বৃহস্পতিবার, ৪ জুন, ২০২০ | আপডেট ২৩ মিনিট আগে

ইউরোপীয় নেতাদের আবেদন, প্রবাসী হয়রানি বন্ধ করুন

অনলাইন ডেস্ক

ইউরোপীয় নেতাদের আবেদন, প্রবাসী হয়রানি বন্ধ করুন

ইউরোপে অবস্থিত প্রবাসী নেতা, সামাজিক ও উন্নয়ন কর্মী ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব গতকাল প্রকাশিত এক যৌথ বিবৃতিতে বাংলাদেশী কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যে বাংলাদেশে ফিরে আসা প্রবাসী ও অভিবাসী কর্মীদের হয়রানির শিকার হচ্ছে। তাদের প্রতি মানবিক আচরণ প্রদর্শন করার জন্য বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের কাছে তারা আবেদন করেন।

তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও আবেদন করেছেন যেন সেবার ক্ষেত্রে অভিবাসীদের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে এবং যারা তাদের বসতি দেশে ফিরে যেতে ইচ্ছুক তাদের সহায়তা করার জন্য।

তারা বলেন, রেমিট্যান্স বাংলাদেশের জিডিপি’র প্রবৃদ্ধির সর্বাত্মক। বাংলাদেশী অভিবাসী তাদের কঠোর শ্রম দেশটির জন্য ত্যাগ করে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। বাংলাদেশী অভিবাসী বার্ষিক ষোল বিলিয়ন ডলারের রেমিট্যান্স প্রেরণ করে যা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

সাম্প্রতিক দিনগুলিতে করোনার ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পরে স্বল্প সংখ্যক অভিবাসী বাংলাদেশে ফিরে এসেছিলেন। তবে উদ্বেগের সাথে আমরা পর্যবেক্ষণ করছি যে সোশ্যাল মিডিয়ায় অভিবাসীদের বিদেশ থেকে করোনার ভাইরাস আনার জন্য দোষ দেওয়া হচ্ছে। দুর্ভাগ্যক্রমে, এর ফলস্বরূপ, প্রত্যাবাসিত অভিবাসীদের অপমান ও শারীরিক নির্যাতন করা হচ্ছে বাংলাদেশের অনেক জায়গায়। প্রত্যাবাসিত অভিবাসীদের পাশাপাশি বিদেশী কর্মী সহ কয়েক হাজার মানুষ বিদেশ থেকেও দেশে ফিরে এসেছিলেন।

সাম্প্রতিক দিনগুলিতে করোনার ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের ফলে হাজার হাজার বাংলাদেশী অভিবাসী ইতালি ও স্পেন সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চাকরি হারিয়েছেন। করোনার ভাইরাস বিশ্বব্যাপী মহামারী আকার ধারণ করেছে এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লুএইচও) ১১ মার্চ ২০২০ সালে করোনাকে মহামারী হিসাবে ঘোষণা করেছে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো এই ভাইরাসটিও বাংলাদেশে প্রভাব ফেলেছে।

মন্তব্য