সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০ | আপডেট ০৪ মিনিট আগে

এই সমন্বয়হীনতা আমাদের কোন মৃত্যুপুরীর দিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে ?

বাণী ইয়াসমিন হাসি

এই সমন্বয়হীনতা আমাদের কোন মৃত্যুপুরীর দিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে ?

এখন অতিকথনের সময় না। চারদিকে যে সমন্বয়হীনতা এটার সমাধান দরকার এখন এই মুহূর্তেই। শুরুতেই সমস্যার গোড়ায় নজর দেওয়া যাক। জনাব ডিজি হেলথের একটা সংগঠন আছে যার নাম ‘প্ল্যাটফরম’। এখানকার অধিকাংশ ডাক্তারই প্রাইভেট মেডিকেলের।

স্বাচিপ, বিএমএ বা ছাত্রলীগ করা সবাইকে সাইড করে রেখেছেন ডিজি মহোদয়। স্বাস্থ্যখাতে আজকের যে অস্থিরতা সেটা হলো একজন যোগ্য নেতার হাতে নেতৃত্ব না থাকার ফল। ডিজি হেলথের সামর্থ্য নেই সারা দেশের ডাক্তার নার্সদের উজ্জীবিত করার বা একত্রিত করার। মনে রাখতে হবে এটা একটা যুদ্ধ। আমরা যুদ্ধকালীন সময় পার করছি। এই যুদ্ধে প্রথমসারির যোদ্ধা হলেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। তাদের জন্য প্রণোদনা মোটিভেশন যা যা দরকার সব করেন প্লিজ। পৃথিবীর অনেক দেশেই এখন ডাক্তার নার্সদের অবসর ভেঙে পেশায় যোগ দেওয়াচ্ছে। এটাও ভাবনার দাবি রাখে।

৭১’এ দেশের জন্য লড়েছিলো লাখো তরুণপ্রাণ। ছাত্রলীগ করা পাপ না। শেখ হাসিনার প্রশ্নে, দেশের প্রশ্নে, মানুষের প্রশ্নে ছাত্রলীগ করা এই ডাক্তাররা আপোষহীন। এরা যুদ্ধের ময়দান ছাড়বে না। অন্তত একবার আমার কথাটা বিশ্বাস করেন মাননীয় দায়িত্বশীলেরা। এদেরকে কিছু দায়িত্ব দেন। নিজেদেরকে প্রমাণ করার একটা সুযোগ দেন।আপনারা না হয় একটু পেছনে থাকেন। মূল লড়াইটা এই তরুণদের লড়তে দেন।

সারা বাংলাদেশে স্বাচিপ ও বিএমএর এর মধ্যে মতদ্বৈততা থাকলেও চলমান সংকটে তারা একসাথে কাজ করবে বলে আমার বিশ্বাস। সারাদেশে উপজেলা পর্যন্ত তাদের নিজেদের অনুসারী রয়েছে। রাজনৈতিক এই  শক্তিকে এই মুহূর্তে চলমান সংকট মোকাবেলায় সরকারের কাজে সম্পৃক্ত করতে হবে। পেশাজীবি রাজনীতিবিদদের সাথে মূলধারার রাজনীতিবিদদের যেমন যোগাযোগ রয়েছে তেমনই যোগাযোগ রয়েছে সাধারণ মানুষের সাথেও। এই সংকটে সরাসরি কাজ করার একটা সুযোগ তৈরি করলে পরিস্থিতির উন্নতি হবে। হাসপাতাল থেকে রোগী ফিরিয়ে দেওয়ার যে সব অভিযোগ আসছে সেই অভিযোগগুলো কমে যাবে। 

সরকারের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গ যেমন মন্ত্রী, ডিজি উনারা কেউই এই মহামারীতে গ্রহণযোগ্য বা কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারছেন না। বিশেষ করে মাননীয় মন্ত্রীর বিভিন্ন সময় সংবাদ সম্মেলনে পরিবেশিত রিপোর্ট আর বাস্তবতার বিস্তর ফারাক রয়েছে।

ঢাকার ভেতরে এবং প্রতিটি জেলায় যেসব হাসপাতাল করোনার জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে তারা কনফার্মড (টেস্ট পজিটিভ) রোগীগুলো রাখছে। এটার কারণে করোনা সন্দেহে কোন রোগী ওখানে গেলে অন্য হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে। এটার কারণে রোগীর একদিক দিয়ে ভোগান্তি বাড়ছে আরেকদিকে দ্বারে দ্বারে ঘুরার কারণে কমিউনিটিতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়ানোর ঝুঁকি বাড়ছে। করোনার জন্য নির্ধারিত প্রতিটি হাসপাতালে প্রবেশমুখে একটি ট্রায়াজ এরিয়া, ভেতরে কনফার্ম রোগীদের জন্য নির্ধারিত ওয়ার্ড এবং সম্ভাব্য সন্দেহজনক রোগীদের জন্য একটি আলাদা ওয়ার্ডে (আইসোলেশন ওয়ার্ড- সন্দেহজনক রোগী) রাখতে হবে। টেস্ট পজিটিভ আসলে কনফার্মড ওয়ার্ডে চলে যাবে এবং নেগেটিভ নন করোনা হাসপাতাল গুলোতে চলে যাবে। এতে করে সবার ভোগান্তি কমবে।

আরেকটা জরুরি ব্যাপার। পৃথিবীর সবদেশেরই সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (সিডিসি) এর পরিচালক একজন সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞ। একমাত্র আমাদের দেশেই সিডিসির প্রধান একজন বায়োকেমিস্ট। উনার একমাত্র যোগ্যতা উনি ডিজিডিএর মহাপরিচালকের স্ত্রী। সবদেশে সিডিসি অসম্ভব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে৷ আর বাংলাদেশের পরিচালকের মহামারীর বিষয়ভিত্তিক বিন্দুমাত্র ধারণা নেই। অথচ এই দুর্যোগপূর্ণ মূহুর্তে উনি বহাল তবিয়তে আছেন এবং শুধু দাপ্তরিক কাজ করছেন অর্থাৎ ফাইল সই করা। এই ক্রান্তিকালে প্রতিটি মূহুর্তে পলিসি প্লানিংএর অনেক বিষয় আছে অথচ বায়োকেমিস্ট্রির লোক হওয়াতে তিনি বিন্দুমাত্র ভূমিকা রাখতে পারছেন না।এটার কড়া মাসুল দিচ্ছে জাতি। প্রতিটি হাসপাতালকে এই মহামারীর জন্য প্রস্তুত করা সিডিসির কাজ অথচ সারাদেশের কোন হাসপাতালকে এখন পর্যন্ত যথাযথ প্রস্তুত করতে পারেনি৷ ঢাকার অনেক হাসপাতাল করোনার জন্য ঘোষণা করে দিলেও বেশ কয়েকটি হাসপাতালে পর্যাপ্ত সরঞ্জাম পাঠাতে পারেনি। যেমন শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট। এটার নাম ডিক্লেয়ার করে দিলেও এটা বিন্দুমাত্র প্রস্তুত নয়৷ শুধু কাগজে-কলমে প্রস্তুত। সিডিসির এই অব্যবস্থপনার কারণে সাধারণ রোগীদের হয়রানি বেড়ে গেছে। লোকজন বিভ্রান্ত হচ্ছে এবং বিভিন্ন হাসপাতালে হাসপাতালে ঘুরছে। সামাজিক অস্থিরতা বাড়ছে এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে।  সিডিসির এহেন গাফিলতির কারণে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে।

CMSD তে চিকিৎসকদের জন্য বরাদ্দকৃত নির্ধারিত মডেলের N95 3M ব্রান্ডের মাস্ক নাকি ভুল করে অন্য ব্রান্ডের সাধারণ নিম্নমানের মাস্ক হয়ে গেছে যার দাম নির্ধারিত দামের অনেকগুণ কম।

জ্যাক মা ফাউন্ডেশন এর আলীবাবা থেকে বরাদ্দকৃত মাস্ক, পিপিই নাকি রাস্তঘাট এবং খোলাবাজারে উচ্চমূল্যে পাওয়া যাচ্ছে।

WHO, CDC চিকিৎসক এবং হেলথ কেয়ার প্রোভাইডারদের জন্য ক্যাটগরি ১,২,৩,৪ পিপিই সাজেস্ট করলেও বাংলাদেশে পলেস্টার, নাইলন কাপড়ের গার্মেন্টস এর সেলাই করা কাফনের কাপড়ের পোশাক কে পিপিই বলে চালানো হচ্ছে।

দিনরাত টকশোতে যারা উপদেশ দিয়ে যাচ্ছেন কি করা উচিত আর কি করা উচিত না। তারা পৃথিবীর কোন ভাইরাস নিয়ে দু’কথা জানুক আর নাই জানুক। অথচ এই বিষয়গুলো নিয়ে যাদের কথা বলার কথা ভাইরোলজিস্ট, মাইক্রোবায়োলজিস্ট, আই সি ইউ স্পেশালিস্ট, রেস্পিরেটরি মেডিসিন স্পেশালিস্ট, 
জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ, ইন্টারনাল মেডিসিন স্পেশালিস্ট তাদেরকে খুব একটা দেখতে পাওয়া যাচ্ছে না।

আর IEDCR এমন একটা প্রতিষ্ঠান যারা প্রথমদিন থেকে প্রতিদিন প্রেস ব্রিফিং করে বলার চেষ্টা করছে তাদের শতভাগ প্রস্তুতি আছে, পর্যাপ্ত টেস্ট কিট আছে, পরীক্ষা করার ল্যাব আছে এককথায় ১৬ টা হটলাইন নাম্বার নিয়ে করোনা মোকাবেলায় তারা শতভাগ প্রস্তুত, কারো কোন সাহায্য প্রয়োজন নেই। 

কিন্তু বাস্তবতা হলো ১,৪৭,৫৭০ বর্গকিলোমিটার আয়তন আর ১৮ কোটি মানুষের এই দেশে ১৬ টা হটলাইন নাম্বার দিয়ে প্রতিদিন কোটি কোটি মানুষের ব্যাকুল আবেদনে সাড়া দিতে তারা সম্পূর্ণ অপারগ আর প্রতিদিন শত শত সাসপেক্টেড রোগীকে ২০০০ কিট দিয়ে পরীক্ষা করতে পারা কোনভাবেই সম্ভব না এটা স্বতসিদ্ধ প্রমাণিত। আবার বায়োসেফটি লেভেল-২ ল্যাব দিয়ে RT-PCR পরীক্ষা করার কথা WHO এর গাইডলাইনে থাকলেও লেভেল-৩ ছাড়া পরীক্ষা করা যাবে না এই থিউরি দিয়ে তারা ক্ষমতা আর প্রচারের আলো নিজের দিকে রাখলেও তা থেকে উত্তরণের পথ বাতলে দিতে পারেনি। লেভেল -২ ল্যাবকে কিভাবে লেভেল -৩ এ আপগ্রেড করা যায়, লেভেল-১ কে কিভাবে লেভেল-২ করা যায় এগুলো তাদের মাথায় নেই। সাসপেক্টেড আর কনট্রাক্ট ট্রেসিং করে কিভাবে অধিক সংখ্যক মানুষকে টেস্ট করানো যায় তার কোন রাস্তা তাদের জানা নেই বরং দিনশেষে ৫০ জন টেস্ট করে ৩ জন কোভিড পজিটিভ এই খবর প্রকাশিত হয়েছে স্বগৌরবে। কিন্তু ৩ জন পজিটিভ হওয়ার অর্থ বাংলাদেশে এর বাইরে আর কোন কোভিড পজিটিভ কেস নেই ব্যাপারটা তা না, বাকিদের পরীক্ষা করার সক্ষমতা, পেশাদারী মনোভাব, সদিচ্ছা, সমন্বয় আর ইচ্ছাশক্তির ঘাটতি আর সীমাবদ্ধতা। পুরষ্কারের ভাগ সবাই নিতে আগ্রহী হলেও ব্যর্থতার গ্লানি নিজেদের কাঁধে নিতে আমরা মোটেও প্রস্তুত না যদিও করোনা নিয়ন্ত্রণে আমাদের প্রস্ততি শতভাগ বলে এতদিন দাবি করে আসছি !

আমাদের অশিক্ষিত, স্বল্পশিক্ষিত বা শিক্ষিত জনগণ বিদেশ থেকে এসে হাজী ক্যাম্পে কোয়ারেন্টাইনে যেতে রাজি না কারণ তারা রেমিট্যান্স যোদ্ধা কিন্তু বাসায় গিয়ে বাবা মা, স্ত্রী সন্তানদের ভাইরাস দিয়ে সংক্রমিত করতে রাজি।
 
আর আমজনতা দিয়াবাড়িতে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করতে দিতে রাজি না, তেজগাঁও এ অস্থায়ী হাসপাতাল করতে দেবে না, আন্দোলন করে। উত্তরায় রিজেন্ট হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি করতে দেবে না, ভাঙচুর চালাবে। ভাসানচর বা হাজী ক্যাম্পে কোয়ারেন্টাইনে থাকবে না, লকডাউনে মানুষ কি করে তা দেখতে বের হবে কিন্তু করোনার নিয়ন্ত্রণ আশা করে সরকারি ভাবে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নির্দেশনা দিয়ে সবকিছুর সমন্বয় করতে পারে না, সবাইকে নিয়ে জাতীয় কমিটি করতে পারে না, একটা ট্রায়েজ সিস্টেম চালু করতে পারে না, একটা জাতীয় টাস্কফোর্স গঠন করে বলতে পারে না আর কোন প্রবাসী আসতে পারবে না কিন্তু তারা নোটিশ দিতে পারে।

গতকাল পুরো জাতি অবাক বিস্ময়ে দেখলো সমন্বয়হীনতার চূড়ান্ত রূপ। মাননীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী গণমাধ্যমে সকালে যে তথ্য দিলেন আইইডিসিআর দুপুরেই সেই তথ্য উল্টে দিলো। তার আগের দিন আমরা দেখলাম দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পোষাক শ্রমিকেরা পায়ে হেঁটে ঢাকায় ফিরলো কাজে যোগদান করতে। এসে তারা জানতে পারলো কারখানা আবার বন্ধ। 
মক্কা মদিনা অনেক আগেই বন্ধ করা হয়েছে। পৃথিবীর সব মুসলিম অধ্যুষিত দেশেই যেখানে মসজিদে জামাতে নামাজ পড়া আপাতত নিষিদ্ধ করেছে; আমাদের এখানে সেই ঘোষণা এলো অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে গতকালকে।
গণমাধ্যম গুজব ছড়াচ্ছে তাই তাদের কে মনিটরিং এর জন্য আমলাদের দিয়ে কমিটি করা হলো। প্রজ্ঞাপন জারি হলো। প্রতিবাদের মুখে সেটা প্রত্যাহারও হলো। মন্ত্রীমশাই বললেন উনি কিছু জানেন না।
সর্বক্ষেত্রে এই সমন্বয়হীনতা আমাদের কোন মৃত্যুপুরীর দিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে ?

লেখক: সম্পাদক বিবার্তা২৪ডটনেট।

 

 

মন্তব্য