রাতভর নির্যাতনে ক্ষতবিক্ষত ৭ম শ্রেণির ছাত্রী

হুমায়ুন কবির সূর্য্য, কুড়িগ্রাম

রাতভর নির্যাতনে ক্ষতবিক্ষত ৭ম শ্রেণির ছাত্রী

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে সপ্তম শ্রেণির এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে পৈচাশিকভাবে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। মেয়েটির শরীরের বিভিন্ন জায়গায় কামড় ও ক্ষতবিক্ষত করে রাতভর পাশবিক নির্যাতন চালানো হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনা ঘটলেও প্রভাবশালীদের চাপে চিকিৎসা ও মামলা করতে বিলম্ব হয়।

শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে অভিযুক্ত নাজমুলসহ দুজনের বিরুদ্ধে ফুলবাড়ী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেছে নির্যাতিতা মেয়েটির খালা।

স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক উমর আলী, আশরাফ আলী ব্যাপারী, আব্দুস ছালাম ও শমসের আলী জানান, ফুলবাড়ী উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়নের উত্তর অনন্তপুর মোল্লাটারী গ্রামের জনৈক খবিজলের ছেলে নাজমুল ইসলাম ওই মেয়েকে উত্ত্যক্ত করতো। এলাকাবাসী ও মেয়েটির পরিবার এনিয়ে নাজমুলের পরিবারের কাছে একাধিকবার অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পায়নি। মেয়েটির বাবা-মা অর্থনৈতিক দৈন্যতার কারণে কাজের সন্ধানে ভারতের দিল্লীতে একটি ইটভাটায় কাজ করতে যায়। সেখানেই দীর্ঘদিন ধরে তারা অবস্থান করছেন। ভুক্তভোগী মেয়েটি তার খালার বাসায় থেকে স্থানীয় এক মাদ্রাসায় সপ্তম শ্রেণিতে লেখাপড়া করে।

ঘটনার দিন বৃহস্পতিবার (৬ ফ্রেব্রুয়ারি) বিকেলে খালার অনুপস্থিতিতে নাজমুল বাড়িতে ঢোকে। এসময় মেয়েটি টিভি দেখছিল। তাকে একাধিকবার পাশবিক নির্যাতন করে রক্তাক্ত যখম করে। পরে মেয়েটি অজ্ঞান হয়ে পরলে নাজমুল সেখান পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় মেয়েটির খালাসহ পরিবারের লোকজন তাকে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য বাইরে নেওয়ার চেষ্টা করলে নাজমুল ও তার পরিবার বাঁধা দেয়।

মেয়েটির পরিবার যাতে মামলা করতে না পারে এবং ঘটনা যাতে জানাজানি না হয় এজন্য নাজমুলের বাবা খবিজল, চাচা সাইফুল, জাহিদুল ও শহিদুল প্রকাশ্যে বাঁধা দেয়। পুরো পরিবারটিকে তারা অবরুদ্ধ করে রাখে। ৪৮ ঘণ্টা অবরুদ্ধ থাকার পর মেয়েটির শারীরিক অবস্থার আরো অবনতি হলে গ্রামের লোকজন মেয়েটিকে স্থানীয় আশরাফ আলীর ব্যাপারীর বাড়িতে নিয়ে আসে। পরে শুক্রবার রাত ১১টার দিকে ফুলবাড়ি স্বাস্থ্য কপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাতেই তাকে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এ ব্যাপারে ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ রাজীব কুমার রায় জানান, শনিবার দুপুরে ওই শিক্ষার্থীর খালা রেজিয়া বেগম ফুলবাড়ী থানায় বাদী হয়ে অভিযুক্ত নাজমুলসহ আরও একজনের নামে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য