মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | আপডেট ৪০ মিনিট আগে

মাঘের শীতে ‘বাঘ কাঁদছে’ পঞ্চগড়ে

মাঘের শীতে ‘বাঘ কাঁদছে’ পঞ্চগড়ে

কথায় বলে মাঘের শীতে বাঘে পালায়। আবার কেউ বলে মাঘের শীতে ‘বাঘ কাঁদে’। সেই মাঘের শীত কামড়ে ধরেছে পঞ্চগড়ের জনজীবন। গত কয়েকদিন সূর্যের দেখা মিললেও আবার হারিয়েছে মুখ। ঠান্ডার প্রকৃতিতেও পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বেড়েছে ঠান্ডার তীব্রতা। পানিতে বরফের মতো ঠান্ডা অনুভূত হচ্ছে। কুয়াশায় আবৃত থাকছে সবকিছু। ঠান্ডায় হাত-পা কেঁপে উঠছে। দিনের বেলা একটু কম হলেও সন্ধার পরেই ঠান্ডা কামড়ে ধরছে যেন।

শহরে সুনসান নিরবতা। বাড়িতে বাড়িতে তাই আগুন পোহানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রহিদুল ইসলাম জানান, গভীর এই শৈত প্রবাহ আরও কিছুদিন চলবে। জানুয়ারির এই শেষ সময়ে দিনের বেলা সূর্যের দেখা মিলতে পারে কিন্তু রাতে হাড় কামড়ানো ঠান্ডা-ই বিরাজ করবে।

পঞ্চগড়ে বিরাজ করছে দেশের সর্ব নিম্ন তাপমাত্রা।

তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অফিসের তথ্য মতে মঙ্গলবার সকাল নয়টায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৭ দশমিক ২ ডিগ্রী সেলসিয়াস। হিমালয়ের হিমবায়ুর প্রভাবে হাড় কাঁপানো শীত বিরাজ করছে এই জেলায়। অব্যাহত শীতের দাপটে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে জনজীবন। সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছে জেলার খেটে খাওয়া মানুষ। বাড়ছে ঠান্ডাজনিত রোগ। শিশুরা নিউমোনিয়া, জ্বর, সর্দি কাশিতে ভূগছে। হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে ঠান্ডাজনিত রোগীর ভিড়। অতিরিক্ত ঠান্ডার কারণে কাজ-কাম কমে গেছে। ফলে আয় কমেছে দিনে আনে দিনে খাওয়া মানুষের।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য