শুক্রবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০৭ মিনিট আগে

অবশেষে বরখাস্ত হচ্ছেন বহুল আলোচিত ক্যাসিনো সাঈদ!

অনলাইন ডেস্ক

অবশেষে বরখাস্ত হচ্ছেন বহুল আলোচিত ক্যাসিনো সাঈদ!

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর একেএম মমিনুল হক সাঈদকে বরখাস্তের প্রক্রিয়া চলছে। তার বিরুদ্ধে ক্যাসিনো-জুয়া ও দখলবাজিসহ নানা অভিযোগ উঠলেও তিনি বরখাস্ত হচ্ছেন বোর্ড সভায় অনুপস্থিতির দায়ে।

কিন্তু,এমন অভিযোগ করপোরেশনের আরও অন্তত ১৮জন কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে রয়েছে, যারা অনুমতি ছাড়া একনাগাড়ে তিনটি থেকে ৮টি পর্যন্ত বোর্ড সভায় অনুপস্থিত ছিলেন। এর মধ্যে ৯জন ১০টি সভার বেশি অনুপস্থিত ছিলেন।

তাদের অনেকের বিরুদ্ধে ক্যাসিনো, মদ, জুয়া, দখলবাজি, চাঁদাবাজিসহ করপোরেশনের দায়িত্ব পালনেও অনীহার অভিযোগ রয়েছে। কেউ কেউ সরকারের অনুমোদন না নিয়ে একাধিকবার বিদেশেও গেছেন। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে সিটি করপোরেশন থেকে মন্ত্রণালয়ে কোনও অভিযোগ দেওয়া হয়নি। ফলে মন্ত্রণালয় থেকেও কোনও ব্যবস্থা নিতে পারছে না। সংশ্লিষ্ট সূত্রে বিষয়টি জানা গেছে।

জানা গেছে, ডিএসসিসির ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর একেএম মমিনুল হক সাঈদ করপোরেশনে অনুষ্ঠিত ১৯টি সভার মধ্যে মাত্র ছয়টি বোর্ড সভায় উপস্থিত ছিলেন। তিনি প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়, সপ্তম থেকে দশম, ১২তম থেকে ১৭তম পর্যন্ত মোট ১৩টি সভায় উপস্থিত ছিলেন না। 

তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি মন্ত্রণালয়ের পূর্ব অনুমতি ছাড়া অনেকবার বিদেশ ভ্রমণ করেছেন। এজন্য তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে গত ২৫ জুন ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব বরাবরে চিঠি দিয়েছেন। 

এরপর ১ জুলাই মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আ ন ম ফয়জুল হক তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন। সাত কর্মদিবসের মধ্যে তাকে এ নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়।

কাউন্সিলর সাঈদ মন্ত্রণালয়ের নোটিশের জবাবে জানান, একনাগাড়ে অনুপস্থিত থাকার বিষয়টি সঠিক নয়। তিনি দীর্ঘদিন ধরে পাকস্থলীর ক্যানসারে আক্রান্ত। শারীরিক অসুস্থতাজনিত কারণে যে কয়টি সভায় অনুপস্থিত ছিলেন, সেগুলো নিতান্তই অনিচ্ছাকৃত। এরপর তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ডিএসসিসির সুপারিশে হজ ও চিকিৎসার জন্য কাউন্সিলর সাঈদকে ২৫ দিনের ছুটি দেয় মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার অভিযোগের পর বিষয়টি তদন্ত করেন ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের পরিচালক (স্থানীয় সরকার) এম ইদ্রিস সিদ্দিকী। তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে বলে জানা গেছে। এরই মধ্যে তিনি আইন অনুযায়ী তাকে সাময়িক বরখাস্তের সুপারিশ করে মন্ত্রণালয়ে তার প্রতিবেদনটি জমা দিয়েছেন। খুব শিগগিরই কাউন্সিলর সাঈদকে বরখাস্ত করা হতে পারে।

ডিএসসিসি’র সভায় অনুপস্থিত থাকার অভিযোগ আছে এসব কমিশনারের বিরুদ্ধে অনুসন্ধানে জানা গেছে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পুরনো ৫৭টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের মধ্যে ১৮ জন কাউন্সিলর একনাগাড়ে ৩টি বোর্ড সর্ভার বেশি অনুপস্থিত ছিলেন।

তারা হচ্ছেন- ৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মাকসুদ হোসেন (মহসিন), ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. গোলাম হোসেন, ৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আশ্রাফুজ্জামান, ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর একেএম মমিনুল হক সাঈদ, ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিল গোলাম আশরাফ তালুকদার, ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোস্তফা জামান পপি, ১৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর জসীম উদ্দিন আহমেদ, ২২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. তারিকুল ইসলাম সজীব, ২৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আনোয়ার পারভেজ বাদল,৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. হাসান (পিল্লু), ৩২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. বিল্লাল শাহ, ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আউয়াল হোসেন, ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ময়নুল হক মঞ্জু, ৪০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মকবুল ইসলাম খান টিপু, ৪৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আরিফ হোসেন, ৫২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ নাছিম মিয়া,সংরক্ষিত আসনে ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাশিদা পারভীন (মণি ও ১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোসাম্মৎ শিউলী হোসেন।

এদের মধ্যে ১০টি সভার বেশি অনুপস্থিত ছিলেন এমন কাউন্সিলর রয়েছেন ৯ জন। তারা হচ্ছেন- ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. আশরাফুজ্জামান, ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর একেএম মমিনুল হক সাঈদ, ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর গোলাম আশরাফ তালুকদার, ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোস্তফা জামান (পপি), ২২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. তরিকুল ইসলাম সজীব, ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. হাসান, ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. বিল্লাল শাহ, ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ময়নুল হক মঞ্জু ও সংরক্ষিত আসনে ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাশিদা পারভীন (মণি)।

দেখা যাচ্ছে, উল্লিখিত কাউন্সিলররা একাধারে তিনটি থেকে শুরু করে আটটি সভা পর্যন্ত অনুপস্থিত ছিলেন। ১৯টি সভার মধ্যে কারও ১৫টি সভায় অনুপস্থিতি রয়েছে। কিন্তু ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর একেএম মমিনুল হক সাঈদ ছাড়া এখনও আর কারও  বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়নি।

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর/কামরুল 

মন্তব্য