নির্জন কনডেম সেলে মিন্নি

নিজস্ব প্রতিবেদক

নির্জন কনডেম সেলে মিন্নি

বহুল আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার রায় ঘোষণা হয়েছে। রায়ে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ছয় আসামিকে বরগুনা জেলা কারাগারের কনডেম সেলে রাখা হয়েছে।

বরগুনা জেলা কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক (জেল সুপার) মো. আনোয়ার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, এই মুহূর্তে বরগুনা জেলা কারাগারের কনডেম সেলে এই ছয় বন্দী ছাড়া অন্য কোনো কারাবন্দি নেই । আর নারী বন্দীদের মধ্যে একমাত্র মিন্নিই কনডেম সেলে আছেন। মিন্নি ছাড়া বরগুনার কারাগারের কনডেম সেলে অন্য কোনো নারী বন্দী নেই।

তিনি আরও বলেন, রিফাত হত্যা মামলার অপর পাঁচজন পুরুষ আসামিকেও কনডেম সেলে রাখা হয়েছে। এই পাঁচ পুরুষ বন্দী ছাড়া বরগুনার কারাগারের কনডেম সেলে আর অন্য কোনো পুরুষ বন্দীও নেই ।


আরও পড়ুন: ‘গা শিউরে ওঠার মতো’ বর্ণনা দিলেন গণধর্ষণের শিকার তরুণীর স্বামী


জেল সুপার বলেন, মিন্নিকে রাখা হয়েছে নারী ওয়ার্ডের কনডেম সেলে। আর পুরুষ বন্দীরা আছেন পুরুষ ওয়ার্ডের কনডেম সেলে।

তিনি বলেন, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের কারাগারের যে বিশেষ কক্ষে রাখা হয় সেটাকে কনডেম সেল বলা হয়। কনডেম সেলের বন্দীরা কখনো সেল থেকে বাইরে বের হতে পারেন না। এসব বন্দীরা মাসে একবার তার স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে পারেন। এছাড়াও সপ্তাহে একবার তারা ফোনে তাদের স্বজনদের সঙ্গে একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কথা বলতে পারেন।

রিফাত হত্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ছয় আসামিই কনডেম সেলে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, কারাবিধি অনুযায়ী ছয় বন্দীকেই কনডেম সেলে থালা, বাটি ও কম্বল দেয়া হয়েছে। এছাড়াও প্রতি আসামিকে কারাগারের পক্ষ থেকে দুই সেট পোশাক দেয়া হয়েছে। এ পোশাক তারা পরিধান করবেন।

জানা গেছে, বর্তমানে দেশে ফাঁসির দণ্ড মাথায় নিয়ে বিভিন্ন কারাগারের কনডেম সেলের বাসিন্দা ৪৯ জন নারী। যে সেলের সর্বশেষ বাসিন্দা হয়েছেন বরগুনার আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি।

দেশে সবচেয়ে বেশি নারী ফাঁসির আসামি রয়েছে কাশিমপুর মহিলা কারাগারে। এই কারাগারের জেলার হাসনাত জাহান জানান, কারাগারটিতে ২৩ জন ফাঁসির আসামি রয়েছে। কিছুদিন আগে ২৪ জন ছিল, এর মধ্যে একজনের দণ্ড কমে যাবজ্জীবন হয়ে যাওয়ায় এখন ২৩ জন রয়েছে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য