কেন পেঁয়াজের রফতানি বন্ধ করল ভারত?

অনলাইন ডেস্ক

কেন পেঁয়াজের রফতানি বন্ধ করল ভারত?

পেঁয়াজ

বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে ভারত সরকার। বন্যায় ভারতের বিভিন্ন অংশ প্লাবিত হওয়ায় চলতি বছরে মৌসুমি পেঁয়াজ উৎপাদনে ঘাটতি দেখা দেওয়ায় এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

আর তাই এ বছর ভারতের বাজারেও পেঁয়াজের মূল্য বেশ চড়া।

পরবর্তী আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ থাকবে। তবে, এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. শফিকুল ইসলাম।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, রোববার ভারত সরকারের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা দেয়া হয়। সরকার বলছে, উৎপাদন ও মজুতের ঘাটতির কারণে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ হিসেবে পেঁয়াজ রফতানি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।

ভারতের কেন্দ্রীয় বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের নীতিনির্ধারণ বিষয়ক মুখপাত্র সীতাশু কর বলেন, ‘রফতানি নীতির সংশোধন করে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ হিসেবে পেঁয়াজ রফতানি নিষিদ্ধ করা হলো। পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত সব ধরনের পেঁয়াজ রফতানিতে এ নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।’

হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশীদ হারুন জানিয়েছেন, অতিবৃষ্টি ও বন্যার কারণে ভারতের বাজারে পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি রুখতে, পেঁয়াজের দাম সহনীয় পর্যায়ে ও সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে ভারত সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তবে রবিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুর পর্যন্ত পেঁয়াজ আমদানি করতে খোলা এলসিগুলোর বিপরীতে পেঁয়াজ রফতানি অব্যাহত ছিল।

হারুন উর রশীদ হারুন বলেন, ‘দেশের বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ স্বাভাবিক ও দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখতে ভারত সরকারের বেঁধে দেওয়া বাড়তি দামেই পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত রেখেছিলাম। আমরা পর্যাপ্ত পরিমাণে পেঁয়াজের এলসিও খুলেছিলাম, সেই মোতাবেক ভারতীয় রফতানিকারকরা পেঁয়াজ সরবরাহ করছিল; যার প্রভাবে পড়ে দেশের বাজারে। ঢাকাসহ সারাদেশে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছিল।

ঢাকায় যেখানে ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ৭০ টাকা কেজিতে উঠে গিয়েছিল, তা কমে ৫৫ টাকায় এসেছিল, আর হিলি স্থলবন্দরে তা আরও কমে ৪৭ টাকা থেকে ৫০ টাকায় এসেছিল।

কিন্তু, হঠাৎ করে রবিবার বিকালে ভারতীয় রফতানিকারকরা আমাদের জানিয়েছেন, ভারত সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তারা কোনও পেঁয়াজ রফতানি করবে না। রফতানি পুরোপুরি বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে। তবে গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত পেঁয়াজের যেসব এলসি খোলা ছিল, তার বিপরীতে তারা পেঁয়াজ রফতানি করতে টেন্ডার করছেন এবং পণ্য রফতানিও করছেন।

সেইসঙ্গে রবিবার দুপুর পর্যন্ত যেসব পেঁয়াজের এলসি খোলা হয়েছে, সেগুলোর মধ্যে কিছু এলসির বিপরীতে টেন্ডার করলেও রবিবার দুপুরের পর থেকে এলসির বিপরীতে নতুন করে কোনও টেন্ডার গ্রহণ করছে না।’

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

পরবর্তী খবর

বৈরি আবহাওয়ায় সারাদেশে তিনদিন গ্যাস সংকট

অনলাইন ডেস্ক

বৈরি আবহাওয়ায় সারাদেশে তিনদিন গ্যাস সংকট

সাগরে বৈরি আবহাওয়ার কারণে এলএনজি সরবরাহে বিঘ্ন ঘটায় আগামী ১৪ থেকে ১৬ জুন তিনদিন সারাদেশে গ্যাসের সংকট থাকবে। তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৈরী আবহাওয়ার কারণে সাগর উত্তাল থাকায় বিঘ্ন ঘটছে এলএনজি খালাসে। এর ফলে প্রতিদিন অন্তত ৪০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাইপলাইনে সরবরাহ করা সম্ভব হবে না। এজন্য ১৪-১৬ জুন পর্যন্ত তিন দিন আবাসিক, শিল্প, বিদ্যুৎ ও বাণিজ্যিক কাজে গ্যাস সরবরাহ ব্যাহত হবে।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় কাল ১২ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না

অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় কাল ১২ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ১২ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না আগামীকাল মঙ্গলবার (০৮ জুন)। পদ্মা সেতুর রেল সংযোগ স্থাপনে পাইপলাইন স্থানান্তর করায় এই সমস্যা হবে। আজ সোমবার (০৭ জুন) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ।

এলাকাগুলো হলো-কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে টিটিপাড়া, সায়দাবাদ বাস টার্মিনাল, মুগদা, গোলাপবাগ, বেলতলা, মানিক নগর, অতীশ দিপঙ্কর রোড, আর কে মিশন রোড, গোপীবাগ, উত্তর যাত্রাবাড়ী ও ধলপুর।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পদ্মা সেতুর রেল সংযোগ স্থাপনে পাইপলাইন স্থানান্তর কাজের জন্য ৮ জুন, মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত (১২ ঘণ্টা) কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে টিটিপাড়া, সায়দাবাদ বাস টার্মিনাল, মুগদা, গোলাপবাগ, বেলতলা, মানিক নগর, অতীশ দিপঙ্কর রোড, আর কে মিশন রোড, গোপীবাগ, উত্তর যাত্রাবাড়ী ও ধলপুর এলাকার সব শ্রেণির গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

তিতাস আরও জানায়, সরবরাহ বন্ধ থাকায় পার্শ্ববর্তী এলাকায় গ্যাসের চাপ কম থাকতে পারে।

 

আরও পড়ুন:


মহাখালীর সাততলা বস্তির আগুন নিয়ন্ত্রণে, সহস্রাধিক ঘর ভস্মীভূত

ঠাকুরগাঁওয়ে এবারও আমের বাম্পার ফলন

 যার জন্য বিয়ে করা ফরজ

 মহেশখালীতে পাহাড় ধসে প্রাণ গেল আড়াই বছরের শিশুর


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

টানা বর্ষণে চট্টগ্রামে জলজট

হাসপাতালসহ বহু স্থাপনায় হাটুপানি

ফাতেমা জান্নাত মুমু:

টানা বৃষ্টিতে ডুবে গেছে বন্দর নগরী চট্টগ্রাম। জলজটে বেড়েছে জনদুর্ভোগ। নগরীর বিভিন্নগুরুত্বপূর্ণ সড়কসহ পানিতে তলিয়ে গেছে দোকানপাট, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ও স্থানীয়দের বাড়ি-ঘর। জলাবদ্ধতা প্রকল্প বাস্তবায়ণ না হওয়ার ​কারণকে দুষছেন নগরপরিকল্পনাবিদরা।

এদিকে, টানা বৃষ্টিতে বন্দর নগরি চট্টগ্রামে বেড়েছে পাহাড় ধসের শঙ্কা। তাই পাহাড়ে বাসিন্দাদের নিরাপত্তায়, নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে জেল প্রশাসন। খোলা হয়েছে আশ্রুয় কেন্দ্র্রও।

এটি বন্দর নগরি চট্টগ্রামের চিত্র। দুই দিনের টানা বৃষ্টিতে পানিতে ডুবে গেছে বন্দর নগরির বিভিন্ন নিন্মাঞ্চল। সড়কে জলাবদ্ধতার কারণে যেমন সৃষ্টি হয়েছে জলজট, তেমনি ভোগান্তি বেড়েছে সাধারণ মানুষের।

নগরির বহদ্দার হাট, মুরাদপুর, চাকবাজার, জিইসি, আগ্রাবাদ, খাতুনগঞ্জসহ বেশি কিছু গুরুত্বপূর্ণ সড়কের এখন এমন চিত্র। বৃষ্টির ভারি বর্ষণে তলিয়ে গেছে দোকান পাট,ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানসহ স্থানীয়দের বাড়ি-ঘর। হঠাৎ পানি বন্দি হয়ে পরে বাসিন্দারা।

এর কারণ হিসেবে জলাবদ্ধতা প্রকল্প বাস্তবায়ণ না হওয়াকে দুষছেন নগর পরিকল্পনাবিদরা।

এদিকে, এমন বৃষ্টিতে চট্টগ্রামে দেখা দিয়েছে পাহাড় ধসের শঙ্কা। চট্টগ্রামের আশপাশে ৩০টি পাহাড়ে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে প্রায় ১০হাজারের অধিক পরিবার। তাদের নিরাপত্তায় নিরাপদে সড়ে যেতে করা হচ্ছে মাইকিং। আশ্রয় কেন্দ্রে যেতে বাধ্য করা হচ্ছে  পাহাড়ে বসবাসরতদের।

আবহাওয়া অফিস বলছে, পশ্চিমা লঘুচাপের সঙ্গে পূবালী বাতাসের মিশ্রণের ফলে বজ্রমেঘ তৈরি হওয়ায় বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকবে।

আরও পড়ুন:


চলমান বিধি-নিষেধ ‘লকডাউন’ বাড়ল ১৬ জুন পর্যন্ত

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমল

কেবিনে স্থানান্তর করা হয়েছে বেগম খালেদা জিয়াকে

বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে এ পর্যন্ত ৬ হাজার ৩৪৩ কোটি টাকা টোল আদায়


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

রংপুর মেডিকেলের বার্ন ইউনিট ১০টি এসির ৯টিই নষ্ট

রেজাউল করিম মানিক, রংপুর :

রংপুর মেডিকেলের বার্ন ইউনিট ১০টি এসির ৯টিই নষ্ট

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) শীতাতপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্র (এসি) অকেজো হয়ে পড়ায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন রোগীরা। ইউনিটটির ১০টি এসির ৯টিই ৬ মাস ধরে নষ্ট। ফলে দগ্ধ হয়ে ভর্তি হওয়া রোগীরা এই গরমে নিদারুণ কষ্ট পাচ্ছেন।

২০১৩ সালের জুলাইয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চালু হয় বার্ন ইউনিট। বিশেষায়িত এ ইউনিট শুরু থেকেই উত্তরাঞ্চলের দগ্ধ রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিয়ে আসছে।

বার্ন ইউনিটে গিয়ে দেখা যায়, রোগীদের পাশে বসে হাতপাখা দিয়ে প্রতিনিয়ত বাতাস করে চলেছেন স্বজনেরা। কেউ ছোট টেবিল ফ্যান শয্যার পাশে রেখে বাতাসের ব্যবস্থা করেছেন। এদিন ১৪টি শয্যায় দগ্ধ রোগীদের চিকিৎসা নিতে দেখা যায়।

বার্ন ইউনিট সূত্রে জানা যায়, এসিগুলো কয়েকবার মেরামতের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু গত ছয় মাসে সেগুলো ঠিক হয়নি। রোগীদের ড্রেসিং করার কক্ষের এসিটি শুধু সচল। ইউনিটের দায়িত্বে নিয়োজিত চিকিৎসক এম এ হামিদ বলেন, একটু সার্ভিসিং করলেই যন্ত্রগুলো ঠিক হয়ে যায়। হাসপাতালের পরিচালককে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন


এবার ইন্দোনেশিয়ান ভাষায় হিরো আলমের বিরহের গান (ভিডিও)

টিকটকারদের ভয়ংকর ফাঁদ, কয়েকশ জনকে খুঁজছে পুলিশ

মা হচ্ছেন নুসরাত, নিজের নয় বলে মন্তব্য স্বামীর!

পাপারাজ্জি থেকে বাঁচতে মেয়েকে বুকে চেপে ধরলেন আনুশকা


১৪ নম্বর শয্যায় চিকিৎসা নিতে দেখা যায় গাইবান্ধার সাদুল্যাপুরের শিশু আবদুল্লাহকে (৪)। পাশে পাখা দিয়ে বাতাস করছিলেন মা আফরোজা বেগম। তিনি বলেন, চুলার আগুনে শরীরের বিভিন্ন অংশ দগ্ধ হয় আবদুল্লাহর। এক মাসের বেশি সময় ধরে এ হাসপাতালে ছেলের চিকিৎসা চলছে। বেশি গরম পড়লে ছেলেটা ছটফট করে।

পাশের শয্যায় চিকিৎসা নিচ্ছেন একরামুল হক (২৮) নামের এক তরুণ। তিনি দুই মাস ধরে ভর্তি। কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীর একরামুলের পিঠ পুড়ে গেছে। একপাশ হয়ে শুয়ে থাকতে হয়। একরামুল বলেন, হাসপাতালের বদ্ধ কক্ষের ভেতর বাতাসও গরম। ঘাম আর রোগীদের পোড়া অংশ থেকে দুর্গন্ধ ছড়ায়।

দিনাজপুরের বীরগঞ্জের শিলা রানী নামের (৬০) এক নারী আড়াই মাস ধরে এখানে চিকিৎসা নিচ্ছেন। দগ্ধ হওয়া দুই পায়ে ব্যান্ডেজ নিয়ে শুয়ে আছেন। সঙ্গে থাকা তাঁর ছেলে কলেজশিক্ষার্থী শিপন সাহা বলেন, ‘এসি নষ্ট থাকায় এই গরমে একেবারে কাহিল অবস্থা। কেননা, এটি একদম বদ্ধ ঘর। সব সময় গরম বাতাস।’

হাসপাতালের পরিচালক রেজাউল করিম বলেছিলেন, ‘এসিগুলো ঠিক হয়ে যাবে।’ কবে নাগাদ ঠিক হবে, জানতে চাইলে বলেন, ‘খুব অল্প সময়ের মধ্যে।’ তাঁর সঙ্গে কথা বলার এক দিন পর গতকাল শুক্রবার বিকেলে বার্ন ইউনিটে গিয়ে দেখা যায়, দুটি কক্ষে চারটি বড় স্ট্যান্ডযুক্ত ফ্যান সরবরাহ করা হয়েছে। এদিকে আজ  ভর্তি রোগীদের মধ্যে একজন দগ্ধ রোগী মারা গেছেন। দুজনকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

আগামীকাল রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না

অনলাইন ডেস্ক

আগামীকাল রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না

আগামীকাল শনিবার (৫ জুন) রাজধানী ঢাকার বেশ কয়েকটি এলাকায় গ্যাস থাকবে না। আজ শুক্রবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিতাস কর্তৃপক্ষ এই তথ্য জানায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, শনিবার সকাল ৮ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত মোট ১০ ঘণ্টা তেজকুনিপাড়া, তেজগাঁও বালিকা বিদ্যালয় এলাকা, কারওয়ান বাজার, খ্রিস্টান পাড়া, সোনারগাঁও হোটেল, কাঠালবাগান এলাকা, দিলু রোড, পরিবাগ, সোনারগাঁও রোডের পূর্ব পার্শ্বে কাঁটাবন রোডের পশ্চিম এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

এছাড়া এসব এলাকার আশপাশের এলাকায় গ্যাসের চাপ কম থাকবে।


আরও পড়ুন


ক্ষমতায় যেতে এবার রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্বের টোপ!

টিকটকারদের ভয়ংকর ফাঁদ, কয়েকশ জনকে খুঁজছে পুলিশ

এখনও ফ্রান্সের প্রধান অস্ত্র ক্রেতা সৌদি আরব

পাপারাজ্জি থেকে বাঁচতে মেয়েকে বুকে চেপে ধরলেন আনুশকা


এসময়ে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের জরুরি কাজের জন্য তেজগাঁও রেল ক্রসিং হতে সোনারগাঁও হোটেল পর্যন্ত গ্যাস পাইপলাইন স্থানান্তর করা হবে।  

গ্যাস সরবরাহ বিঘ্ন হওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করেছে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর