বলেন । 

এ বিষয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, যেসব ভবনে কিছু অনিয়ম হয়েছে এবং আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে আলাদা পিলার বা আলাদা ভিত্তি দিয়ে টিকেয়ে রাখা সম্ভব, সেগুলোকে ছাড় দেওয়া হলেও ঝুঁকি সৃষ্টি করে এমন ভবন ছাড় পাবে না।   

তিনি বলেন, যেটাকে কোনোভাবে রাখা যাবে না যদি তারা (ভবন মালিক) ভাঙতে না চান সেসব বিল্ডিং আমরা সম্পূর্ণরূপে বেআইনি ও ব্যবহার অনুপযোগী বলে সিলগালা করে দেব।

ওই বিল্ডিং ব্যবহারও করতে দেব না। কারণ মানুষের জীবনের মূল্যের চেয়ে কোনো ব্যক্তির বিল্ডিংয়ের আয়ের উৎসের জায়গাটা আমাদের কাছে কোনোভাবে বড় না।

বনানীর এফ আর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ড নিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করার কথা তুলে ধরে রেজাউল করিম বলেন, সেখানে ৬২ জন কর্মকর্তাকেও চিহ্নিত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমি শুধু বাড়িওয়ালাকে ধরব, আমার লোককে ধরব না, তাহলে তো জিরো টলারেন্স হল না। জিরো টলারেন্সের প্রশ্নে এই ৬২ জনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গত সপ্তাহে রাজউককে নির্দেশ দিয়েছি।

মন্ত্রী আরও বলেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য রাজউককে নির্দেশ দিয়েছি, বলেছি একটা বাড়িও ড্রপ হবে না। যদি কোনো মন্ত্রী-এমপির বাড়িও হয়, আমার নিজের কোনো আত্মীয়-স্বজনও হয়, ড্রপ হবে না, আইনকে তার নিজস্ব গতিতে চলতে দিতে হবে।

পুরান ঢাকায় পাঁচশ বছরের বেশি পুরনো ভবন থাকার তথ্য দিয়ে পূর্তমন্ত্রী বলেন, আমি চাইলেই সেগুলোকে ভেঙে ফেলতে পারব না। বিকল্প ব্যবস্থা করে ওটাকে পরিবেশসম্মত ও ঝুঁকিহীন অবস্থায় নিতে আমরা নতুন করে ডেভেলপমেন্ট করার জন্য দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রকে প্রস্তাব করেছি।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক কবির আহমেদ খানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত ব্যক্তব্য দেন সংগঠনটির সভাপতি ইলিয়াস হোসেন। 


(নিউজ টোয়েন্টিফোর/কামরুল)

মন্তব্য