রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ৩৭ মিনিট আগে

মক্কা হজ অফিসে হারানো হাজীদের ভিড়

আল-আমিন, সৌদি আরব প্রতিনিধি

মক্কা হজ অফিসে হারানো হাজীদের ভিড়

মিনায় বড় জামারায় পাথর নিক্ষেপের পর পশু কোরবানী এবং ফরজ তাওয়াফ সম্পন্ন করতে গিয়ে অনেক হাজী দিক ভুলে এদিক সেদিক চলে গেছেন। হারিয়ে ফেলেছেন নিজের ঠিকানা এবং সাথীদের। আর বিভিন্ন মাধ্যমের সহায়তা নিয়ে তারা আশ্রয় নিচ্ছেন মক্কা বাংলাদেশ হজ অফিসে।

রোববার দুপুর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত হজ অফিসে অবস্থান করে দেখা যায় একের পর এক হারানো হাজী আসছেন এখানে। বাসস্থানের ঠিকানা এবং সাথীদের না পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছেন তারা। এসময় প্রশাসনিক দলের দলনেতা ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্ন সচিব এবিএম আমিন উল্লাহ নুরী এবং হজ এজেন্সিজ এসোসিয়েশনের (হাব) সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম হারানো হাজীদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন এবং খাবার সরবরাহ করছেন।

হারিয়ে যাওয়া হাজীদের অধিকাংশই বৃদ্ধ। তাদের হজ মিশনের এম ফ্লোরে থাকা এবং খাবারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

কিন্তু হারানো হাজীদের গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়া যাদের দায়িত্ব সেই তথ্য সহায়তা কেন্দ্র এবং এজেন্সির গাইডদের তেমন কোনো তৎপরতা লক্ষ্য করা যায়নি। অনেক গাইডকে ফোন করলে মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

তথ্য ও সহায়তা কেন্দ্র হতে হাজী সাহেবদের সার্বক্ষণিক প্রয়োজনীয় সেবা ও সহায়তা প্রদানের পাশাপাশি পথ হারানো হাজীদের তাবু খুঁজে পেতে সহায়তা করা, মানচিত্র বুঝিয়ে দেওয়া এবং প্রয়োজনে নিজ নিজ তাবুতে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলা হলেও হারানো হাজীদের তালিকা করা ছাড়া তেমন কোনো কাজ চোখে পড়েনি। তাদের পক্ষ থেকে সরবরাহ করা আইডি কার্ডের ফিতা নিন্ম মানের হওয়ায় অনেক হাজীর কাছ থেকে সেটি খুলে পড়ে যাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে অনেক।

মঙ্গলবার ছোট জামারায় পাথর নিক্ষেপের মাধ্যমে শেষ হবে এ বছরের হজের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম। এ বছর পবিত্র হজ পালন করতে এসে মক্কা, মদীনা, জেদ্দা, মিনা এবং আরাফাতে মারা গেছেন ৫১জন বাংলাদেশি হজযাত্রী। আগামী ১৭ আগস্ট থেকে শুরু হবে হজের ফিরতি ফ্লাইট। এ বছর ১  লাখ ২৭ হাজার ১৫২জন বাংলাদেশি হজ পালনের জন্য সৌদি আরব এসেছেন।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/আল-আমিন/তৌহিদ)

মন্তব্য