সড়ক দুঘটনায় নিমিষেই এভারেস্ট জয়ের স্বপ্ন শেষ

অনলাইন ডেস্ক

সড়ক দুঘটনায় নিমিষেই এভারেস্ট জয়ের স্বপ্ন শেষ

রেশমা নাহার রত্না সুন্দর গিটার বাজিয়ে চমৎকার গান করতেন। ভালোবাসতেন পাহাড়-পর্বতে চড়তে। স্বপ্ন দেখতেন এভারেস্ট জয়ের। ভালোবাসতেন বই পড়তে, দৌড়াতে, সাইকেল চালাতে।

সেই রত্নার জীবনের সব দৌড় থেমে গেছে। আজ শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে সাইকেল চালিয়ে রাজধানীর মিরপুরের পাইকপাড়ায় সরকারি কোয়ার্টারের বাসায় ফেরার পথে গাড়ির চাপায় নিহত হয়েছেন তিনি। সংসদ ভবন ও চন্দ্রিমা উদ্যানের মাঝের রাস্তা ধরে এগোচ্ছিলেন তিনি। চন্দ্রিমাতে ঢোকার ব্রিজটার ওখানে পৌঁছানোর পরই একটা গাড়ি তাঁকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়।

শেরেবাংলা নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল কালাম আজাদ জানান, ‘সকাল ৮টা ৫০ মিনিটের দিকে ঘটনাটি ঘটে। রেশমা সংসদ ভবন এলাকার চন্দ্রিমা উদ্যানের লেক রোড ধরে গণভবনমুখী সড়কে দিয়ে এগোচ্ছিলেন। চন্দ্রিমায় ঢোকার ব্রিজের সামনের সড়কে একটি মাইক্রোবাস তাঁকে চাপা দেয়। এতে তাঁর মাথায় আঘাত লাগে। পথচারীরা উদ্ধার করে তাঁকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।’

যে মাইক্রোবাসটি রেশমাকে চাপা দিয়েছে, তার হদিস এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি বলে জানান ওসি আবুল কালাম আজাদ। এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করা হচ্ছে। সেটা দেখে গাড়ি শনাক্ত করা হবে।’

রেশমা রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকার আইয়ুব আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতেন। তাঁর বাড়ি নড়াইলে। তিনি ঢাকায় মিরপুর এলাকায় থাকতেন।

রেশমার দুলাভাই মনিরুজ্জামান বলেন, রেশমা আগে তাঁর বড় বোনের সঙ্গে পুরান ঢাকায় থাকতেন। পরে কর্মস্থল পরিবর্তন হলে তিনি মিরপুরে চলে যান। বেলা ১১টার দিকে খবর পেয়ে তাঁরা হাসপাতালে যান।

তিনি বলেন, মাইক্রোবাসটি কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। লাশের ময়নাতদন্ত শেষে তাঁরা মামলা করবেন।

বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের পাঠচক্রের একজন নিয়মিত সদস্য ছিলেন রেশমা। সেই সূত্রে রেশমার বন্ধু সাখাওয়াত হোসেন। তিনি বলেন, ‘রেশমা খুবই উদ্যমী ছিলেন। গান, আবৃত্তি, পাঠচক্রে নিয়মিত অংশ নিতেন। সাইকেল চালাতে ভালোবাসতেন। তিনি সকালে সাইকেল চালিয়ে রমনায় গিয়ে শরীরচর্চা করে হাতিরঝিল যেতেন। সেখানে কয়েক চক্কর দিয়ে সাইকেলে চালিয়ে বাসায় ফিরতেন।’

সাখাওয়াত হোসেন জানান, রেশমার স্বপ্ন ছিল নিজেকে পর্বতারোহী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা। তিনি এভারেস্টের চূড়ায় ওঠার স্বপ্ন দেখছিলেন। সে জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।

বাংলাদেশের কেওকারাডংয়ে ওঠার মধ্য দিয়ে রেশমা নিজের পর্বত অভিযান শুরু করেন। তিনি ভারতের নেহরু ইনস্টিটিউট অব মাউন্টেনিয়ারিংয়ে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। রেশমা গত বছর লাদাখের স্তোক কাংরি পর্বত জয় করেন। এ ছাড়া আফ্রিকার কিলিমাঞ্জারো ও মাউন্ট কেনিয়া জয়ের জন্য গিয়েছিলেন তিনি।

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর/কামরুল

মন্তব্য