বুধবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৯ | আপডেট ২৭ মিনিট আগে

রাশিয়া-চীন-ইরানের সঙ্গে ‌‘পারছে না’ যুক্তরাষ্ট্র

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

রাশিয়া-চীন-ইরানের সঙ্গে ‌‘পারছে না’ যুক্তরাষ্ট্র

বিশ্বের শক্তির ভারসাম্য ইরান, রাশিয়া ও চীনের অনুকূলে চলে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ।

বলেছেন, নিষেধাজ্ঞা আরোপ ও অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ চালিয়ে এ তিন দেশকে প্রতিহত করা আমেরিকার পক্ষে সম্ভব নয়।

বাস্তবতা মেনে নিয়ে নিজেকে একঘরে করে ফেলা থেকে বিরত থাকতে ওয়াশিংটনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জারিফ।

মার্কিন সরকার শুক্রবার রাশিয়ার সঙ্গে ১৯৮৭ সালে স্বাক্ষরিত আইএনএফ চুক্তি থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বেরিয়ে যায়। এরপর একইদিন ব্রিটেনে বসবাসরত একজন সাবেক রুশ গুপ্তচরকে হত্যা প্রচেষ্টার অভিযোগে রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ওয়াশিংটন। সেইসঙ্গে শুক্রবারই চীন থেকে ৩০ হাজার কোটি ডলারের আমদানিকৃত পণ্যের ওপর শতকরা ১০ ভাগ শুল্ক আরোপের ঘোষণা দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। চীনের সঙ্গে অর্থনৈতিক টানাপড়েনের অংশ হিসেবে ট্রাম্প এ সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন যা আগামী মাস থেকে কার্যকর হবে।

এর আগে গত বছর মার্কিন সরকার পাশ্চাত্যের সঙ্গে ইরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার একটি টুইটে লিখেছেন, আমেরিকার উচিত নিজেকে কোণঠাসা করে ফেলার পরিবর্তে নয়া বাস্তবতার সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নেওয়া।

আন্তর্জাতিক শক্তি ও বাণিজ্যের ভারসাম্য অন্যদের অনুকূলে চলে যাচ্ছে উল্লেখ করে জারিফ বলেন, চীন ও ইরানের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক যুদ্ধ চালিয়ে কিংবা রাশিয়ার সঙ্গে করা আইএনএফ চুক্তি থেকে বেরিয়ে গিয়ে এই বাস্তবতাকে পাল্টে দেওয়া যাবে না।

এর পরের টুইট বার্তায় মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে আমেরিকার দৃষ্টিতে ‘বৃহৎ শক্তিগুলো’র লাগাম টেনে ধরার প্রচেষ্টার সমালোচনা করেন। তিনি এক্ষেত্রে গত ১৯ এপ্রিল ডেইলি টেলিগ্রাফে প্রকাশিত একটি খবরের স্ক্রিন শট তুলে ধরেন।

ওই খবরে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর একটি বক্তব্য ছিল যেখানে তিনি রাশিয়া, চীন ও ইরানকে ‘বৃহৎ শক্তি’ হিসেবে উল্লেখ করেন। সেই সঙ্গে এসব দেশের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়ানোর জন্য ন্যাটো জোটের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য