শনিবার, ২৮ মার্চ, ২০২০ | আপডেট ০১ মিনিট আগে

ঝালকাঠিতে সেনাবাহিনীর টহল শুরু, রাস্তাঘাট ফাঁকা

ঝালকাঠি প্রতিনিধি

ঝালকাঠিতে সেনাবাহিনীর টহল শুরু, রাস্তাঘাট ফাঁকা

নোভেল করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সিভিল প্রশাসনকে সহায়তা করতে প্রথমবারের মত ঝালকাঠিতে সেনাবাহিনীর টহল শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে পটুয়াখালীর লেবুখালী শেখ হাসিনা সেনানিবাস থেকে দুটি গাড়ি করে ঝালকাঠিতে পৌঁছায় সেনাবাহিনীর এ দলটি।

সেনা বাহিনী মাইকিং করে সতর্ক করছে। জরুরি প্রয়োজনে মাস্ক ছাড়া ও বিনা কারণে ঘোরাঘুরি করলে ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দেন তারা। 

পাশাপাশি পুলিশ বাহিনীও জেলার বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে সতর্ক করছে জনসাধারণকে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া জনসাধারণকে রাস্তায় বের না হওয়ার জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বাহিরে দুইজনের বেশি লোক একত্রিত হলেই পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ দিচ্ছে। 

এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ২ জনসহ বর্তমানে এ জেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ১২৫ জন।
জেলা শহরের বাজার রোড, লঞ্চঘাট, ব্যাকমোড়, কলেজ মোড়, ও সাধনের মোড়, চাঁদকাঠী মোড়সহ জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে টহল দেন সেনা সদস্যরা। জেলার উপজেলাগুলোতে সেনা সদস্যরা টহল দিয়েছেন। লেবুখালী সেনানিবাস থেকেই তারা এই কার্যক্রম চালাবেন বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসন। 

জেলা প্রশাসনের বেশ কয়েকটি টিম ও জেলা পুলিশের কয়েকটি ইউনিট সার্বক্ষনিক মাঠে কাজ করছে। করোনাভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে ও বাজার দর স্থিতিশীল রাখতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে সিভিল প্রশাসন। মানুষকে ঘরে রাখা নিশ্চিত করতে শহরজুড়ে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সেইসাথে টহলে রয়েছে সেনাবাহিনী। 

প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানের কারণে জনশূন্য হয়ে পড়েছে ব্যস্ততম ঝালকাঠি শহর। স্বাধীনতা দিবসের সকল অনুষ্ঠান বাতিল হওয়ায় সকাল থেকেই জন শূন্য রয়েছে স্বাধীনতা স্মৃতিস্তম্ভ ও শিল্পকলা একাডেমী। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ওষুধ ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান ছাড়া সকল প্রকার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে।

একইসাথে জরুরি সেবাপ্রদানকারী দফতর ব্যতীত সকল সরকারি-বেসরকারি অফিস এবং যাত্রীবাহী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

ঝালকাঠি জেলা প্রশাসন জানায়, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় রাজনৈতিক দল ও ধর্মীয় সকল প্রকার সমাবেশ, গণজমায়েত বন্ধ করা, ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনাসহ জেলার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে সেনাবাহিনী সহযোগিতা করবে।

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর/কামরুল

মন্তব্য