বুধবার, ১ এপ্রিল, ২০২০ | আপডেট ০৩ ঘণ্টা ৫৮ মিনিট আগে

অবশেষে ঘরটি পেলেন বিধবা আরবতি

নোয়াখালী প্রতিনিধি

অবশেষে ঘরটি পেলেন বিধবা আরবতি

তালা খুলে ঘরটি বুঝিয়ে দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের কাদিরপুর ইউনিয়নে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের হস্তক্ষেপে অবশেষে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘরের দখল ফের বুঝে পেলেন এক বিধবা নারী। এক বছর আগে ওই ঘর থেকে বিধবা আরবতিকে বিতাড়িত করে স্থানীয় প্রভাবশালী একটি চক্র।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর গৃহীত 'যার জমি আছে ঘর নাই, তার জমিতে ঘর নির্মাণ ' প্রকল্পের আওতায় এক বিধবা নারীকে (২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে) নির্মাণ করে দেওয়া ঘর জবরদখল করে ওই নারীকে ঘর থেকে বের করে দেয়া হয়। দীর্ঘ এক বৎসর ওই বিধবা নারী গ্রামের বিভিন্ন মানুষের কাছে ধর্না দিয়েও কুলকিনারা পাননি। দীর্ঘ একটা বছর তিনি বিভিন্ন মানুষের ঘরে আশ্রয় নিয়ে দিনাতিপাত করেছেন। অবশেষে  তার অবেদনের প্রেক্ষিতে রোববার দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সরওয়ার কামালের নেতৃত্বে একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং স্থানীয় লোকজন ও জনপ্রতিনিধির উপস্থিতিতে ঘটনার সত্যতা খুজে পান। পরবর্তীতে  বিধবা আরবতিকে বন্ধ ঘরের তালা খু্লে ঘর বুঝিয়ে দেন।

এদিকে তালা খুলে ঘর বুঝিয়ে দিলেও অভিযুক্ত দখলদার ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে স্থানীয় অনেকে জানান। বিধবা ওই নারী কান্নাজড়িত কণ্ঠে সাংবাদিকদের জানান, দীর্ঘ এক বছর মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি। যে যখন আশ্রয় দিয়েছে তখন সেখানে থেকেছি। আমি একজন অসহায় নারী। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার হিসেবে একটি ঘর পেলেও এক বৎসর আমাকে ঘরে থাকতে দেয়নি। এখন আমি ঘর পেয়ে শান্তিতে থাকতে চাই। ভয় আছে ফের দখলদাররা ঘরটি দখল করে নেয় কিনা।

মন্তব্য