রবিবার, ৫ এপ্রিল, ২০২০ | আপডেট ৫১ মিনিট আগে

সিফিলিস কি, কোথায় কোথায় হয়?

অনলাইন ডেস্ক

সিফিলিস কি, কোথায় কোথায় হয়?

সিফিলিস কি?

বাংলায় ফিরিঙ্গি রোগ বা গর্মি রোগ বা উপদংশ স্পিরোসেত ব্যাকটেরিয়া ট্রেপোনেমা পেলিডাম উপজাত পেলিডাম দ্বারা সৃষ্ট একটি যৌনবাহিত রোগ সিফিলিস। সংক্রমণের প্রাথমিক পথ যৌন সংস্পর্শ; তাছাড়াও রক্ত পরিসঞ্চালন, চুম্বন, চামড়ার আঘাতপ্রাপ্তি এবং গর্ভাবস্থায় বা জন্মের সময় মায়ের কাছ থেকে ভ্রূণে সংক্রমিত হতে পারে (যাকে কনজেনিটাল সিফিলিস বলা হয়)। সিফিলিস ব্যাক্টেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত একটি জটিল যৌন সংক্রামক রোগ। এটি নারী-পুরুষ উভয়ের যৌনাঙ্গ, ঠোট, মুখ ও পায়ু পথে আক্রমণ করে।

সিফিলিস এর প্রধান বৈশিষ্ট্য-
১ম ধাপ- Chancre বা ব্যথাহীন ক্ষত।
২য় ধাপ- চর্মে লালচে দাগ।
সুপ্তাবস্থা- এখানে কোনো লক্ষণ দেখা যাবে না।
৩য় ধাপ- কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রে এবং কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেমে সংক্রামণ ঘটায়।

সিফিলিসের লক্ষণ:
প্রাথমিক স্তরে এটি সংক্রমণের স্থানে আলসার তৈরি করে। যাই হোক, ব্যাকটেরিয়া শরীরে প্রবেশ করে সময়ের সঙ্গে দেহের অনেক গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের ক্ষতি করে। মেডিকেল বিশেষজ্ঞরা সিফিলিসকে চারটি পর্যায়ে ভাগ করে যথা- প্রাথমিক, দ্বিতীয়, প্রচ্ছন্ন এবং তৃতীয়। একজন চিকিৎসাহীন আক্রান্ত ব্যক্তি সাধারণত প্রথম দুটি স্তর অর্থাৎ প্রথম ১ থেকে ২ বছর অন্যদের সংক্রামিতকরতে পারে। শেষ পর্যায়ে চিকিৎসাহীন ব্যক্তি সংক্রামক নয়, কিন্তু এ পর্যায়ে আক্রান্ত ব্যক্তির হৃদযন্ত্রের গুরুতর অস্বাভাবিকতা, মানসিক বিকৃতি বা ভারসাম্যহীনতা, অন্ধত্ব, অন্যান্য স্নায়ুর সমস্যা এবং মৃত্যুর পর্যন্তও হতে পারে।

সিফিলিসের সেরোলজিক্যাল পরীক্ষা:
VDRL(ভেনেরাল ডিজিজ রিসার্স ল্যাবরেটরি) পরীক্ষা
TPHA(ট্রেপোনেমা প্যালিডাম হেমাগ্লুটিনেশন

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য