বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ | আপডেট ০৬ ঘণ্টা ৩১ মিনিট আগে

সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারী বন্ড সন্ত্রাসী নয়নের স্বীকারোক্তি

অনলাইন ডেস্ক

সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারী বন্ড সন্ত্রাসী নয়নের স্বীকারোক্তি

পুরান ঢাকার নয়বাজার এলাকায় বন্ড চোরাকারবারিরা পূর্বপরিকল্পনায় সাংবাদিকদের ওপর হামলা করে। বুধবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে বেসরকারি টেলিভিশন নিউজ টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার বন্ড সন্ত্রাসী মেহেদী হাসান নয়ন এই স্বীকারোক্তি দেন।

আসামি নয়নসহ অন্য চারজনকে বুধবার আদালতে হাজির করা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বংশাল থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) নুর আলম মিয়া আসামি নয়নের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী লিপিবদ্ধ করার আবেদন করেন। 

ভারপ্রাপ্ত মুখ্য মহানগর হাকিম কায়সারুল ইসলাম আসামির জবানবন্দী গ্রহণ করার জন্য ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদারের কাছে পাঠান। পরে হাকিমের খাসকামরায নয়ন জবানবন্দী দেন। হাকিম আসামিকে যথেষ্ট সময় দিয়ে নয়নের জবানবন্দী ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় লিপিবদ্ধ করেন।

আদালত সূত্র জানায়, আসামি নয়ন সাংবাদিকদের ওপর হামলার দায় স্বীকার করেছেন। তিনি আদালতকে জানান, তিনি নিজেও বন্ড সুবিধায় আনা কাগজের ব্যবসা করেন। গত বেশ কিছুদিন যাবৎ বন্ড সুবিধায় আনা কাগজের কেনাবেচা নিয়ে সাংবাদিকরা বিভিন্ন নিউজ করছে। এই বিষয়টিতে ব্যবসায়ীরা ক্ষুব্ধ হয়। গতকাল মঙ্গলবার কাস্টম কমিশনারেট তাদের নয়বাজার ও এর আশেপাশের এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় সাংবাদিকরা আসতে পারে এটা জেনেই ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন স্থানে পাহারা বসায়। সাংবাদিকরা এলে হামলা করা হবে এই পরিকল্পনা হয়।

ওই পরিকল্পনার অংশ হিসাবে নয়ন ও তার সঙ্গীয় অনেকে নয়বাজারের কাছে বাবুবাজার মাজারের কাছে অবস্থান নেন। দুপুরের দিকে নিউজ টোয়েন্টিফোরের একটি গাড়ি দেখেই তারা ঝাঁপিয়ে পড়ে। গাড়ি থেকে দুইজন সাংবাদিককে টেনেহিঁচড়ে বের করে তারা এলোপাতারি মারতে থাকেন। এবং সাংবাদিকদের ক্যামেরা ও গাড়ি ভাংচুর করে।

সূত্র আরও জানায়, নয়ন তার স্বীকারোক্তিতে এই হামলার সঙ্গে কারা জাড়িত ছিল তাদের নাম বলেছেন। পরিকল্পনায় ছিল বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী যারা বন্ড সুবিধায় আনা কাগজের ব্যবসা করেন। যারা হামলায় অংশ নেন তারাও ওইসব ব্যবসায়ী নেতাদের নির্দেশে এই কাজ করেছে। তাদের পরিকল্পনা ছিল সাংবাদিকদের অভিযান যেখানে চলছিল সেখানে ঢুকতে দেওয়া হবে না। 

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর/কামরুল 

মন্তব্য