ছবিতে ছবিতে সৌদির বরফ

মোহাম্মদ আল-আমীন, সৌদি আরব

ছবিতে ছবিতে সৌদির বরফ

মরুভূমি রাতারাতি বদলে গেল বরফে। এটা সৌদি আরবে বিরল-ই বটে। বালির দেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রার তারতম্য হয়েই থাকে। কিন্তু শূন্যের এতটা নীচে? হঠাৎ ১৮ থেকে ৩ ডিগ্রিতে নেমে আসা মরুর দেশের চিত্র তুলে ধরেছেন নিউজ টোয়েন্টিফোরের সৌদি আরব প্রতিনিধি মোহাম্মদ আল-আমিন।

বরফে ঢেকে গেছে তপ্ত মরুভূমি। আনন্দে আত্মহারাও হয়ে মরুতে গাড়ি নিয়ে স্থানীয়রা।

বরফের চাদরে ঢেকে গেছে রাস্তার গাড়ি।

রুক্ষ, শুষ্ক মরুভূমি এভাবে রাতারাতি সুইজারল্যান্ড হবে ভাবেনি সৌদিরা। তাই মুঠোফোনের ক্যামেরায় দৃশ্য ধারণের চেষ্টা।

খুশিতে আত্মহারা হয়ে বরফ হাতে খেলায় মেতেছেন তিনি।

বরফের দেশের মতোই রাস্তা ঢেকে গেছে বরফে। এ যেন সুইজারল্যান্ড।

রাস্তার ধারে গাড়ি ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে হয়তো আলপনা আঁকার চেষ্টা।

তাপমাত্রা ১৮ থেকে ৩ ডিগ্রিতে নামায় তপ্ত মরুভূমি এখন বরফে ঢাকা।

এমন আগে এমন কোনো দিন ঘটেনি। তাই তো রাস্তায় নেমে উল্লাস।

আকাশ থেকে বরফ পড়ার দৃশ্য।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

৭ই মার্চের ভাষণ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হলো কানাডাতে

লায়লা নুসরাত, কানাডা

৭ই মার্চের ভাষণ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হলো কানাডাতে

কানাডার ক্যালগেরিতে আলবার্টার প্রথম বাংলা অনলাইন পোর্টাল "প্রবাস বাংলা ভয়েস" এর আয়োজনে "ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ : ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে প্রবাসীদের অনুপ্রেরণা " শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

প্রধান সম্পাদক আহসান রাজীব বুলবুল এর সঞ্চালনায় আলোচনায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী ও একুশে পদকপ্রাপ্ত শিল্পী ফকির আলমগীর। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালগেরির অধ্যাপক ডক্টর আনিস হক ও ক্যালগেরির এবিএম কলেজের প্রেসিডেন্ট ডক্টর মোহাম্মদ বাতেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কলামিস্ট, উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মোঃ মাহমুদ হাসান।

আলোচনায় বক্তারা বলেন - বঙ্গবন্ধুর ভাষণ এখন শুধু বাঙালীর নয়, সারা বিশ্বের তথা মানব সভ্যতার অহংকার। এ ভাষণ কালোত্তীর্ণ বিশ্ব ক্লাসিক, যা ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ করে নিয়েছে, ইন্টারন্যাশনাল মেমোরি অফ ওয়ার্ল্ড রেজিস্ট্রারে অন্তর্ভুক্ত করেছে।

বক্তারা আরো বলেন ৭ ই মার্চের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণের পরেই সারা বিশ্বে প্রবাসীরা জেগে ওঠে। ঐতিহাসিক ঐ ভাষনের দিক নির্দেশনা পেয়েই পরোক্ষভাবে প্রবাসীরা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে।

প্রধান অতিথি একুশে পদকপ্রাপ্ত শিল্পী ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী ফকির আলমগীর বলেন- ৫০ বছর আগের এ দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণে গর্জে উঠেছিল উত্তাল জনসমুদ্র। লাখ লাখ মানুষের গগনবিদারী শ্লোগানে উত্তাল বসন্তের মাতাল হাওয়ায় সেদিন পতপত করে উড়ে বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত লাল-সবুজের পতাকা। 

সেদিন শপথের লক্ষ বজ্রমুষ্ঠি উত্থিত হয় আকাশে। বঙ্গবন্ধু সেদিন শুধু স্বাধীনতার চূড়ান্ত আহবানটি দিয়েই চুপ থাকেননি, স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধের রূপরেখাও দিয়েছিলেন। মূলত বঙ্গবন্ধুর সেই ভাষণেই ছিল ৯ মাসব্যাপী বাংলার মুক্তি সংগ্রামের ঘোষণা ও মূল ভিত্তি।

বিশেষ অতিথি ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালগেরির প্রফেসর ডক্টর আনিস হক বলেন- দূরে বসে আজ আমরা দেশের কথা ভাবছি, মুক্তিযুদ্ধে যারা সরাসরি ও পরোক্ষভাবে সহযোগিতা করেছেন এবং যারা দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছেন প্রত্যেকের প্রতি আমার সশ্রদ্ধ সালাম ও কৃতজ্ঞতা।


বিশ্ব নারী দিবস আজ

নারীর কর্মসংস্থান হলেও বেড়েছে নির্যাতন নিপীড়ন

অস্তিত্ব রক্ষায় এখনো সংগ্রামী নারী, তবে আজো ন্যয্যতা আর নিরাপত্তা বঞ্চিত

সাইবার অপরাধের সবচেয়ে বড় ভুক্তভোগী নারীরা


বিশেষ অতিথি ক্যালগেরির এবিএম কলেজের প্রেসিডেন্ট ডক্টর মোহাম্মদ বাতেন বলেন- বঙ্গবন্ধুর ৭ ই মার্চের ভাষণ ছিল বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ভিত্তিমূল উজ্জ্বল ও প্রেরণাভূমি। ঐতিহাসিক সেই ভাষণ আজও বাঙালি জাতির অনুপ্রেরণার অনির্বাণ শিখা হয়ে অফুরন্ত শক্তি ও সাহস যুগিয়ে আসছে।

কলামিস্ট, উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মোঃ মাহমুদ হাসান বলেন- জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তি সংগ্রামে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহায়তা করে যারা স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে অবদান রেখেছেন তাদের প্রতি আমার শ্রদ্ধা। ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষনই ছিল মুক্তিকামী জনতার প্রেরণার উৎস - স্বাধীনতা সংগ্রামের চুড়ান্ত দিক নির্দেশনা। 

প্রকৌশলী মোহাম্মদ কাদির বলেন- ঐতিহাসিক ঐ ভাষণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দেন।ঐ ভাষণই ছিল দেশপ্রেমের আদর্শে আত্মপ্রত্যয়ী হয়ে ওঠার।

প্রকৌশলী আব্দুল্লা রফিক বলেন- ১৯৭১ সাল থেকে এ পর্যন্ত সকল গনতান্ত্রিক আন্দোলনে ফকির আলমগীর এর ভুমিকা 
প্রশংসার দাবি রাখে। তিনি আরো বলেন -বিশ্বে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ এমন একটি ভাষণ যা যুগের পর যুগ, বছরের-পর-বছর, ঘন্টার পর ঘন্টা বেজে চলেছে।

সিলেট অ্যাসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির সভাপতি রূপক দত্ত বলেন-বঙ্গবন্ধুর ভাষণটির আবেদন এখনো কমেনি। ৫০ বছর ধরে একই আবেদন নিয়ে টানা কোন ভাষণ এভাবে শ্রবণের নজির বিশ্বের ইতিহাসে নেই। ঐতিহাসিক ঐ ভাষণের পরেই জাতি সেদিন উদ্বুদ্ধ হয়েছিল, স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল।

রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী ইকবাল রহমান ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ থেকে পরবর্তী প্রজন্ম বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের পটভূমিকে জানার সুযোগ হয়েছে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

অর্থ সংকটে চিকিৎসা করতে পারছেন না যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সারওয়ার

অনলাইন ডেস্ক

অর্থ সংকটে চিকিৎসা করতে পারছেন না যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সারওয়ার

অর্থ সংকটে চিকিৎসা করতে পারছেন না যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সারওয়ার হোসেন মুক্তা। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই শিক্ষার্থীর হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপন কয়েক লাখ মার্কিন ডলার প্রয়োজন বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

বর্তমানে পেনসেলভেনিয়ার পেন মেডিসিন প্রেসবেট্রেইন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন সারওয়ার হোসেন মুক্তা। তার স্ত্রী নার্গিস ফাতেমা বিপ্লবী বলেন, ‘আমাদের ১১ বছরের একটা মেয়ে আছে। নানা সমস্যার মধ্যে দিয়ে আমরা ১৭ বছর একসঙ্গে অতিক্রম করেছি। হঠাৎ করেই আমার সুখের সংসারটি ওলট-পালট হয়ে গেছে। কিছুদিন আগে আমার স্বামী হার্ট অ্যাটাক করলে চিকিৎসকরা হার্টে ব্লক খুঁজে পান। তাকে হাসপাতালে নিলে লাইফ সাপোর্টে রাখেন এবং চিকিৎসকরা হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য আমাদের কোনো মেডিকেল ইন্সুরেন্স নেই। এমতাবস্থায় তার সার্জারি চিকিৎসায় অনেক অর্থের প্রয়োজন, যা আমাদের পক্ষে সংগ্রহ করা সম্ভব হচ্ছে না।’

আরও পড়ুন:


দেব-মিমি-নুসরাত যে কারণে প্রার্থীদের তালিকায় নেই

ওমান সাগরে তৈরি হবে ইরানের সর্ববৃহৎ সমুদ্রবন্দর

নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ হবে তাই ঘুম হয়নি শ্রাবন্তীর

ট্রাকচাপায় চবি আইন বিভাগের প্রথম ব্যাচের ছাত্রের মৃত্যু


পরিবারের সক্ষমতা না থাকায় দেশি বিদেশি সকলের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার স্বামী স্বাস্থ্যবান ও পরিশ্রমী মানুষ। তার এই চেহারা কল্পনাই করতে পারছি না, তাকে ছাড়া সামনের দিনগুলোর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা সম্ভব না। তাই সকালের কাছে সহযোগিতার আবেদন করছি। আপনাদের সহযোগিতায় পারে আমার স্বামীকে সুস্থ করতে।’

দেশ ও প্রবাসের সহৃদয়বান ব্যক্তিদের সাহায্যের আশায় নার্গিস ফাতেমা বিপ্লবী সামাজিক যোগামাধ্যম ফেসবুকে একটি ফান্ডরেইজ পেজ (https://gofund.me/b6fa0ba1) খুলেছেন। আগ্রহীরা এই পেজে গিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মালদ্বীপে বাংলাদেশ দূতাবাসে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালন

অনলাইন ডেস্ক

মালদ্বীপে বাংলাদেশ দূতাবাসে  ঐতিহাসিক ৭ মার্চ  পালন

বাঙালি জাতির দীর্ঘ স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অনন্য দিন ঐতিহাসিক ৭ মার্চ আজ। ১৯৭১ সালের এই দিনে ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) এক বিশাল জনসমুদ্রে দাঁড়িয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ডাক দেন।

মালদ্বীপে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে ভার্চুয়ালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণের ওপর একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব ও সঞ্চালনা করেন রাষ্ট্রদূত রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ নাজমুল হাসান।

বক্তরা বলেন, এদিন লাখ লাখ মুক্তিকামী মানুষের উপস্থিতিতে এই মহান নেতা ঘোষণা করেন, ‘রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরো দেব, এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাআল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, জয়বাংলা।’

একাত্তরের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর এই বলিষ্ঠ ঘোষণায় বাঙালি জাতি পেয়ে যায় স্বাধীনতার দিকনির্দেশনা। এরপরই দেশের মুক্তিকামী মানুষ ঘরে ঘরে চূড়ান্ত লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিতে শুরু করে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মালদ্বীপের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পররাষ্ট্র সচিব আবদুল গাফফুর মোহাম্মদ। আলোচনার শুরুতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের গুরুত্ব তুলে ধরেন রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ নাজমুল হাসান।

ভার্চুয়াল সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারতের রাষ্ট্রদূত, জাপানের রাষ্ট্রদূত ও চীনা রাষ্ট্রদূত। আরও উপস্থিত ছিলেন সংবাদকর্মী মোহাম্মদ মাহামুদুল। আমন্ত্রিত প্রবাসীরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে তাদের মূল্যবান মতামত দেন।

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ভুয়া চিকিৎসা ও অর্থ আত্মসাত: যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশির ১৫ বছরের জেল

অনলাইন ডেস্ক

ভুয়া চিকিৎসা ও অর্থ আত্মসাত: যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশির ১৫ বছরের জেল

ভুয়া চিকিৎসার নামে ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির ১৫০ মিলিয়ন ডলার হাতিয়ে নেয়ার মামলায় বাংলাদেশি আমেরিকান মাশিয়াত রশিদকে (৪০) ১৫ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। মিশিগানের ফেডারেল কোর্ট এ রায় দিয়েছে।

একই অভিযোগে এই চক্রের ১২ ডাক্তারসহ আরও ২১ জনের বিভিন্ন মেয়াদের কারাদণ্ড হয়েছে বলে মিশিগান ইস্টার্ন ডিস্ট্রিক্টের ইউএস এটর্নি সাইমা শফিক মহসিন এবং বিচার বিভাগের ক্রিমিনাল ডিভিশনের সহকারি এ্যাটর্নি জেনারেল নিকলাস এল ম্যাকুয়াইড সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন।

মিশিগান এবং ওহাইও স্টেটভিত্তিক ‘ট্রাই-কাউন্টি ওয়েলনেস গ্রুপ’র সিইও মাশিয়াত রশিদকে কারাদণ্ডের পাশাপাশি প্রতারণামূলকভাবে হাতিয়ে নেয়া অর্থ ফিরিয়ে দিতে হবে মেডিকেয়ার কোম্পানিকে। আরও সাড়ে ১১ মিলিয়ন ডলার মূল্যের বাণিজ্যিক ও আবাসিক রিয়েল এস্টেট রাষ্ট্রের বরাবরে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। মিশিগানের ওয়েস্ট ব্লুমফিল্ডের বাসিন্দা মাশিয়াত রশিদকে গত ৩ মার্চ এই দণ্ড প্রদান করা হয়। ২০১৭ সালে গ্রেফতার হন তিনি। ২০১৮ সালে নিজে থেকেই দোষ স্বীকার করেন মাশিয়াত।

আরও পড়ুন:


অভিনেত্রী চারুর গোসলের ছবি ভাইরাল

ঐতিহাসিক ৭ মার্চ: বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

মেসি ঝড়ে বার্সার জয়, অ্যাতলেটিকোর সঙ্গে ব্যবধান কমলো

এবার অনলাইনে প্রতারণার শিকার মিমি চক্রবর্তী


মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০০৮ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত রশিদ ছিলেন ঐ ট্রাই-কাউন্টি ওয়েলনেস গ্রুপের সিইও। এর অধীনে বেশ কিছু ক্লিনিক চালু করা হয় যারা সত্যিকারের কিছু রোগীর সাথে আদৌ অসুস্থ নন এমন গরিব লোকদের সংগ্রহ করে। ব্যাথানাশক ইঞ্জেকশনের আদৌ প্রয়োজন না হলেও অনেক মানুষকে তা প্রদান করা হয়। এভাবে অনেক মানুষকে আসক্ত করা হয় ওষুধ সেবনে। শতশত রোগী চিকিৎসার নামে মোটা অংক ড্র করা হয় ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি থেকে। তদন্তের সময় অনেকে সাক্ষ্য দিয়েছেন যে, ঐ ক্লিনিকে বা চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার আগে যতটুকু ব্যাথা ছিল, পরবর্তীতে চরম আকার ধারণ করে। অর্থাৎ ঘনঘন ইঞ্জেকশন নিতে হয়েছে তাদেরকে। বেশ কটি ক্লিনিকে প্রতিনিয়ত আর্ত-চিৎকার শোনা গেছে। রোগীরা কষ্টে কান্নাকাটি করেছেন। তদন্ত কর্মকর্তারা আদালতে উল্লেখ করেছেন, মাশিয়াত রশিদের নেটওয়ার্কের চিকিৎসকরা ৮ বছরে এতবেশি অর্থ আত্মসাৎ করেছেন, যারা যুক্তরাষ্ট্রের আর কোন অঞ্চলে ঘটেনি।

প্রতারণামূলকভাবে অর্জিত অর্থে ব্যক্তিগত জেট ক্রয় করেন মাশিয়াত। দামী গাড়ি ছাড়াও স্ত্রীর জন্যে মূল্যবান স্বর্ণালংকার ক্রয় করেছেন। নিজের জন্যে বিশ্বে সবচেয়ে মূল্যবান ঘড়ি, টাই, স্যুট, জুতা ক্রয় করেছেন। মাশিয়াতের চালচলনের বিস্মিত হয়েছিলেন মিশিগান ও ওহাইওতে বসবাসরত প্রবাসীরাও।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ ৮৮ বিদেশি কর্মী গ্রেফতার

অনলাইন ডেস্ক

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ ৮৮ বিদেশি কর্মী গ্রেফতার

মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গরের পাইকারি বাজার থেকে আট বাংলাদেশীসহ ৮৮ বিদেশি কর্মী গ্রেফতার করেছে  সে দেশের পুলিশ। 

সেরডাং জেলা উপ-পুলিশ প্রধান মোহাম্মদ রোসদী দাউদ সাংবাদিকদের জানান, গ্রেফতারদের ৮৮ জনের মধ্যে ৭৮ জন মিয়ানমারের, ৮ জন বাংলাদেশের এবং বাকি দুইজন নেপাল ও  ইন্দোনেশিয়ার বাসিন্দা। তাদের সবার বয়স ২০ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে।

সারডাং জেলা পুলিশ সদর দপ্তরের (আইপিডি) ৯২ জন সদস্য ও ১০ জন কর্মকর্তার নেতৃত্বে শনিবার মালয়েশিয়া সময় সকাল ১১টায় বিশেষ অভিযানে অভিবাসী কর্মীদের গ্রেফতার করা হয়।   


‘চুম্বন বা অন্তরঙ্গ দৃশ্যয়নের আগে একান্তে সময় কাটাই’

শেবাগ-শচিনের জুটিই হারিয়ে দিল বাংলাদেশকে

মন্ত্রী ও বিধায়ককে বাদ দিয়ে প্রার্থী চূড়ান্তে মমতার চমক!

শনিবার ঢাকার যে এলাকায় যাবেন না


 

কি কারণে এসব অভিবাসী কর্মীদের গ্রেফতার করা হয়েছে সে প্রশ্নে জেলা উপ-পুলিশ প্রধান মোহাম্মদ রোসদী দাউদ বলেন, গোয়েন্দা তথ্যে দেখা গেছে, বেশির ভাগ বিদেশিরা অবৈধভাবে পাইকারি বাজারে ব্যবসা করছেন।  তাদের কোনো বৈধ লাইসেন্স নেই।  তাদের কাছে বৈধ কাগজপত্রও পাওয়া যায়নি।  এ নিয়ে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করে আসছেন পুলিশের কাছে।  তাই অবৈধভাবে ব্যবসা পরিচালনা করার পাশাপাশি বাজারে বিশৃঙ্খল সৃষ্টি এবং অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকায় তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারদের আইপিডি সারডাং -এ নেয়া হয়েছে এবং সেকসন ৬ (১) সি অভিবাসন আইন ১৯৫৯/৬৩ অনুসারে তদন্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আইপিডি বিভাগ।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর