ছাগলের পা ভাঙা নিয়ে দণ্ড, যুবলীগ নেতা খুন

অনলাইন ডেস্ক

ছাগলের পা ভাঙা নিয়ে দণ্ড, যুবলীগ নেতা খুন

ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন পৌর শহরের ৬ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সভাপতি মনিরুজ্জামান (৪০)। আহত হয়েছেন তার বাবা অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক রইছ উদ্দিন, তার অপর ছেলে মাসুদুজ্জামান বাচ্চু ও মেয়ে নার্গিস আক্তার।

গতকাল রোববারের এ ঘটনায় ত্রিশাল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহত মনিরুজ্জামানের ছোট ভাই মাসুমের করা এ মামলার পরিপ্রেক্ষিতে ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তারা হলেন- আনোয়ার হোসেন, তার ছেলে এনামুল, আরিফুল, শরিফুল, আশরাফুল এবং কাউছার।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীদের মাধ্যমে জানা গেছে, গতকাল রোববার উপজেলার নওধার এলাকার বাসিন্দা ও অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক রইছ উদ্দিনের একটি ছাগল পাশের বাড়ির আনোয়ার হোসেন ওরফে আনুর বাড়ির আঙিনায় ঢুকে পড়ে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ছাগলটির পা ভেঙে ফেলেন আনুর স্ত্রী। এ ঘটনায় দুই পরিবারের মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে মারামারি শুরু হয়।

ঘটনার সময় আনোয়ারের ছেলে এনামুল, আরিফুল, শরিফুল, আশরাফুল ও কাউছারসহ অন্যরা রামদাসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলাপাতাড়ি কোপানো শুরু করে। এ সময় আঘাত পান পৌর শহরের ৬ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সভাপতি মনিরুজ্জামান, তার বাবা ও ভাই-বোন। স্থানীয়রা তাদের ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। তবে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক। দুপুর দেড়টার দিকে হাসপাতালে পৌঁছালে মনিরুজ্জামানকে মৃত ঘোষণা করেন সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক। এ ছাড়া তার বাবার অবস্থা বর্তমানে আশঙ্কাজনক অবস্থায় আছে।

ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল ইসলাম জানান, মামলা দায়েরের পরপরই ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/তৌহিদ)

মন্তব্য