কুয়েতের নতুন অভিবাসী আইন: বিপদে পড়তে যাচ্ছেন প্রবাসী শ্রমিকরা

চন্দ্রানী চন্দ্রা

প্রিন্ট করুন printer
কুয়েতের নতুন অভিবাসী আইন: বিপদে পড়তে যাচ্ছেন প্রবাসী শ্রমিকরা

অভিবাসী শ্রমিক নির্ভর দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম কুয়েত। সম্প্রতি দেশটির পার্লামেন্টে প্রবাসী শ্রমিকদের সংখ্যা কমিয়ে আনতে সর্বসম্মতিক্রমে একটি আইন পাস হয়েছে। এই নতুন আইনের কারণে বিপদে পড়তে যাচ্ছেন প্রবাসী শ্রমিকরা। অধিবেশনে উপস্থিত ৫৩ জন সংসদ সদস্যের ভোট দেওয়ার কারণে ডেমোগ্রাফিক ভারসাম্য বিলটি অনুমোদন হয়। এতে বলা হয়, অভিবাসী শ্রমিকের সংখ্যা কমাতে এক বছর সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। কুয়েতের এই নতুন আইন পাস হলে কমবে বাংলাদেশী শ্রমিকের সংখ্যা।

কুয়েতের তেল নির্ভর অর্থনীতির গতিশীলতা ধরে রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন অভিবাসী শ্রমিকরা। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে তেলের দাম কমে যাওয়ায় কুয়েতের অর্থনীতিতে ধস নেমেছে।

অর্থনীতি সক্রিয় রাখতে এবং দেশে অভিবাসীদের সংখ্যায় ভারসাম্য রাখতে কুয়েতের জাতীয় সংসদে অভিবাসী ইস্যুতে নতুন আইন পাস হয়েছে। এতে বলা হয়েছে বিদেশি নাগরিকদের সংখ্যা কমিয়ে ৩০ ভাগ করার, পাশাপাশি বিভিন্ন কাজের ক্ষেত্রে কুয়েতের জনগণই যেন বেশি সুযোগ-সুবিধা পান সে বিষয়টিকে গুরুত্ব পূর্ণ করবে। তবে নতুন আইনে কোন দেশের কত মানুষ কুয়েতে থাকতে পারবেন সে বিষয়ে সিদ্ধান্তে আসতে এক বছর সময় নিয়েছে দেশটির সরকার।

নতুন এই আইনে কতটা প্রভাব পড়তে পারে এই প্রবাসীদের ওপর, এই প্রশ্ন ছিলো কুয়েতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল আশিকুজ্জামা কাছে। তিনি বলেন, এখনও কুয়েত সরকার কত বাংলাদেশি রাখবেন। এক বছর পর তারা বলে দিবেন কত মানুষ রাখা যাবে। সে হিসেবেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরও পড়ুন: বাংলাদেশ-ভারত ফ্লাইট: বুধবার থেকে সপ্তাহে চলবে ৫৬ ফ্লাইট


নতুন আইনের খসড়ায় আগে বলা হয়েছিল বাংলাদেশ, নেপাল, পাকিস্তান এবং ভিয়েতনাম থেকে কুয়েতের মোট জনসংখ্যার অনুপাতে মাত্র ৫ শতাংশ শ্রমিক নিয়োগ দেয়া যাবে। ভারতীয়রা ১৫ শতাংশ। শ্রীলঙ্কা, ফিলিপাইন এবং মিশর থেকে ১০ শতাংশ। এর বাইরে অন্য দেশ থেকে তিন শতাংশের বেশি কর্মী নেয়া যাবে না।


আরও পড়ুন: মোবাইল ব্যাংকিং: কাল থেকে ভিন্ন অপারেটরে সরাসরি লেনদেন


খসড়ায় যে নির্দেশনার কথা বলা আছে, সেটি অবশ্য এখনো চূড়ান্ত হয়নি। যদি এটিই চূড়ান্ত হয় তাহলে বর্তমান জনসংখ্যা ৪২ লাখ ৭০ হাজারের অনুপাতে দেশটিতে বাংলাদেশি থাকতে পারবেন ২ লাখ ১৩ হাজার ৫০০ জন। দেশটিতে এখন প্রায় সাড়ে ৩ লাখ বাংলাদেশি আছেন।

অন্যদিকে বাংলাদেশের আরেকটি বড় শ্রমবাজার ওমানেও বিদেশি কর্মী কমানোর প্রস্তাবনা দিয়েছে দেশটির সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়। নিজেদের নাগরিকদের কাজে লাগাতে এ উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানিযেছে দেশটি।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য