নাটোরে নির্দেশ অমান্য, তোলা হচ্ছে কিস্তির টাকা

নাসিম উদ্দীন নাসিম, নাটোর

নাটোরে নির্দেশ অমান্য, তোলা হচ্ছে কিস্তির টাকা

করোনা ভাইরাসের কারণে নাটোরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শাহরিয়াজ জেলায় সকল এনজিওর কিস্তি আদায় স্থগিতের ঘোষণা দেন। এতে দিনমজুর মানুষদের স্বস্তি ফিরে আসে। তবে এই নির্দেশ মানছে না অধিকাংশ এনজিও এর মাঠকর্মীরা। এই নিয়ে ঋণ গ্রহিতাদের মধ্যে ক্ষোভ বাড়ছে।

রোববার (২২ মার্চ) সন্ধ্যায় জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির অনুষ্ঠিত সভায় এ নির্দেশ দেন।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে নাটোরে কিস্তির বন্ধের সংবাদ প্রকাশিত হয়। জেলা প্রশাসকের ফেসবুক আইডিতে নাটোর জেলার সকল এনজিও কে কিস্তি আদায় না করার জন্য অনুরোধ করেন। তিনি তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন করোনা প্রতিরোধে দরিদ্র মানুষের অবস্থা বিবেচনা করে জেলায় সকল এনজিও’র কিস্তি আদায় স্থগিত রাখার অনুরোধ করা হলো। এ নির্দেশনা জারির পর থেকে অন্তত পক্ষে অর্ধশত জেলাবাসী তাদের সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকের টাইমলাইনে জেলা প্রশাসক মো. শাহরিয়াজ এর ছবি শেয়ার করে তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছেন।

এদিকে নাটোরের জেলা প্রশাসকের অনুরোধের পরও এনজিওগুলো তাদের কিস্তি আদায় অব্যাহত রেখেছে।

সোমবার ও মঙ্গলবার বেশ কয়েকটি এনজিও'র নাটোর কার্যালয়ের মাঠে কর্মীরা তাদের এনজিওর ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে এক প্রকার জুলুম করে কিস্তির টাকা আদায় করছে।

এক ঋণগ্রহীতা জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে ব্যবসায় মন্দা যাচ্ছে। এরপরও এনজিওগুলোর মাঠকর্মীদের চাপ ও
অত্যাচারে অতিষ্ঠ ঋণগ্রহীতা।

তবে চাপ দিয়ে টাকা আদায়ের কথা অস্বীকার করেছে (আরআরএফ) এনজিও কর্মী মিজান।

তিনি বলেন, তাদের কোনো গ্রাহককে চাপ দিয়ে টাকা আদায় করা হয় না। কিন্তু মঙ্গলবার সকালে শহরের তেবাড়িয়া
এলাকায় গিয়ে দেখা যায় উত্তরা ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম সোসাইটি (টউচঝ) এবং রুরাল রিকনস্ট্রাকশন ফাউন্ডেশন (আরআরএফ) মাঠকর্মীরা কোনো প্রকার সাবধানতা অবলম্বন করে ৩০ থেকে ৪০ জন কর্মী নিয়ে উঠান বৈঠক করে জোরপূর্বক কিস্তি আদায় করছে।

১০ দিনের সাধারণ ছুটিতে সবচাইতে বেশি বিপদে পড়বেন নিম্ব আয়ের লোকজন। যারা দিন চলেন দিনের আয় দিয়েই। বিশেষ করে, সিএনজি, বাস ও রিকশাচালক, চা বা ফল ও সবজি বিক্রেতা, বিভিন্ন কারখানার শ্রমিক ইত্যাদি। এরকম একটা
দুর্যোগপূর্ণ সময়েই কিস্তি আদায়ে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, করোনা ভাইরাস আতঙ্কে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না অধিকাংশ মানুষ। শহরের রাস্তা-ঘাট প্রায় ফাঁকা। এতে করে বিপাকে পড়েছে শ্রমিক, দিনমজুর, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও নিম্ন আয়ের মানুষ।

নাটোর পৌর শহরের রিক্সা চালক তেবাড়িয়া গ্রামের বৃদ্ধ মজিদ মিয়া বলেন, তাঁর পরিবারে ৮ জন সদস্য। প্রতি সপ্তাহে এনজিও’র কিস্তি দিতে হয় ১৪শ টাকা।

তিনি বলেন, বর্তমানে শহরে মানুষ কমে গেছে এখন তার আয় নাই। কি করে সংসার চলবে আর এনজিওর কিস্তি কীভাবে পরিশোধ করবে এ নিয়েই তিনি চিন্তিত হয়ে পড়েছেন।

এদিকে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে নিয়মিত কিস্তি নিচ্ছে এনজিওগুলো।

এই জন্য কারোনা প্রাদুর্ভাব না কাটা পর্যন্ত এনজিওর কিস্তি বন্ধ রাখার জন্য সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষ।

রুরাল রিকনস্ট্রাকশন ফাউন্ডেশন (আরআরএফ) শাখার ম্যানেজার মমিনুল হক জানান, কিস্তি আদায় বন্ধে আমাদের কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি তাই আমরা যথারীতি মাঠে কাজ করছি। আর জেলা প্রশাসকের নির্দেশ মানতে আমার বাধ্য নয়। আমার প্রতিষ্ঠান আমাকে কিস্তি বন্ধের নির্দেশ দিলে আমি শুনব ।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বড় ভাইকে হত্যা করে লাশ মাটিচাপা

মো. হৃদয় খান, নরসিংদী

 বড় ভাইকে হত্যা করে লাশ মাটিচাপা

নরসিংদীর মাধবদীতে নিখোঁজের ৭ দিন পর সোহাগ মিয়া (২২) নামে একজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সন্দেহবশত স্থানীয়রা ৯৯৯ এ ফোন দিলে মঙ্গলবার (৯ মার্চ) দুপুর ১২ টার দিকে মাধবদী থানার দাইরের পাড় গ্রাম থেকে মাটি খুঁড়ে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহত সোহাগ মাধবদী থানার দাইরের পাড় গ্রামের সানাউল্লাহ মিয়ার ছেলে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করা হয়েছে।

এর আগে পারিবারিক কলহের জেরে ছোট ভাই জহিরুল ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে সোহাগের মাথায় আঘাত করে তাকে হত্যা করে লাশ মাটির নীচে পুঁতে রাখে।

জানা যায়, ২ মার্চ রাতে সোহাগ নেশাজাতীয় দ্রব্য পান করে বাড়িতে ফিরে। এসময় সোহাগ রাগারাগি করে তার মাকে গালিগালাজ ও মারধর করে। এতে তার বাবা বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে তাকেও মারধর করে। পরে ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে শীলতাহানির চেষ্টা করে নেশাগ্রস্ত সোহাগ। 


টেকনাফে বিজিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

‘সহবাসে’ নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত সায়নীর (ভিডিও)

অতিরিক্ত আইজিপি মাহবুব হোসেনের চুক্তির মেয়াদ বাড়ল

মেসেঞ্জারে আপত্তিকর ছবি পাঠিয়ে কলেজছাত্রীকে অনৈতিক প্রস্তাব


এসময় ছোট ভাই জহিরুল ক্ষিপ্ত হয়ে ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে সোহাগের মাথায় আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে সোহাগের লাশ বাড়ির পাশের একটি পুকুর পাড়ে মাটিচাপা দিয়ে লাশ গুম করে রাখা হয়। এদিকে কয়েকদিন ধরে সোহাগকে দেখতে না পেয়ে সন্দেহ হওয়ায় স্থানীয়রা ৯৯৯ ফোন করে ঘটনাটি অবহিত করেন। 

পরে মাধবদী থানা পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করে। এসময় পুলিশ নিহতের দুই ছোট ভাইয়ের স্ত্রীদের আটক করলে তাদের দেয়া তথ্যমতে বাড়ির পাশের একটি পুকুরের পাড় থেকে ভেকু মেশিন দিয়ে মাটি খুঁড়ে সোহাগের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। 

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মাদারীপুরে পরকীয়ার অভিযোগে আপত্তিকর অবস্থায় প্রেমিক-প্রেমিকা আটক

অনলাইন ডেস্ক

মাদারীপুরে পরকীয়ার অভিযোগে আপত্তিকর অবস্থায় প্রেমিক-প্রেমিকা আটক

মাদারীপুরের ডাসারে রাতের আঁধারে পরকীয়ার অভিযোগে রাজন বেপারী(২৩) নামে এক যুবক ও এক প্রবাসির স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা। পরে সোমবার রাতে তাদের দু'জনকে কারাগারে প্রেরন করেছেন থানা পুলিশ। আটক হওয়া যুবক পৌর এলাকার বিভাগদী গ্রামের খায়রুল বেপারীর ছেলে। 

মামলা ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ডাসারের বালিগ্রাম এলাকার পশ্চিমবালী গ্রামের সিঙ্গাপুর প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে রাজন বেপারীর দীর্ঘদিন ধরে পরকীয়ার সম্পর্ক চলছিল। এ সম্পর্কের জের ধরে রাজন বেপারী সোমবার গভীর রাতে গোপনে দেখা করার জন্য ওই প্রবাসীর স্ত্রীর ঘরে যায়।

এ বিষয়টি টের পেয়ে স্থানীয় লোকজন প্রেমিক রাজন বেপারী ও প্রবাসীর স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় ওই ঘরের মধ্যেই আটক করে রাখে। 


যে কারণে অভিনয় ছেড়েছিলেন প্রয়াত নায়ক শাহীন আলম

কলকাতায় বহুতল ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত ৯

নামাজে মুস্তাহাব কাজগুলো কী জেনে নিন

কেয়ামতের দিন যে সূরা বান্দার হয়ে আল্লাহর কাছে সুপারিশ করবে


পরে ডাসার থানা পুলিশের হাতে তাদের দু'জনকেই সোপর্দ করেন স্থানীয় লোকজন। থানা পুলিশ পরকীয়ার অপরাধে রাজন ও প্রবাসীর স্ত্রীকে মঙ্গলবার সকালে মাদারীপুর জেলহাজতে প্রেরন করেন।

স্থানীয় আনোয়ার হোসেনসহ বেশ কেয়কজন বলেন, রাজন বেপারী ওই প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়ার জের ধরে অনৈতিক কর্মকান্ড করার সময় এলাকাবাসী তাদের দুজনকে আটক করেন। পরে তাদের দুজনকেই পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়।

সিঙ্গাপুর প্রবাসী বলেন, আমার অনুপস্থিতিতে রাজন বেপারী ও আমার স্ত্রী দুজনে মিলে অবৈধ সম্পর্ক করে আসছে। আমি তাদের দৃষ্টান্তমুল বিচার চাই।

এ ব্যাপারে ডাসার থানার ওসি হাসানুজ্জামান বলেন, পরকীয়ার অপরাধে তাদের দুজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। তাদেরকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পুলিশের কোটিপতি স্ত্রী কারাগারে

অনলাইন ডেস্ক

পুলিশের কোটিপতি স্ত্রী কারাগারে

সিআইডির উপপরিদর্শক (এসআই) মো. নওয়াব আলীর কোটিপতি স্ত্রী গোলজার বেগমকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।  মঙ্গলবার (০৯ মার্চ) সকালে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালতে হাজির হয়ে আত্মসমর্পণের আবেদন করেন। বিচারক জামিন আবেদন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

দুদকের আইনজীবী মাহমুদুল হক সংবাদমাধ্যমকে বলেন, দুর্নীতির মামলায় আজ আদালতে আত্মসমর্পণ করেন আসামি গোলজার বেগম। তিনি আদালতে জামিন চান। দুদকের পক্ষ থেকে জামিনের বিরোধিতা করা হয়। পরে আদালত গোলজার বেগমকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

তিনি আরও জানান, এই মামলায় দুদকের দেওয়া অভিযোগপত্র গ্রহণ করে গোলজার বেগম, তার স্বামী এসআই নওয়াব আলীসহ চার আসামির বিরুদ্ধে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। কিন্তু আসামিরা ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিলেন। পত্রিকায় এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশের পর আসামি গোলজার বেগম আজ আত্মসমর্পণ করেন। এই মামলায় আগামী ৬ এপ্রিল শুনানির পরবর্তী তারিখ ধার্য রয়েছে।

দুদক সূত্র জানায়, ১৯৯২ সালে কনস্টেবল পদে যোগ দেন নওয়াব আলী। তিনি দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত টাকার মালিক সাজিয়েছেন স্ত্রী গোলজার বেগমকে। মাছ চাষ থেকে এক কোটি ১০ লাখ আয় টাকা করেছেন বলে কাগজপত্রে দেখালেও বাস্তবে মাছ চাষের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। তারপরও মাছ চাষ করা হয় মর্মে কর কর্মকর্তারা প্রতিবেদন দিয়েছেন।


টেকনাফে বিজিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

‘সহবাসে’ নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত সায়নীর (ভিডিও)

অতিরিক্ত আইজিপি মাহবুব হোসেনের চুক্তির মেয়াদ বাড়ল

মেসেঞ্জারে আপত্তিকর ছবি পাঠিয়ে কলেজছাত্রীকে অনৈতিক প্রস্তাব


এসআই নওয়াব আলী, তার স্ত্রী গোলজার বেগম, কর অঞ্চল-১ চট্টগ্রামের অতিরিক্ত সহকারী কর কমিশনার (বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত) বাহার উদ্দিন চৌধুরী ও কর পরিদর্শক দীপংকর ঘোষকে আসামি করে আদালতে দুদক অভিযোগপত্র দিয়েছে।

দুদক তদন্তে পেয়েছে, নওয়াব আলীর গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ সদরের কেকানিয়া এলাকায়। সেখানে ২০১৩ সালে ৬ দশমিক ৯০ শতাংশ জমির ওপর একটি দোতলা বাড়ি নির্মাণ করেছেন নিজের নামে। স্ত্রী গোলজারের নামে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার ছলিমপুরে ৩৫৪ শতক জমি, চট্টগ্রাম শহরের লালখান বাজার এলাকায় পার্কিংসহ এক হাজার ১০০ বর্গফুটের ফ্ল্যাট, একই এলাকায় ৪ শতক জমি রয়েছে। গোলজারের নামে একটি মাইক্রোবাসও রয়েছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ছোট ভাইকে কুপিয়ে হত্যার পর বড় ভাইয়ের আত্মহত্যা

শাকিলা ইসলাম জুই, সাতক্ষীরা

ছোট ভাইকে কুপিয়ে হত্যার পর বড় ভাইয়ের আত্মহত্যা

সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা থানায় ছোট ভাইকে কুপিয়ে হত্যার পর গলায় রশ্নি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বড় ভাই। মঙ্গলবার (৯ মার্চ) সকাল ৯টার দিকে কলারোয়া উপজেলার খোরদো বাটরা এলাকার একটি বাগান থেকে বড় ভাই শাহজাহান আলীর মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ। এর আগে রোববার (৭ মার্চ) রাত ৯টার দিকে কুপিয়ে ছোট ভাই মোস্তফা মল্লিককে কুপিয়ে হত্যা করেন শাহজাহান আলী। 

নিহত শাহজাহান আলী পাটকেলঘাটা থানার কুমিরা ইউনিয়নের জগনন্দকাটি গ্রামের মজিদ মল্লিকের ছেলে।

কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর খায়রুল কবির জানান, স্থানীয়দের দেওয়া তথ্যের পর খোরদো বাটরা এলাকার একটি বাগান থেকে শাহজাহান আলীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, তিনি আত্মহত্যা করেছেন। মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। খোঁজখবর নিয়ে জেনেছি, শাহজাহান আলী পার্শ্ববর্তী পাটকেলঘাটা থানার একটি হত্যা মামলার প্রধান আসামী।


যে কারণে অভিনয় ছেড়েছিলেন প্রয়াত নায়ক শাহীন আলম

কলকাতায় বহুতল ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত ৯

নামাজে মুস্তাহাব কাজগুলো কী জেনে নিন

কেয়ামতের দিন যে সূরা বান্দার হয়ে আল্লাহর কাছে সুপারিশ করবে


পাটকেলঘাটা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাজী ওয়াহিদ মুর্শেদ জানান, জমি নিয়ে দুই ভাইয়ের মধ্যে বিরোধ চলছিল। সেই সুত্র ধরে ঝগড়ার এক পর্যায়ে বড় ভাই শাহজাহান আলী ছোট ভাই মোস্তফা মল্লিককে দা দিয়ে কুপিয়ে আহত করে। পরে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথিমধ্যে তিনি মারা যান। 

এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী মারুফা আক্তার বাদী হয়ে শাহজাহান মল্লিক, তার স্ত্রী নাহার মল্লিক ও স্থানীয় বাবুল বিশ্বাসসহ অজ্ঞাত আরও পাঁচজনকে আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

তিনি বলেন, মামলাটি তদন্ত করছে পিবিআই। এরই মধ্যে মামলার প্রধান আসামীর ঝুলন্ত মরদেহ পার্শ্ববর্তী থানা এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

শিশু নিয়ে বিপাকে স্বামী

ছেলের স্ত্রী নিয়ে পালালো শ্বশুর!

অনলাইন ডেস্ক

ছেলের স্ত্রী নিয়ে পালালো শ্বশুর!

লালমনিরহাটে ছেলের বউ গৃহবধূ সুখী রানীকে নিয়ে পালিয়ে যান শ্বশুর প্রদীপ কুমার। এই ঘটনায় গতকাল সোমবার রাতে স্বামী হৃষিকেশ অধিকারী কালীগঞ্জ থানায় স্ত্রীকে অপহরণের অভিযোগে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

শুক্রবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার দলগ্রাম ইউনিয়নে। এমন ঘটনায় ওই এলাকায় চাঞ্চল্য তৈরী হয়েছে। 

পারিবারিক সুত্রে জানাগেছে, গত ৫ বছর আগে হৃষিকেশ অধিকারীর (৩০) সঙ্গে সুখী রানীর (২৫) বিয়ে হয়। পরে তাদের একটি পুত্র সন্তানও হয়। বিয়ের পর তিন-চার বছর তাদের সংসার সুখেই কাটে। তবে সম্প্রতি প্রদীপ কুমারের সঙ্গে সুখীর পরকিয়ার সম্পর্ক তৈরি হয়।


টেকনাফে বিজিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

‘সহবাসে’ নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত সায়নীর (ভিডিও)

অতিরিক্ত আইজিপি মাহবুব হোসেনের চুক্তির মেয়াদ বাড়ল

মেসেঞ্জারে আপত্তিকর ছবি পাঠিয়ে কলেজছাত্রীকে অনৈতিক প্রস্তাব


এ বিষয়ে কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরজু মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘অভিযোগ পেয়ে তদন্ত চলছে। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এ বিষয়ে সুখীর স্বামী হৃষিকেশ বলেন, ‘প্রদীপ আমাকে ছেলে বানায়। এরপর তিনি আমার বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত করতেন। তিনি এমন সর্বনাশ করবেন তা আমি বুঝতে পারিনি। এখন আমার এক বছরের শিশুকে নিয়ে আমি কী করব?’

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর