বুধবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০২ ঘণ্টা ০২ মিনিট আগে

‘অবলীলায় মিথ্যা বলেছেন আইনমন্ত্রী’

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

‘অবলীলায় মিথ্যা বলেছেন আইনমন্ত্রী’

জেনেভায় মানবাধিকারবিষয়ক নির্যাতন বিরোধী কনভেনশনে বাংলাদেশের আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ‌‌‘অবলীলায় মিথ্যা কথা বলেছেন’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, আজকে পত্রিকায় দেখছি সাংবাদিক মুশফিকুর রহমান গুম হয়েছেন। আর আইনমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশে কোনো গুম-খুনের ঘটনা তার জানা নেই।

সোমবার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তদের সাহায্যার্থে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি উদ্বোধনের সময় এ মন্তব্য করেন তিনি। জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল এ কর্মসূচি আয়োজন করেন।

ফখরুল বলেন, ‘কয়েকদিন আগে জেনেভায় মানবাধিকারের ওপরে নির্যাতনবিরোধী গুরুত্বপূর্ণ একটি কনভেনশন হয়েছে। বর্তমান সরকার ১০ থেকে ১২ বছর ধরে ক্ষমতায়, কিন্তু সেখানে কোনো জবাবদিহিতা করেনি। কনভেনশনে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক কমিটি বাংলাদেশকে ডেকে এ দেশে যে নির্যাতন হয়, সে সম্পর্কে সরকারের বক্তব্য কী জানতে চেয়েছিল। সেখানে আমাদের আইনমন্ত্রী অবলীলায় মিথ্যা কথা বলেছেন। আইনমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশে কোনো গুম-খুনের ঘটনা তার জানা নেই।'

‘পত্রিকায় দেখছি একজন সিনিয়র সাংবাদিক মুশফিকুর রহমান গুম হয়ে গেছেন। তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। আমাদের এমপি ছিলেন ইলিয়াস আলী। চৌধুরী আলম কমিশনার ছিলেন। তাদের এখন পর্যন্ত খুঁজে পাইনি। আমাদের ছাত্রদল, ‍যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, বিএনপির প্রায় ৫০০ নেতাকর্মী গুম হয়ে গেছেন। তাদের খুঁজে পাওয়া যায়নি।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, মিডিয়া অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে ডেঙ্গু সমস্যাকে সারা জাতিসহ বিশ্বের সামনে তুলে ধরেছে। না হলে সরকার যা শুরু করেছিল, তারাতো গুজব বলেই উড়িয়ে দিত। মিডিয়া এটাকে সামনে নিয়ে এসে এখন পর্যন্ত যে ভূমিকা পালন করছে, সেটা দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য প্রসংশিত।

‘আজকের পত্রিকায়ও আছে, গতকাল রোববার ১৭৬০ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন শুধু ঢাকায়। আর এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ১৭ হাজারের ওপরে। অথচ মন্ত্রী যিনি দায়িত্বে আছেন, এমনকি মেয়র সাহেবরা কী বলেছেন, সেটা রিপিট করতে চাই না।’

ফখরুল বলেন, আসলে এদের কোনো লজ্জা নেই। এরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়। তাই তাদের জবাবদিহিতা নেই। তাদের একমাত্র উদ্দেশ্য হচ্ছে যেকোনো প্রকারে ক্ষমতায় টিকে থাকা এবং জনগণের অর্থকে লুণ্ঠন করা।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য