মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর, ২০১৯ | আপডেট ১৭ মিনিট আগে

খসরু দাদুর ভাসমান স্কুল

খসরু দাদুর ভাসমান স্কুল ।।  পিরোজপুরে ভাঙন কবলিত এলাকার শিশুরা পাচ্ছে শিক্ষার আলো।

পিরোজপুরের কাউখালীর সোনকুড় গ্রামে নদী তীরে বসবাস করে কয়েকশ পরিবার। এদের বেশিরভাগই পেশায় জেলে, কুমার কিংবা মাঝি। এসব পরিবারের শিশুদের জন্য আশপাশে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নেই। ভাঙন কবলিত এই মানুষগুলোকে শিক্ষা দেয়ার জন্য এগিয়ে এসেছেন এক ব্যক্তি। শিশুদের কাছে খসরু দাদু নামে পরিচিত ওই ব্যক্তি নৌকায় কিংবা ট্রলারে চালান তার শিক্ষা কার্মকাণ্ড। 

প্রায় ৩০ বছর ধরে ভাঙছে সন্ধ্যা নদীর দুই পাড়। এই ভাঙন বদলে দিয়েছে কাউখালী উপজেলার মানচিত্র। বাস্তুহারা হাজারো মানুষের আশ্রয় রাস্তার পাশে কিংবা অন্যের জমিতে। এসব পরিবারের শিশুদের পাঠদানের উদ্যোগ নিয়েছেন আব্দুল লতিফ খসরু নামের এক সমাজসেবক।

পড়াশোনায় শিশুদের মনযোগী করতে গান, কবিতা আর গল্পের আসর বসান লতিফ খসরু। সাথে থাকে চকলেট আর বিস্কিটের মতো নাশতা। এই উদ্যোগে বেশ খুশি অভিভাবক ও শিশুরা।

লতিফ খসরু জানান, ব্যাতিক্রমী এই উদ্যোগের লক্ষ্য শিক্ষার পাশাপাশি শিশুদের বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানানো। তিনি আরো জানান, তার নিজের দায়বদ্ধতা থেকে এই শিশুদের মানসিক বিকাশ ও শিক্ষার আলো ছড়ানোর চেষ্ঠা করছেন।

সমাজসেবক খসরুর মত সমাজের সবাই যদি সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের পাশে দাড়ালে পাল্টে যাবে অসহায় সমাজের চিত্র। জন্ম হবে এক নতুন বাংলাদেশের -এমনটাই প্রত্যাশা সকলের।

ইমন চৌধুরী / পিরোজপুর প্রতিনিধি

মন্তব্য