অবিবাহিত প্রেমিক যুগলের একসঙ্গে হোটেলে থাকাটা অবৈধ নয়

অনলাইন ডেস্ক

অবিবাহিত প্রেমিক যুগলের একসঙ্গে হোটেলে থাকাটা অবৈধ নয়

কোনো অবিবাহিত নারী-পুরুষ আবাসিক হোটেলে একসঙ্গে অবস্থান কিংবা রাতযাপন করলে সেটা অপরাধ নয়। একটি রায়ে এমনটাই জানালো ভারতের তামিলনাডু রাজ্যের হাইকোর্ট। শুধু অবিবাহিত যুগলকে এক রুমে থাকার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য কোনো হোটেল বন্ধ করে দেওয়াটা বেআইনি বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে তামিলনাডুর আদালত।

মাদ্রাজ হাইকোর্ট নামে পরিচিত এ আদালতের বিচারপতি এমএস রমেশ রায় বলেন, ‘দুজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ যখন ‘লিভ-ইন’ করেন তখন সেটা অবৈধ বলে তো বিবেচিত হয় না। একইভাবে অবিবাহিত যুগলদের কোনো হোটেল রুমে একসঙ্গে থাকাটা কোনো ফৌজদারী অপরাধ হতে পারে না।’ দেশে এমন কোনো আইন এখন পর্যন্ত নেই বলে বিচারপতি জানিয়েছেন।

অবিবাহিত যুগলকে একসঙ্গে থাকতে দেওয়ার অপরাধে চলতি বছরের জুনে রাজ্যের কোয়েম্বাটোর জেরার একটি লজ সিলগালা করে দিয়েছিল সেখানকার প্রশাসন। লিখিত কোনো নির্দেশনা ছাড়াই জেলা প্রশাসক কে রাজমনির নির্দেশে ওই লজটি সিলগালা করা হয়েছিল। একই সঙ্গে এই অভিযোগে আটক করা হয় কয়েকজন তরুণ-তরুণীকেও। জানা যায়, দেশটির একটি রাজনৈতিক দলের নারী শাখা ওই লজের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করেছিল। তাদের অভিযোগ, শুধু পরিচয়পত্র যাচাই করেই অবিবাহিত তরুণ-তরুণীদের রুম দিচ্ছে লজটির কর্তৃপক্ষ। যা ভারতীয় সংস্কৃতির পরিপন্থী। তাই ওই লজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি করেছিলেন তারা।

অভিযোগ পাওয়ার পরদিনি সকালে রাজস্ব ও জেলা পুলিশের একটি দল সেই লজটিতে অভিযান চালিয়ে সমস্ত নথি খতিয়ে দেখে সেটি সিলগালা করে দেয় স্থানীয় প্রশাসন। এমন অভিযানের আইনত কোনো ভিত্তি আছে কিনা তা চ্যালেঞ্জ করে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিল লজটির মালিক পক্ষ। তারপর বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়ায়। দীর্ঘ শুনানির পর তামিলনাডুর হাইকোর্ট মামলার রায়ে জানিয়েছে, শুধু অবিবাহিত যুগলদের থাকতে দেয়ার কারণে কোনো আবাসিক হোটেল, লজ বা অ্যাপার্টমেন্ট সিলগালা করে দেওয়ার আইনগত কোনো ভিত্তি নেই। কেননা এসব স্থানে কোনো অবিবাহিত যুগলের রাত্রীযাপনে বাধা নেই আইনে। লিভ টুগেদার অবৈধ না হলে, এটিও অবৈধ হতে পারেনা। 

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর/ডিএ

মন্তব্য