মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২০ | আপডেট ২২ মিনিট আগে

ফেডারেশন কাপ ফুটবল

মুক্তিযোদ্ধা সংসদকে হারিয়ে সেমিতে বসুন্ধরা কিংস

অনলাইন ডেস্ক

মুক্তিযোদ্ধা সংসদকে হারিয়ে সেমিতে বসুন্ধরা কিংস

মুক্তিযোদ্ধা সংসদকে টাইব্রেকারে ৪-১ ব্যবধানে হারিয়ে ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনালে উঠেছে বসুন্ধরা কিংস। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মতো টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে দলটি।

অবশ্য সেমিফাইনালে উঠতে বেশ ঘাম ঝরাতে হয়েছে ড্যানিয়েল কলিনড্রেস, মতিন মিয়া, নিকোলাস ডেলমন্টে ও সুফিলদের। কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচটিতে নির্ধারিত সময় ১-১ গোলে ড্রয়ের পর টাইব্রেকারে ৪-১ গোলে মীমাংসা হয়। এর আগের মৌসুমে প্রথমবারের মতো খেলতে নেমেই ফাইনাল খেলেছিল বসুন্ধরা কিংস। 

আগামী ৩ জানুয়ারি টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে অস্কার ব্রজোনের শিষ্যরা মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ পুলিশের। দিনের প্রথম ম্যাচ ও টুর্নামেন্টের তৃতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে সেন্ট্রাল আমেরিকার দেশ পুয়ের্তোরিকোর অধিনায়ক রিভিয়েরা সিডনি অ্যাডামসের জোড়া গোলে ৩-১ ব্যবধানে সাইফ স্পোর্টিংকে হারায় নবগত এই দলটি।

এদিন, পুরো শক্তি নিয়েই খেলতে নামে বসুন্ধরা কিংস। শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলতে থাকে। এরই সুবাদে ৪ মিনিটেই বসুন্ধরা এগিয়ে যায় লেবানিজ স্ট্রাইকার মোহাম্মদ রসুল কদুইর দুর্দান্ত ফিনিশিংয়ে। ডান প্রান্ত থেকে দলীয় অধিনায়ক কলিনড্রেস ঠাণ্ডা মাথায় ক্রস করেন। ছোট বক্সে দাঁড়ানো মতিন বল ধরে আলতো টোকায় ফাঁকা দাঁড়ানো রসুলকে দেন। রসুল কালক্ষেপণ না করে ঠাণ্ডা মাথায় মুক্তিযোদ্ধার গোলরক্ষক প্রিতমকে পরাস্ত করেন (১-০)। 

ওই গোলের পরের ২৫ মিনিটে আরও তিনটি গোলের সুযোগ নষ্ট করে বসুন্ধরা। এর মধ্যে ২৬ মিনিটে কলিনেড্রস একটি গোলও করেন। কিন্তু রেফারি অফসাইডের অজুহাতে বাদ দেন। ১০ মিনিটে ম্যাচের সবচেয়ে সহজ সুযোগ নষ্ট করেন মতিন। কলিনড্রেসের মাইনাসে পা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হন মনি। ২৮ মিনিটে প্রায় ২৫ মিটার দূর থেকে মাহাবুবুর রহমান সুফিলের দূরপাল্লার শট ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক প্রিতম। এরপর মুক্তিযোদ্ধা ঘুরে দাঁড়াতে চেষ্টা করে। কিন্তু বল মধ্য মাঠেই ঘোরাফেরা করে। 

দ্বিতীয়ার্ধে বসুন্ধরা গোল সংখ্যার বাড়ানোর চেষ্টা করে। কিন্তু সুবিধা করতে পারেনি স্ট্রাইকারের ব্যর্থতায়। উল্টো গোল খেয়ে বসে। ৭৬ মিনিটে সমতা আনে মুক্তিযোদ্ধা। বসুন্ধরার রক্ষণভাগের ভুলে সমতা আনেন মেহেদি হাসান রয়েল (১-১)। এরপর গোলের জন্য মরিয়া হয়ে খেলতে থাকে বসুন্ধরা। গোল না হওয়ায় ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে গোল না হওয়ায় ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকারে। সেখানে বসুন্ধরার চার শটের চারটিতেই গোল করেন বখতিয়ার ইশোভেকভ, নিকোলাস ডেলমন্টে, অতিকুর রহমান ফাহা ও ড্যানিয়েল কলিনড্রেস। বিপরীতে তৃতীয় শটে গোলের দেখা পায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদ।

সূত্র- বাংলাদেশ প্রতিদিন

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য