শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০২ ঘণ্টা ১৪ মিনিট আগে

উত্তরবঙ্গের ১১ জেলায় ঢাকাগামী বাস বন্ধ

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

উত্তরবঙ্গের ১১ জেলায় ঢাকাগামী বাস বন্ধ

বাংলাদেশ পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সঙ্গে দ্বন্দ্বের জেরে আজ  সকাল থেকে ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গের ১১জেলার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। রাজশাহী বিভাগীয় পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ গতকাল রাতে বগুড়া কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে জরুরি সভা করে এ ঘোষণা দেয়। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

এই ১১টি জেলা হলো বগুড়া, রংপুর, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, নীলফামারী, পঞ্চগড়, লালমনিরহাট, নওগাঁ ও জয়পুরহাট।

জেলা মোটর মালিক গ্রুপ সূত্রে জানা যায়, বগুড়া থেকে ঢাকাগামী ‘শাহ ফতেহ আলী’ বাস নিয়ে এ দ্বন্দ্বের শুরু। এই বাসের বেশির ভাগ মালিকানা বগুড়ার আর একজন মালিক নওগাঁর। বগুড়ার মালিকপক্ষ নওগাঁর মালিকের বাসটি ‘লক্করঝক্কর’ অভিযোগ তুলে বন্ধ করে দিতে চায়। এর সঙ্গে যুক্ত হয় সাপাহার-বগুড়া রুটে লিজা ও গীতা বাস চলাচলের বিষয়ের জটিলতাও। এতে বগুড়া-নওগাঁ পথে বাস চলাচল তিন দিন বন্ধ থাকে। পরে রাজশাহী বিভাগীয় পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের জরুরি সভায় বিষয়টি নিরসন হয়। 

সভায় শাহ ফতেহ আলী বাস আগের সময়সূচি অনুযায়ী চলবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এরপর সোমবার রাতেই নওগাঁ-বগুড়া রুটে বাস চলাচল শুরু হয়। তবে ওইদিন সন্ধ্যার পর থেকে বগুড়া-ঢাকা রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। বগুড়া শহরের চারমাথায় কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, ঠনঠনিয়া বাস টার্মিনাল ও শহরের কেন্দ্রস্থল সাতমাথার সব  টিকিট কাউন্টার বন্ধ করে দেওয়া হয়।


জানা যায়, ঢাকা থেকে বগুড়ার  নন-এসি বাসের ভাড়া ৩৫০ টাকা। কিন্তু শাহ ফতেহ আলীর এসি বাসগুলো এই ভাড়াতেই চলাচল করে। ফলে ঢাকার বাস মালিকেরা ক্ষতির মুখে পড়ছেন। তাই তাদের দাবি এসি বাস চলতে পারবে না। আর বগুড়ার মালিকপক্ষ চায় আগের মতোই সব বাস চলুক। পরে বগুড়া মালিক সমিতির বিভাগীয় সিদ্ধান্তে অনুযায়ী ঢাকায় চলাচলকারী সব বাস বন্ধ রাখা হয়।

মন্তব্য