রবিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০১ মিনিট আগে

‘২২বছরেও পাহাড়ে শান্তি ফেরাতে ভূমিকা রাখেনি সন্তু লারমা’

ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙামাটি প্রতিনিধি

‘২২বছরেও পাহাড়ে শান্তি ফেরাতে ভূমিকা রাখেনি সন্তু লারমা’

পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির ২২বছরেও পাহাড়ে শান্তি ফেরাতে ভূমিকা রাখেনি সন্তু লারমা। এমন অভিযোগ করেছেন রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার।

তিনি বলেন, ১৯৯৭ সালে শান্তি সম্প্রীতি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পার্বত্যাঞ্চলের সাধারণ মানুষের পক্ষে চুক্তি স্বাক্ষর করেছিলেন তিনি। কিন্তু সে প্রতিশ্রুতির লেশমাত্রও দেখেনি পার্বত্যাঞ্চলের মানুষ। তারপরও সরকারের পক্ষ থেকে পার্বত্য চুক্তি ৭২টি ধারার সিংহভাগই বাস্তবায়ন করেছেন। দেওয়া হয়েছে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের জাতিগত পরিচয় ও বিশেষ সুবিধা। এরপরও পার্বত্য চুক্তি নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে সন্তু লারমার বিব্রন্তে শেষ নেই।

সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে রাঙামাটি ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট চত্বরে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির ২২বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজতি সমাবেশে রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার এসব কথা বলেন।

রাঙামাটি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমার সভাপতিত্বে এতে রাঙামাটি রিজিয়নের ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাইনুর রহমান, রাঙামাটি জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ, রাঙামাটি জেলা পুলিশ সুপার মো. আলমগীর কবির, রাঙামাটি জেলা পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমেদ, রাঙামাটি জেলা পরিষদের সদস্য মো. মুছা মাতব্বর, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য হাজী মো. কামাল উদ্দীন, সাবেক জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চিংকিউ রোয়াজা উপস্থিত ছিলেন।

রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার আরও বলেছেন, যে সরকারের আমলে পার্বত্য চুক্তি স্বাক্ষরিত্ব হয়েছিল। সে সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে চুক্তি স্বাক্ষরকারী সন্তু লারমা। পাহাড়ে
আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের পাখির মতো গুলি করে হত্যা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, অবৈধ অস্ত্রধারীদের কাছে পাহাড়ে মানুষ এখন জিম্মি। তারা ইচ্ছে করলেও স্বাধীন মত প্রকাশ করতে পারছে না। পাহাড়ের চাঁদাবাজী, অস্ত্রবাজী, গুম, খুন, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বন্ধ করার জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সভাপতি সন্তু লারমা কোনো উদ্যোগ না থাকায় পাহাড়ে উন্নয়ণ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। যতদিন পাহাড়ে অশান্তি বিরাজ করবে ততদিন
পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন বাধাগ্রস্ত হবেই, এতে কোনো সন্দেহ নেই। তাই পার্বত্য চুক্তি যথাযথ বাস্তবায়ন করতে হলেও পাহাড়ে রক্তপাত বন্ধ করে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান তিনি।

অন্যদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির বর্ষপূর্তি উপলক্ষে রাঙামাটি পৃথক আলোচনা সভার আয়োজন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি জেএসএস। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন- পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি জেএসএসের সহসভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য