শনিবার, ১৫ আগস্ট, ২০২০ | আপডেট ০৫ মিনিট আগে

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় অর্ধেকে নেমে এসেছে গণপরিবহন

লোকসান প্রায় চার কোটি টাকা

শফিকুল ইসলাম শামীম, রাজবাড়ী

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় অর্ধেকে নেমে এসেছে গণপরিবহন

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুট দিয়ে ব্যাপক পরিমাণ গণপরিবহনের চলাচল থাকলেও করোনার কারণে এখন তা অর্ধেকে মেনে এসেছে । এতে করে বাংলাদেশ অভ্যান্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনকে (বিআইডব্লিউটিসি) প্রতি মাসে লোকসান গুনতে হচ্ছে প্রায় চার কোটি টাকা।

বিআইডব্লিউটিসি’র দৌলতদিয়া ঘাট অফিস সূত্রে জানা যায়, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের শুধু দৌলতদিয়া পার দিয়ে প্রতি ২৪ ঘণ্টায় পন্যবাহী ট্রাক ১৫শ’, ছোট গাড়ি ১৫ থেকে ১৬শ’ এবং গণপরিবহন প্রায় ৮শ’ ফেরিতে করে নদী পার হয়। কিন্তু বর্তমানে পন্যবাহী ট্রাক ১২/১৩শ’, ছোট গাড়ি ১১/১২শ’ এবং গণপরিবহন প্রায় ৩/৪শ’ নদী পার হচ্ছে।

সূত্রটি আরও জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় শুধু দৌলতদিয়া ঘাট থেকে নদী পার হয়েছে পণ্যবাহী ট্রাক ১ হাজার ২২২, ছোট গাড়ি (প্রাইভেট, মাক্রোবাস) ১ হাজার ১৬২ ও গণপরিবহন (যাত্রীবাহী বাস) ৩৪৩টি। সেই হিসেবে উভয় ঘাট মিলে প্রতিদিন প্রায় ৮শ’ গণপরিবহন নদী পার হচ্ছে না। এতে প্রতিমাসে প্রায় চার কোটি টাকা লোকসান হচ্ছে। তবুও দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে সরেজমিনে গিয়ে আরো জানা যায়, দৌলতদিয়া পারে ৬টি ফেরিঘাটের মধ্যে ১নং ঘাট শুরু থেকেই অকেজো অবস্থায় পরে আছে। ২নং ফেরি ঘাট নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে ৩, ৪, ৫ ও ৬নং ফেরি ঘাট দিয়ে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। এই নৌরুটে বর্তমানে ৭টি রোরো (বড়), ১টি কে-টাইপ (মাঝারি) ও ৭টি ইউটিলিটি (ছোট) সহ মোট ১৫টি ফেরি চলাচল করছে। এদিকে গাড়ি কম থাকায় প্রতিদিন প্রায় ফেরিতে ৩০টি টিপ কমে এসেছে। গত ২৪ ঘণ্টা ১৭৭টি টিপ হয়েছে। যা স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে ৩০টি টিপ কমে গেছে।

বাংলাদেশ অভ্যান্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি’র) দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহু রনি জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে ২৬ মার্চ থেকে সীমিত আকারে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক ছিল। এখনও ফেরি চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও গাড়ির সংখ্যা অনেক কমে গেছে।

পন্যবাহী ট্রাকের সংখ্যা তেমন না কমলেও গণপরিবহন অর্ধেকে নেমে এসেছে। সুতরাং প্রতিদিন লোকসান দিয়েই এই নৌরুটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক রাখা হয়েছে।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য