বৃহস্পতিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০১ মিনিট আগে

লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে চালু হচ্ছে ‘বাংলা টাকা বন্ড’

অনলাইন ডেস্ক

লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে চালু হচ্ছে ‘বাংলা টাকা বন্ড’

প্রবাসী বাংলাদেশীদের বিনিয়োগে উৎসাহ দেয়ার জন্য আজ সোমবার লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে চালু হচ্ছে ‘বাংলা টাকা বন্ড’। এটি হবে একটি টাকা বন্ড। এই বন্ডের আকার হবে ১০০ কোটি ডলার।

কিন্তু প্রাথমিকভাবে বাজার থেকে তোলা হবে ১ কোটি মার্কিন ডলার বা ৮৪ কোটি টাকা। প্রবাসীরা ডলারে এই বন্ড কিনলেও প্রথমবারের মতো তা টাকায় রূপান্তর করে দেশের বিভিন্ন অবকাঠামোগত প্রকল্পে বিনিয়োগ করা হবে। 

বিশ্বব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি) হবে এই বন্ডের ইস্যু ম্যানেজার।

লন্ডন স্টক মার্কেট আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলা টাকা বন্ডকে লিস্টিং করার অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার জন্য ইতোমধ্যে লন্ডনে গিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

প্রাথমিকভাবে এই বন্ডের সময়সীমা হতে পারে ৩ বছর মেয়াদি। পরে তা বাড়িয়ে ৫ বছর এবং সর্ব্বোচ্চ ১০ বছর করা হতে পারে।

সূত্র জানায়, ২০১১ সাল থেকে এ ধরনের বন্ড ছাড়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। পরে ২০১৫ সালে বিশ্বব্যাংক-আইএমএফ’র বার্ষিক সভায় তৎকালীন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সাথে আইএফসি’র নেতৃবৃন্দের এক বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে এই বন্ড ছাড়ার প্রস্তাব দিলে তখনই প্রাথমিক সম্মতি দিয়েছিল বাংলাদেশ সরকার।

এরপর আইএফসি বাংলাদেশ সরকারের কাছে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পাঠায় এবং তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অর্থমন্ত্রণালয় একই বছর (২০১৫) ৪ অক্টোবর এক চিঠিতে ‘টাকা বন্ড’ ছাড়ার অনুমোদনের বিষয়টি জানায়। প্রবাসীদের জন্য ‘ডলার বন্ড’ থাকলেও বাংলাদেশে এই প্রথমবারের মতো ‘টাকা বন্ড’ ছাড়া হচ্ছে। 

প্রাথমিকভাবে এই বন্ডের মাধ্যমে যে অর্থ উত্তোলন করা হবে তা আইএফসি অর্থায়নের পরিচালিত বিভিন্ন অবকাঠামোগত প্রকল্পে বিনিয়োগ করা হবে।

সংশ্লিষ্ট এক সূত্র জানায়, এই প্রথম বাংলাদেশের টাকা কোনো আন্তর্জাতিক ফাইন্যান্সিয়াল মার্কেটের সঙ্গে সংযুক্ত হতে যাচ্ছে। টাকা লন্ডন স্টক মার্কেটে লেনদেন হবে। যে কেউ এই বন্ড কিনতে পারবে। 

ডলার দিয়ে এই বন্ড কিনতে হবে। সেই ডলার টাকায় কনভার্ট হয়ে তা বিনিয়োগ করা হবে। আইএফসি বাংলাদেশে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে বিনিয়োগ করেছে। এই ১ বিলিয়ন ডলার ‘টাকা বন্ড’ ছাড়ার মাধ্যমে তাদের বিনিয়োগ আরো বাড়বে।

আইএফসির প্রস্তাবে বলা হয়েছে, তারা আন্তর্জাতিক বাজার থেকে ১ বিলিয়ন ডলারের তহবিল সংগ্রহ করে তা বাংলাদেশী মুদ্রা টাকায় এ দেশের বাজারে ছাড়বে। যে কেউ এ বন্ড কিনতে পারবে।

এই বন্ডে বিনিয়োগ করলে বিনিয়োগকারীদের কত শতাংশ মুনাফা হবে তা এখনো চূড়ান্ত করা হয়নি। তবে এখন বিদেশের ব্যাংকে টাকা রাখলে কোনো ইন্টারেস্ট পাওয়া যায় না। টাকা বন্ডে বিনিয়োগ করলে সেখানে ৪-৫ শতাংশের মতো ইন্টারেস্ট দেয়া হতে পারে।

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর/কামরুল

মন্তব্য