বাড়ির কাছে যেতেই কিশোরীর কান্না, ধরা ২ ‌‘ধর্ষক’

অনলাইন ডেস্ক

বাড়ির কাছে যেতেই কিশোরীর কান্না, ধরা ২ ‌‘ধর্ষক’

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলায় ১৩ বছরের এক কিশোরীকে দুই বন্ধু মিলে ফুসলিয়ে হোটেলে নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগীর বাবা বাদী হয়ে আজ বুধবার চকরিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় অভিযুক্ত দুই যুবকের মধ্যে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের উত্তর ঘুনিয়া গ্রামের মো. কামালের ছেলে শেফায়েত হোসেনকে (২২) এলাকাবাসীর সহাতায় গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অপর অভিযুক্ত মো. মহিউদ্দিন (২১) পলাতক রয়েছে। তারা দুজনই টমটম চালক।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত রোববার ভাবির সঙ্গে তার বাবার বাড়িতে বেড়াতে যায় ওই কিশোরী। বিকেলে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ঘুনিয়া এলাকার টমটম চালক শেফায়েত তার বন্ধু মহিউদ্দিনসহ কিশোরীকে ফুসলিয়ে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে হোটেলে নিয়ে তিনদিন অবস্থান করে। হোটেলে দুই বন্ধু মিলে তিনদিন ধরে তাকে ধর্ষণ করে।

আরও পড়ুন: সঙ্গমের সময় চুমু না খাওয়ার পরামর্শ কানাডার চিকিৎসকদের

এক পর্যায়ে সে অসুস্থ হয়ে পড়লে তারা দুই বন্ধু মিলে গতকাল মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে ওই কিশোরীকে তার বাড়িতে পৌঁছে দিতে যায়। বাড়ির কাছাকাছি পৌঁছার পর রাস্তার পাশে স্থানীয় লোকজনকে দেখে সে চিৎকার করে কান্না শুরু করে দেয়। এক পর্যায়ে দুই যুবক পালানোর চেষ্টা করলে স্থানীয় লোকজন শেফায়েত হোসেনকে পাকড়াও করলেও মহিউদ্দিন পালিয়ে যায়।

চকরিয়া থানার পুলিশ পরির্দশক (তদন্ত) মো. মিজানুর রহমান বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় মেয়ের বাবা বাদী হয়ে দুইজনকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেছেন। এর মধ্যে একজন গ্রেপ্তার রয়েছেন। অপর আসামিকে ধরতে পুলিশ মাঠে কাজ করছে। ভুক্তভোগীকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের ওসিসি সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tvতৌহিদ

মন্তব্য