মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ, ২০২০ | আপডেট ৫৯ মিনিট আগে

বন্ডের ৬৭ মাফিয়ার কাছে জিম্মি কাগজ ও কাপড় শিল্প

নিজস্ব প্রতিবেদক

কিছুতেই ঠেকানো যাচ্ছে না বন্ড সিন্ডিকেটদের। বন্ড সম্রাট আবুল হোসেনের ছত্রছায়ায় ৬৭ প্রতিষ্ঠানের হাতে জিম্মি দেশের কাগজ ও কাপড় শিল্পের বাজার। ব্যবসায়ীদের তথ্য মতে, বন্ড সুবিধার অপব্যবহারে প্রতি বছর সরকার হারাচ্ছে ৮০ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব। যেখানে এই এই সিন্ডিকেট হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার কোটি টাকা। তাই দেশের অর্থনীতির স্বার্থে, এই মাফিয়াদের লাগম এখনই টেনে ধরার তাগিদ দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

বন্ডেড ওয়্যারহাউস সুবিধা অপব্যবহারের কারণে প্রতি বছর প্রায় ৮০ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকির তথ্য দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

তাদের অভিযোগ, বন্ড লাইসেন্সধারীদের ওপর কাস্টমস ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর কার্যকর নজরদারি নেই। ফলে চোরাচালানে জড়িত বন্ডের ৬৭ মাফিয়ার কাছে জিম্মি দেশীয় কাপড়, এক্সেসরিজ, সুতা, কাগজ, প্লাস্টিক শিল্প খাতসমূহ।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, এই বন্ড মাফিয়াদের গডফাদার পুরান ঢাকার আবুল হোসেন ওরফে বন্ড আবুল। পুরান ঢাকার কিছু অসাধু পুলিশ কর্মকর্তাদের যোগসাজসে নয়াবাজারে যিনি গড়ে তুলেছেন অবৈধ বন্ড সম্রাজ্য।

এছাড়া এই সিন্ডিকেটে নুরজাহান মার্কেটের ফনিক্স ইন্টারন্যাশনালের মালিক আবদুর রহিম, ফাল্গুনী ট্রেডার্সের মালিক আবুল কালাম সুমন, গ্লোডেন বার্ড ইন্টারন্যাশনালের মালিক অনিল, খালেদ ইন্টারন্যাশনালের মালিক আবদুল মতিন জুয়েল, আলম ট্রেডিংয়ের মালিক আলমগীর হক, বিনিময় পেপারের মালিক দুলাল, রহমত এন্টারপ্রাইজের মালিক রহমত, চৌধুরী মার্কেটের সুজন, হক ট্রেডিংয়ের মালিক জাহাঙ্গীর, সোনা মিয়া মার্কেটে সিটি পেপারের মালিক বাসার, উরিচর মার্কেটের সিয়াম অ্যান্ড সেফা দোকানের মালিক সেলিমের নাম রয়েছে ওপরের সারিতে।

 

এসব বন্ড মাফিয়াদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে অভিযানে জব্দ করা হয়েছে শত শত কোটি টাকার মালামাল। কিন্তু মামলা সুরাহার ক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রতার কারণে মাফিয়াদের এখন পর্যন্ত কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করা যায়নি।

বাংলাদেশ পেপার মিলস এসোসিয়েশনের মহাসচিব মুস্তফা কামাল মহিউদ্দিনের দাবি, কেবল ব্যবসায়ী নয়, জাতীয় স্বার্থে বন্ড অপব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অ্যাকশনে যাওয়া উচিৎ।

দেশের অর্থনীতিকে বন্ড অপব্যবহারকারী চক্রের হাত থেকে বাঁচাতে না পারলে বাধাগ্রস্ত হবে জাতীয় উন্নয়ন, এমনটাই মত ব্যবসায়ীদের।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য