১৭ জুন ,সোমবার, ২০১৯

শিরোনাম

> প্রবাস

 

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে

৯ ডিসেম্বর ,শনিবার, ২০১৭ ১০:০৩:০২

নিউইয়র্কে বাংলাদেশ সোসাইটির চেয়ারম্যান সস্ত্রীক গ্রেপ্তার, পরে মুক্তি


নিউইয়র্কে বাংলাদেশ সোসাইটির চেয়ারম্যান সস্ত্রীক গ্রেপ্তার, পরে মুক্তি

আন্না খালেদ ও মোহাম্মদ আজিজ


প্রথম স্ত্রীর নাম এবং সোশ্যাল সিকিউরিটি নম্বরসহ যাবতীয় তথ্য চুরি করে দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তান প্রসবের প্রক্রিয়া অবলম্বনের অভিযোগে মোহাম্মদ আজিজ (৬১) এবং তার দ্বিতীয় স্ত্রী আন্না খালেদকে (৪২) গ্রেপ্তার করেছিল নিউইয়র্ক সিটি সংলগ্ন নাসাউ কাউন্টির পুলিশ। নাসাউ কাউন্টি ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী ম্যাডেলাইন সিঙ্গাস এবং নাসাউ কাউন্টি পুলিশ ডিপার্টমেন্ট যৌথভাবে গত বৃহস্পতিবার এই প্রতিবেদককে চাঞ্চল্যকর এ মামলার তথ্য জানিয়েছেন।

নিউইয়র্কে বাংলাদেশ সোসাইটির বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আজিজকে গ্রেপ্তার করা হয় ২৯ নভেম্বর এবং পরদিন ৩ হাজার ডলার বন্ডে জামিনে মুক্তি পান। অপরদিকে, আন্না খালেদকে গ্রেপ্তারের পরদিন ২৮ অক্টোবর জামিন দেয়া হয়।  

নারায়ণগঞ্জের সন্তান মোহাম্মদ আজিজের বিরুদ্ধে প্রথম ডিগ্রির আইডেন্টিটি চুরি, চতুর্থ ডিগ্রির হেলথকেয়ার প্রতারণার অভিযোগ আনা হয়েছে। অপরদিকে আন্না খালেদের বিরুদ্ধে দায়ের করা হয়েছে সেকেন্ড ডিগ্রির প্রতারণা এবং ফার্স্ট ডিগ্রির আইডেন্টিটি চুরির অভিযোগ। মোহাম্মদ আজিজকে কোর্টে যেতে হবে ১৭ জানুয়ারি এবং তারা বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার সর্বোচ্চ ৭ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে বলেও ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী উল্লেখ করেছেন। অপরদিকে আন্না খালেদকে কোর্টে যেতে হবে ১৬ ফেব্রুয়ারি। তিনি দোষী সাব্যস্ত হলে সর্বোচ্চ ৭ বছরের জেল হতে পারে।  

মামলার বিবরণে প্রকাশ, তালাকের প্রক্রিয়ায় থাকা প্রথম স্ত্রী ফারহানা সম্প্রতি চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে গেলে উদঘাটিত হয় এই জালিয়াতির তথ্য। চিকিৎসকরা তার কাছে জানতে চান যে, সন্তানটি কেমন আছে, তার শরীর কেমন ইত্যাদি।

এমন প্রশ্নে চমকে উঠেন ফারহানা। চিকিৎসককে তিনি অবহিত করেন যে, কয়েক বছরের মধ্যে তিনি সন্তান সম্ভাবা ছিলেন না, সন্তান প্রসব করা দূরের কথা। ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী উল্লেখ করেছেন, একজনের তথ্য চুরি করে অপরজনের চিকিৎসা চালানো যে কত বড় ঝুঁকির তা বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ, প্রকৃত রোগীর শরীরের মত আন্না খালেদের শরীর নাও হতে পারে। অর্থাৎ ওষুধে বিষক্রিয়া দেখা দেয়া অস্বাভাবিক নয়। এ ব্যাপারে নাসাউ কাউন্টি পুলিশ সামগ্রিক তদন্ত অব্যাহত রেখেছে।

পুলিশ কমিশনার প্যাট্রিক রাইডার বলেন, ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী অফিসের সমন্বয়ে এই মামলার তদন্ত ব্যাপকভাবে চালানো হচ্ছে। সন্তানের স্বাস্থ্য এবং প্রসূতির স্বাস্থ্যও পরীক্ষা করা হচ্ছে।  
ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী বলেন, ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে মিনিওলায় অবস্থিত উইনথ্রোপ হাসপাতালের (Winthrop Hospital in Mineola) জরুরি বিভাগে গিয়েছিলেন ভিকটিম ফারহানা। সে সময় তাকে পরীক্ষার সময় চিকিৎসক জানতে চান যে, আগে নেওয়া ওষুধ কোন উপকারে আসছে কিনা। এর জবাবে তিনি চিকিৎসককে জানান যে, যেসব ওষুধের কথা বলা হচ্ছে, সেগুলো তিনি কখনো নেননি। চিকিৎসক তাকে জানান যে, তার (ভিকটিম) মেডিকেল রেকর্ডে রয়েছে ওইসব ওষুধের তালিকা। নিউইয়র্কে লং আইল্যান্ড এলাকার গ্লেনকোভে অবস্থিত গ্লেনহেড ফার্মেসি (Glen Head Pharmacy in Glen Cove, New York) থেকে ওইসব ওষুধ তিনি রিসিভ করেছেন বলেও চিকিৎসক উল্লেখ করেন। চিকিৎসক তার মেডিকেল রেকর্ড পরীক্ষা করে আরও জানান যে, কয়েক মাসের মধ্যেই তিনি নর্থশোর লং আইল্যান্ড জুইশ-গ্লেনকোভ হাসপাতালে সন্তান প্রসব করেছেন।

এসব জানার পরই ফারহানা ওই ফার্মেসিতে যান এবং সেখানকার সিকিউরিটি ভিডিও ফুটেজ পরীক্ষা করে দেখেন যে, একজন নারী তার নামে ইস্যুকৃত ওষুধ রিসিভ করছেন। হাসপাতালে গিয়েও ডক্যুমেন্ট উদ্ধার করেন যে, তার নামসহ বিস্তারিত তথ্য ব্যবহার করে অন্য এক মহিলা সন্তান প্রসবসহ সমস্ত চিকিৎসা-ব্যয় নির্বাহ করেছেন তারই হেলথ ইন্স্যুরেন্স কার্ডে। এ সময় আরো জানতে সক্ষম হন যে, ওই নারীর কিছু ডক্যুমেন্টে মোহাম্মদ আজিজের নামও রয়েছে। অর্থাৎ দ্বিতীয় স্ত্রী আন্নার সন্তান প্রসবের যাবতীয় ব্যয় চালিয়ে নিয়েছেন প্রথম স্ত্রীর ইন্স্যুরেন্সে।

আদালতে এই মামলা পরিচালনা করছেন ডিস্ট্রিক্ট এটর্নীর ইকনোমিক ক্রাউম ব্যুরোর দায়িত্বে থাকা সহকারি ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী বেটি রডরিগুয়েজ।   

অভিযোগ প্রসঙ্গে মোহাম্মদ আজিজ এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘ঘটনাটিতে আমাকে জড়িয়ে প্রথম স্ত্রী ফারহানা ধ্রুমজাল সৃষ্টির চেষ্টা করছেন। প্রকৃত অর্থে আমার অজ্ঞাতে বর্তমান স্ত্রী আন্না খালেদ এ্যাজমার ওষুধ নিয়েছেন ফারহানার হেলথ ইন্স্যুরেন্স কার্ডে। কারণ, ওই সব ইন্স্যুরেন্সের পেমেন্ট নিয়মিতভাবে আমাকেই করতে হয় বিধায় তার (ফারহানার) হেলথ কার্ডের চিঠি আমার বাসায় আসছে। বর্তমান স্ত্রী তা সঠিকভাবে অনুধাবনে সক্ষম না হওয়ায় এ্যাশমার ওষুধ নেন। তবে আন্নার সন্তান প্রসবের বিল ফারহানার ইন্স্যুরেন্সের বিপরীতে সমন্বয় সাধনের যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা সত্য নয়। আমি সমস্ত খরচ বহন করেছি। ’ 

বাংলাদেশ সোসাইটির দুইবারের সভাপতি দায়িত্ব পালনের পর বর্তমানে বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান এবং কন্সট্রাকশন ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আজিজ ক্ষোভের সাথে আরো বলেন, ‘রাজধানী ঢাকায় আমার অনেক সম্পত্তির দলিল আমার স্বাক্ষর জাল করে লিখে নিয়েছেন প্রথম স্ত্রী। সে সব নিয়ে আইনি লড়াই চলছে। নিষ্পত্তি হবার পরই ডিভোর্সের বিষয়টি সম্পন্ন হবে। এমনি অবস্থায় ফারহানা আমাকে নানাভাবে হেনস্থার পন্থা অবলম্বন করেছেন-যা খুবই দুঃখজনক। ’

আজিজ উল্লেখ করেন, ‘ফারহানার দুই সন্তানসহ বর্তমান স্ত্রীর সন্তান এবং পরিবারের সকলের হেলথ ইন্স্যুারেন্সের মাসিক প্রিমিয়াম হিসেবে ২২০০ ডলার করে প্রদান করছে আমার কোম্পানি। তাই, অন্যের ইন্স্যুরেন্স ব্যবহারের প্রশ্নই ওঠে না। ’ 

‘অভিযোগ নিয়ে কারো বিভ্রান্তির অবকাশ নেই এবং আইনগতভাবেই আমি তা মোকাবেলা করব’-বলেন এম আজিজ। 


রুবেল হত্যায় বাবা-ছেলের যাবজ্জীবন
হানিফ পরিবহনের বাসের চাপায় ছাত্র-শিক্ষক নিহত
ঘুমের ওষুধ খাইয়ে সন্তানকে হত্যা করল মা
প্রতিশোধ নিতে প্রেমিকের মুখে অ্যাসিড নিক্ষেপ
ঘুম থেকে তুলে সন্তানকে গলাকেটে হত্যা করল মা
শিশুর চিৎকারে ধরা ‘ধর্ষক’ যুবক
দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে যুবলীগ নেতাকে হত্যা
‘৭০-৭৫ করলে রোহিতকে ঠেকানো কঠিন’
ইয়াবা কারবারিতে জামাই-শ্বশুর গ্রেপ্তার
ওসি মোয়াজ্জেম এখন সোনাগাজী থানায়
হাজতির পায়ুপথে ইয়াবা!
রায়পুরে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২
বাংলাদেশ কী পেয়েছে, প্রশ্ন ফখরুলের
‘ইরানের সঙ্গে যুদ্ধের ব্যাপারে সাবধান’
ঈদে বেড়াতে গিয়ে ৯ বছরের শিশু ধর্ষণ
নৌকার তলা ফেটে ডুবে নারীর মৃত্যু, নিখোঁজ ১
মাদারীপুরে আ.লীগ-বিএনপি সংঘর্ষ, আহত ১৫
নির্বাচনী মাঠে ‘সশস্ত্র’ সর্বহারাদের আনাগোনা
‘পার্বত্যাঞ্চলে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলা হবে’
ভারতের জুটি ভাঙলেন ওয়াহাব
রুবেল হত্যায় বাবা-ছেলের যাবজ্জীবন
হানিফ পরিবহনের বাসের চাপায় ছাত্র-শিক্ষক নিহত
ঘুমের ওষুধ খাইয়ে সন্তানকে হত্যা করল মা
প্রতিশোধ নিতে প্রেমিকের মুখে অ্যাসিড নিক্ষেপ
ঘুম থেকে তুলে সন্তানকে গলাকেটে হত্যা করল মা
শিশুর চিৎকারে ধরা ‘ধর্ষক’ যুবক
দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে যুবলীগ নেতাকে হত্যা
‘৭০-৭৫ করলে রোহিতকে ঠেকানো কঠিন’
ইয়াবা কারবারিতে জামাই-শ্বশুর গ্রেপ্তার
ওসি মোয়াজ্জেম এখন সোনাগাজী থানায়
হাজতির পায়ুপথে ইয়াবা!
রায়পুরে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২
বাংলাদেশ কী পেয়েছে, প্রশ্ন ফখরুলের
‘ইরানের সঙ্গে যুদ্ধের ব্যাপারে সাবধান’
ঈদে বেড়াতে গিয়ে ৯ বছরের শিশু ধর্ষণ
নৌকার তলা ফেটে ডুবে নারীর মৃত্যু, নিখোঁজ ১
মাদারীপুরে আ.লীগ-বিএনপি সংঘর্ষ, আহত ১৫
নির্বাচনী মাঠে ‘সশস্ত্র’ সর্বহারাদের আনাগোনা
‘পার্বত্যাঞ্চলে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলা হবে’
ভারতের জুটি ভাঙলেন ওয়াহাব
'বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ'
যেসব পণ্যের দাম বাড়বে-কমবে!
বিশ্বকাপের বাছাই পর্ব নিশ্চিত করল বাংলাদেশ
আরো ২২ পণ্য নিষিদ্ধ
কুকুরের সঙ্গে মিলিত হতে চায় স্বামী, বিপাকে স্ত্রী!
'বড় জায়গায় হাত দিলে হাত পুড়ে যায়'
গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানে কাঁদলেন নুসরাত
ধর্ষণে বাধা দেয়ায় প্রেমিকাকে হত্যার পর মরদেহ ধর্ষণ
বাজেটে কমবে স্বর্ণের দাম!
 ২০ লাখ টাকা অনুদান পেলেন দুই অভিনেতা
কোপা আমেরিকায় আর্জেন্টিনার খেলার সূচি
গ্রেপ্তার হলেন ওসি মোয়াজ্জেম
সাক্ষীকে হাত-পা কেটে হত্যা করল আসামি পক্ষ
বৃষ্টিতে পণ্ড হতে পারে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচে
যাত্রীকে পিষে মারা সেই বাসচালক গ্রেপ্তার
রিয়াদে ২৮ বাংলাদেশির মানবেতর জীবন-যাপন
সিগারেট ধরাতে দিয়াশলাই না দেওয়ায়...
‘ইসরাইল আমেরিকার বন্ধু নয়’
মামীকে হত্যার দায়ে ভাগ্নের মৃত্যুদণ্ড 
সাক্ষাৎ করুন নইলে ব্যবস্থা, জিনপিংকে ট্রাম্প

সব খবর