অন্ধ খলিলের অন্যরকম জীবন

বেলাল রিজভী, মাদারীপুর

অন্ধ খলিলের অন্যরকম জীবন

অন্ধ খলিলুর রহমান (৩৮)। মাদারীপুর শহরের বাসিন্দা। নেই মাথা গোজার ঠাঁই। তবুও কারো বোঝা না হয়ে অন্যরকম এক পেশা বেছে নিয়েছেন তিনি। কণ্ঠকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন প্রচার-প্রচারণার কাজ করেন খলিল।

মাইকিং করে উপার্জিত অর্থ দিয়ে চলছে তার সংসার। প্রতিবন্ধকতা তাকে আটকাতে পারেনি। এই ঘটনাকে সমাজের দৃষ্টান্ত হিসেবে দেখছেন সাধারণ মানুষ। আর জেলা প্রশাসনও তাকে প্রচারণার কাজে লাগাতে চেয়েছেন। সমাজসেবা অধিদপ্তর থেকে খলিলকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতারও আশ্বাস দেন। 

জানা গেছে, মাত্র চার বছর বয়সে দুর্ঘটনা বসত অন্ধ হয়ে যায় মাদারীপুর সদর উপজেলার লক্ষ্নীগঞ্জ এলাকার খলিলুর রহমান। এরপর আর পড়াশোনা করা সম্ভব হয়নি। অভাব-অনাটনের সংসারে বড় হয়েছেন খলিল। কিন্তু তাতেও তিনি ধমে যাননি। পিতার জায়গা-জমি না থাকায় পৌর শহরের রকেটবিড়ি এলাকায় ভাড়া থাকেন তিনি। 


আরও পড়ুন: আগামী বছর ঢাকা হবে ঝুলন্ত তারমুক্ত: মেয়র আতিক


স্ত্রী আর একমাত্র মেয়েকে নিয়ে সংসার তার। নিজের কণ্ঠকে কাজে লাগিয়ে প্রচার-প্রচারণার মাইকিং করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। প্রচারণার পুরো বিয়ষটি তিনি শুনে মুখস্ত করে ফেলেন। জীবিকার টানে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলে মাইকিংয়ের কাজ। মাইকিংয়ের কাজে দরকার একটি মাইক ও একটি রিক্সা অথবা ভ্যান গাড়ী। তবে একটি মাইক আর অটোরিক্সার না থাকায় তাকে প্রচারণার কাজে এসব ভাড়া করে চলতে হয়। তাই আয়ের অর্ধেক টাকাই দিয়ে দিতে হয় ভাড়া বাবদ। এতে কিছুটা কষ্ট রয়েছে খলিলের। 

তিনি বলেন, আমার একটি রিক্সা ও মাইক থাকলে কাজে সুবিধা হতো। এখন রিক্সা ও মাইক ভাড়া করে চলতে হয়। তিনি আরো বলেন, ভিক্ষাবৃত্তিকে আমি ঘৃণা করি। কষ্ট হলেও সম্মান নিয়েই বেঁচে থাকতে চাই।

মাদারীপুরের স্থানীয় বাসিন্দা মাসুদ পারভেজ বলেন, প্রতিবন্ধী খলিল চাইলে ভিক্ষা করতে পারতো। তিনি সেটা না করে সৎভাবে জীবন যাপন করছে। তিনি বেকার যুব সমাজের কাছে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন বলেন, খলিলুর রহমানকে সরকারী বিভিন্ন প্রচারণায় কাজে লাগানো হবে। এছাড়াও প্রতিবন্ধী হিসেবে তাকে সরকার প্রদত্ত সব সুযোগ সুবিধা দেয়া হবে।

মাদারীপুর সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক তাপস ফলিয়া বলেন, প্রচারণার প্রয়োজনীয় উপকরণ কেনার জন্য খলিল চাইলে জেলা সমাজসেব অধিদপ্তর তাকে স্বল্প সুদে ঋনের ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়াও সমাজ সেবা অধিদপ্তর থেকে ইতিমধ্যে তার জন্য ভাতার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য