রবিবার, ২৯ মার্চ, ২০২০ | আপডেট ২০ মিনিট আগে

করোনায় ফ্রান্সের ৩ চিকিৎসকের মৃত্যু, বয়স ৬০, ৬৬, ৬৮

অনলাইন ডেস্ক

করোনায় ফ্রান্সের ৩ চিকিৎসকের মৃত্যু, বয়স ৬০, ৬৬, ৬৮

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ফ্রান্সের তিন চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। তারা উত্তর-পূর্ব ফ্রান্সের গ্র্যান্ড এস্ট অঞ্চলের।

সোমবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে ফ্রান্স ন্যাশনাল হেলথ এজেন্সি।

আনাদোলুর খবরে বলা হয়, আক্রান্তদের বয়স ষাটোর্ধ্ব। এদের মধ্যে একজনের বয়স ৬০, আরেকজনের ৬৬ এবং অন্য চিকিৎসকের বয়স ছিল ৬৮ বছর।

করোনা ভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় ফ্রান্সে ১৮৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এটি দেশটিতে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। এ নিয়ে করোনায় দেশটিতে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ৮৬০ জনে।

এ ভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় তিন হাজার ৮৩৮ জনসহ দেশটিতে এ পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছে ১৯ হাজার ৮৫৬ জন। এর মধ্যে মাত্র ২ হাজার ২০০ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

প্যারিস পাবলিক হাসপাতালের এক মুখপাত্র জানান, সব মিলিয়ে প্যারিস অঞ্চলে ৪৯৯ মেডিকেল কর্মী করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে ৩২ শতাংশ চিকিৎসক এবং ১৫ শতাংশ নার্স। এ ছাড়া রোগীদের মধ্যে তিনজনকে রাখা হয়েছে নিবিড় পরিচর্যায়।

এদিকে বাংলাদেশে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ছয়জন। এর মধ্যে একজনের মৃত্যু, একজন বিদেশ ভ্রমণ করে ফিরেছেন এবং বাকি চারজন সংস্পর্শে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) বিকেল তিনটায় এ তথ্য জানান রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ড. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা।

গত ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের উহানে প্রথম শনাক্ত হওয়া করোনা ভাইরাস এখন বৈশ্বিক মহামারি। বিশ্বের ১৯৫টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এ ভাইরাসটি। এখন পর্যন্ত এই প্রাণঘাতী ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা তিন লাখ ৭৮ হাজার ৮৪৮ এবং মারা গেছেন ১৬ হাজার ৫১৪ জন। অপরদিকে চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে এক লাখ দুই হাজার ৬৯ জন।

বাংলাদেশে এ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে গত ৮ মার্চ। এরপর দিন দিন এ ভাইরাসে সংক্রমণের সংখ্যা বেড়েছে। সর্বশেষ হিসাবে দেশে এখন পর্যন্ত ৩৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গেছেন চারজন।

করোনার বিস্তাররোধে এরই মধ্যে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে সভা-সমাবেশ ও গণজমায়েতের ওপর। চারটি দেশ ও অঞ্চল ছাড়া সব দেশ থেকেই যাত্রী আসা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য